মঙ্গলবার ২ জুন ২০২০



করোনার সুযোগে দোকান লুট করলো বিএনপি নেতাকর্মীরা


বাংলা নিউজ ব্যাংক :
23.05.2020

নিউজ ডেস্ক: কিশোরগঞ্জের বাজিতপুর পৌর এলাকায় গত ১১ মে হাজী এমআরএম লুৎফুল গনি চঞ্চলের দোকান থেকে সাড়ে তিন লাখ টাকার ফার্নিচার ও কসমেটিক্স লুট করার অভিযোগ উঠেছে স্থানীয় বিএনপি নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় বিএনপির পৌর সেক্রেটারি রজব আলী ও ৭নং ওয়ার্ড সভাপতি রাজিব সাহাসহ আরও ৬ জনকে আসামি করে বাজিতপুর থানায় মামলা দায়ের করেন দোকান মালিক।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, দীর্ঘদিন ধরে ক্ষমতায় না থাকায় দুর্নীতি, টেন্ডারবাজি করে আয়ের রাস্তা আর বাজিতপুর বিএনপির জন্য খোলা নেই। এর বিকল্প হিসেবে প্রথমদিকে চাঁদাবাজি করলেও প্রশাসনের তৎপরতায় তাও বন্ধ হয়ে গেছে। বর্তমানে দলটির কর্মীরা মাদক ব্যবসা, লুট এবং ডাকাতির মতো অপকর্মে লিপ্ত হয়ে পড়েছে। এরই অংশ হিসেবে এই ঘটনা ঘটানো হয়েছে।

হাজী এম আর এম লুৎফুল গনি জানান, তার পিতা হাজী হেলাল উদ্দিন আহাম্মেদ তার ছেলে ইশরাক আহাম্মদ রাহাতকে বাজিতপুর শহরের দড়িঘাগটিয়া এলাকায় ৯ ফুট প্রস্থ ও ১৪ ফুট দৈর্ঘ্যের একটি দোকানঘরসহ ভূমি দান করেন। তার ছেলে নাবালক হওয়ায় তিনিই ওই দোকানের দেখভাল করেন। তিনি বর্তমানে সপরিবারে ঢাকায় অবস্থান করেন। তার বাড়ির কেয়ারটেকার হাসেম মিয়া দোকানটির দেখভাল ও ব্যবসা পরিচালনা করে আসছিলেন।

করোনার কারণে দোকান বেশ কয়েক দিন তালাবদ্ধ ছিল। এ সুযোগে বেশ কিছুদিন থেকে দোকানঘর দখলের হুমকি দিয়ে আসছিল পৌর বিএনপির সেক্রেটারি রজব আলী এবং ৭নং ওয়ার্ড সভাপতি রাজিব সাহাসহ আরও ৬ জন। গত ১১ মে ভোর সাড়ে ৫ টার দিকে তারা তালা ভেঙে দোকান দখল ও মালামাল লুট করে। হাসেম মিয়া বাধা দিলে তারা তাকে প্রাণনাশের হুমকি দেয় এবং দোকানের মালামাল ভ্যানগাড়িতে করে অজ্ঞাত স্থানে নিয়ে যায়।

লুৎফুল গনি চঞ্চলের অভিযোগ, আরওআর, সিএস, মাঠ রেকর্ড, জমা খারিজ, এমনকি পৌরসভার অনুমোদিত নকশা থাকার পরও তার সম্পূর্ণ বৈধ দোকানটি পৌরসভা একাধিকবার ভেঙে ফেলার হুমকি দেয়। এ ঘটনায় কিশোরগঞ্জ সহকারী জেলা ও দায়রা জজ আদালতে নিষেধাজ্ঞা চেয়ে মামলা দায়ের করা হয়। কিন্তু করোনা প্রাদুর্ভাবের কারণে আদালতের কার্যক্রম বন্ধ থাকায় এ বিষয়ে রায় দেয়া সম্ভব হয়নি।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি