সোমবার ২৫ মে ২০২০
  • প্রচ্ছদ » Lead 1 » ব্রেকিং: পদ হারাচ্ছেন তারেক রহমান, খালেদাপন্থীদের উচ্ছ্বাস!



ব্রেকিং: পদ হারাচ্ছেন তারেক রহমান, খালেদাপন্থীদের উচ্ছ্বাস!


বাংলা নিউজ ব্যাংক :
28.03.2020

নিউজ ডেস্ক: খালেদা জিয়ার মুক্তির আগে দলের অভ্যন্তরে যে গুঞ্জন ছিলো, অবশেষে তা সত্যি হতে যাচ্ছে। পদ হারাতে যাচ্ছেন খালেদার জ্যেষ্ঠপুত্র ও বিএনপির বর্তমান দায়িত্বে থাকা তারেক রহমান।

দলীয় বিভিন্ন বিশ্বস্ত সূত্রের বরাতে এ তথ্য নিশ্চিত হওয়া গেছে। এ খবর ছড়িয়ে পড়ার পর খালেদাপন্থীরা হাফ ছেড়ে চাপ উচ্ছ্বাস প্রকাশ করলেও বেকায়দায় রয়েছেন তারেকের ছাপোষা নেতাকর্মীরা। তাদের আশঙ্কা, তারাও অচিরে পদ হারাবেন। মাইনাস ফর্মুলায় বলি হয়ে নির্বাসিত হবেন অনিশ্চিত রাজনৈতিক অচলায়তনে। যেখান থেকে চাইলেও আর ফেরা সম্ভব না।

বিশ্বস্ত একটি সূত্র জানিয়েছে, দুর্নীতির দায়ে ২৫ মাস সাজা ভোগের পর ‘মানবিক বিবেচনায়’ ২৫ মার্চ মুক্তি পেয়েছেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। তার মুক্তির পরপরই রাজধানীর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) অবস্থানকারী খালেদার ভাই শামীম ইস্কান্দারকে লন্ডন থেকে একাধিকবার ফোন দেন তারেক রহমান। কিন্তু তিনি ফোনের জবাব দেননি। পরে গুলশানে যাওয়ার পথেও ফোন দেন তারেক। সে সময় খালেদা বিরক্ত হয়ে বলেন, ‘তারেকের ফোন কেটে দাও। আমি ক্লান্ত। কথা বলতে ভালো লাগছে না।’

এরপর থেকেই দলভ্যন্তরে গুঞ্জন উঠেছে, তারেক রহমানের বিদায় ঘণ্টা বেজে গেছে। কারণ তিনি খালেদার মুক্তির জন্য দৃশ্যমান কোন উদ্যোগ নেননি। বরং সুযোগ খুঁজেছেন তার মুক্তি ইস্যুকে পুঁজি করে বিভিন্ন মহল থেকে অর্থবাণিজ্যের। আর এ কথা খালেদা জিয়া জেনেছেন বলেই সন্তান হওয়া সত্ত্বেও তিনি তারেকের ফোন ধরছেন না। যা থেকে সহজেই বোঝা যায়, তারেক দলীয় পদ হারাচ্ছেন।

এ ব্যাপারে একাধিক খালেদাপন্থী নেতাকর্মীর সঙ্গে কথা হয় বাংলানিউজ ব্যাংকের এই প্রতিবেদকের। তারা জানান, ম্যাডাম (খালেদা জিয়া) তারেক রহমানের সব অপকর্মের ব্যাপারে অবগত হয়েছেন। ধারণা করা হচ্ছে, সে কারণেই তিনি তাকে দলীয় পদ থেকে অপসারণ করবেন। যার পূর্বাভাস তিনি তার কারামুক্তির দিনই দিয়েছেন তারেকের ফোন রিসিভ না করে। এটা অবশ্য তিনি ঠিকই করেছেন। কারণ তারেক সন্তান হয়ে কখনো মায়ের মুক্তি ইস্যুতে ব্যবসা করতে পারেন না। পাশাপাশি পদ-মনোনয়ন বাণিজ্য করে রাজনৈতিকভাবে অনভিজ্ঞ-অদক্ষদের দলে ঠাঁই দিতে পারেন না। যেটা তারেক করেছেন। আর তার শাস্তিই তিনি অচিরে পেতে যাচ্ছেন।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি