বুধবার ১৩ নভেম্বর ২০১৯



রাজনীতিকে `না’ বলছেন বিএনপির অধিকাংশ নেতা!


বাংলা নিউজ ব্যাংক :
14.10.2019

নিউজ ডেস্ক: লোক চক্ষুর আড়ালে বিএনপি থেকে নেতাকর্মীদের অন্যদলে যোগ দেয়া এবং রাজনীতি ছেড়ে দেয়ার হিড়িক পড়েছে। এমনকি অনেক নেতা রাজনীতি ছেড়ে ব্যবসায় মনোযোগী হচ্ছেন বলেও জানা যাচ্ছে। ক্যাসিনো কেলেঙ্কারিতে বিএনপির একাধিক নেতার নাম আসার পর থেকে বিএনপির নেতাকর্মীদের মধ্যে হতাশা ও আতঙ্ক বিরাজ করছে। আর তাই ক্যাসিনো, জুয়া থেকে এযাবতকালে যে টাকা সঞ্চয় করা হয়েছে তা দিয়ে নতুন ব্যবসায় মন দিতে চাইছেন তারা।

এদিকে গত এক সপ্তাহে স্থানীয় পর্যায়ে বিএনপির শতাধিক নেতাকর্মী জাতীয় পার্টি, বিকল্পধারাসহ অন্যান্য রাজনৈতিক দলে যোগ দিয়েছে। তবে কৌশলগত কারণে এসব দলত্যাগের খবর প্রকাশ্যে আসছে না। এছাড়া বিভিন্ন এলাকার জনপ্রতিনিধিদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, বিএনপির রাজনীতিতে থাকায় শেষ পর্যন্ত কোনো ফলপ্রসূ ভবিষ্যৎ না দেখতে পেয়ে নেতারা রাজনীতি ছেড়ে ব্যবসা-বাণিজ্যে মন দিয়েছেন।

এদিকে, বিএনপির একাধিক নেতা আওয়ামী লীগে যোগ দিতে জোর তৎপরতা চালাচ্ছে বলে জানা গেছে। আর এই কারণে সারা দেশে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের জানিয়ে দেয়া হয়েছে যে, কেন্দ্রের অনুমতি ছাড়া দলের স্থানীয় পর্যায়ে অন্যদল থেকে আগত কোনো নেতাকর্মীকে দলে নেয়া যাবে না। মূলত অন্যদল থেকে আওয়ামী লীগে ঢুকে তারা অরাজকতা চালাতে পারে বলেই আওয়ামী লীগ এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলে জানা গেছে। তবে আওয়ামী লীগের বিধি-নিষেধ থাকলেও বিএনপির বহুসংখ্যক নেতাকর্মী বিকল্পধারা বাংলাদেশ, জাপাসহ অন্যান্য রাজনৈতিক দলে যোগ দিয়েছে বলে জানা গেছে।

এ পর্যন্ত প্রাপ্ত খবরে জানা গেছে, রংপুর, কুড়িগ্রাম, জামালপুর, নীলফামারী, লালমনিরহাটসহ উত্তরাঞ্চলের ১৪টি জেলার বিএনপির অনেক নেতাকর্মী বিভিন্ন রাজনৈতিক দলে যোগদান করেছে। ফলে এসব এলাকায় বিএনপিতে নেতৃত্বশূন্যতা সৃষ্টি হয়েছে। এছাড়া সিলেট, মৌলভীবাজারসহ বৃহত্তর সিলেট অঞ্চল থেকেও একাধিক নেতাকর্মী অন্যান্য দলে যোগদান করছে।

জানা যায়, বিএনপির রাজনীতিতে লাভের মুখ দেখতে না পারায় ইতিমধ্যে রাজনীতি ছেড়ে অন্যান্য নেতাকর্মীর মতো ব্যবসা-বাণিজ্যে মন দিচ্ছেন তারেক রহমান। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে হেরে যাওয়া, ক্যাসিনো কেলেঙ্কারিতে নিজেদের নেতাদের নাম, খালেদা জিয়ার মুক্তি নিয়ে অনিশ্চয়তা, দেশে ফেরা নিয়ে ধোঁয়াশা এবং দলের চেইন অব কমান্ড ভেঙে যাওয়ায় বিএনপির রাজনীতিকে অলাভজনক বিবেচনা করে দলীয় প্রধানের পদ ছেড়ে বিদেশের মাটিতে ব্যবসা করে সেখানেই স্থায়ীভাবে থাকার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তিনি।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি