সোমবার ২৫ মে ২০২০
  • প্রচ্ছদ » Lead 2 » মুক্তি নিয়ে তারেকের কার্মকাণ্ডে হতাশ খালেদা



মুক্তি নিয়ে তারেকের কার্মকাণ্ডে হতাশ খালেদা


বাংলা নিউজ ব্যাংক :
12.02.2020

নিউজ ডেস্ক: নিজের মুক্তি নিয়ে পুত্র তারেক রহমানের কর্মকাণ্ডে হতাশা ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন দুর্নীতির দায়ে সাজাপ্রাপ্ত বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। গতকাল মঙ্গলবার তার সঙ্গে পরিবারের সদস্যরা দেখা করতে গেলে এই হতাশার কথা জানান তিনি। তারেক তাকে জিম্মি করে ক্ষমতা নিতে চায় বলেও উল্লেখ করেন খালেদা।

জানা গেছে, সাক্ষাতে বেগম খালেদা জিয়া বিশেষ বিবেচনা বা প্যারোলে মুক্তির জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য আনুষ্ঠানিকভাবে তার পরিবারের সদস্যদের নির্দেশ দিয়েছেন। পরিবারের সদস্যদের পক্ষ থেকে তার বোন একটি খসড়া আবেদন বেগম খালেদা জিয়াকে দেখান। আর বেগম খালেদা জিয়া তাতে সম্মতি দেন বলে তার পরিবারের সূত্রে নিশ্চিত হওয়া গেছে।

তবে বেগম খালেদা জিয়ার পরিবারের একজন সদস্য বলেছেন, চিকিৎসার জন্য খালেদা জিয়া লন্ডনে নয় সৌদি আরবে যেতে চান।

বেগম খালেদা জিয়া তার পরিবারের সদস্যদের বলেছেন, পুত্র তারেক জিয়ার কার্যক্রমে তিনি হতাশ, দুঃখিত এবং ব্যথিত। তারেক তার মুক্তির জন্য কিছু্ই করেনি বলে তিনি উষ্মা প্রকাশ করেছেন। আর বেগম জিয়া বলেছেন, তাকে জিম্মি করে তারেক জিয়া ক্ষমতা গ্রহণ করতে চায়। সেজন্যই তারেক জিয়া নির্বাচনে অংশগ্রহণসহ নানা রকম কার্যক্রম নিচ্ছেন বলেও তিনি অভিযোগ করেন।

সংশ্লিষ্ট সুত্রগুলো বলছে, বেগম খালেদা জিয়ার সঙ্গে তার পরিবারের সদস্যরা প্রায় এক ঘণ্টা বিশ মিনিট সাক্ষাৎ করেন। এ সময় তিনি প্যারোল পেলে কোথায় চিকিৎসা করতে যাবেন, কী করবেন ইত্যাদি নিয়েও আলোচনা হয়। সেখানে বেগম জিয়া স্পষ্টভাবে জানিয়েছেন, তিনি লন্ডনে যাবেন না। লন্ডনে গেলে তিনি আবার তারেক জিয়ার হাতেই আরেকদফা বন্দী হবেন। আর তারেক জিয়া তাকে জিম্মি করেই বিএনপির কর্তৃত্ব গ্রহণ করবেন এবং বেগম খালেদা জিয়ার সুচিকিৎসা হবেনা। বরং তিনি উন্নত চিকিৎসার জন্য সৌদি আরবে যেতে চান।

উল্লেখ্য, বেগম খালেদা জিয়ার সাবেক একান্ত সচিব মোসাদ্দেক আলী ফালু এখন দুবাইতে অবস্থান করছেন এবং বেগম খালেদা জিয়ার পরিবারের সঙ্গে তিনি যোগাযোগ করেছেন বলে জানা গেছে। বেগম খালেদা জিয়ার পরিবারের সঙ্গে মোসাদ্দেক আলী ফালু সৌদি আরবে বা দুবাইতে তার উন্নত চিকিৎসার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিবেন বলেও নিশ্চিত করেছেন।

বেগম খালেদা জিয়ার একান্ত সচিব হলেও বেগম খালেদা জিয়ার অর্থ এবং ব্যবসার সবকিছুই দেখাশোনা করেন ফালু। বেগম খালেদা জিয়ার ছোট ছেলে প্রয়াত আরাফাত রহমান কোকো ফালুর ব্যবসায়িক পার্টনারও ছিলেন। তারেক জিয়ার রোষানলে পড়েই ফালু শেষ পর্যন্ত বিএনপিতে কোণঠাসা হয়ে পড়েন।

সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো বলছে যে, ফালু ইতিমধ্যেই বেগম খালেদা জিয়াকে সৌদি আরবে রাখা এবং তার চিকিৎসার যাবতীয় দায়িত্ব গ্রহণ করবেন বলে আশ্বস্ত করেছেন বেগম খালেদা জিয়ার পরিবারকে। বেগম খালেদা জিয়ার সঙ্গে দেখা করার সময় পরিবারের সদস্যরা যখন এই ব্যাপারটি জানান, তখন খালেদা জিয়াও সম্মত হয়েছেন বলে পরিবার জানিয়েছে।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি