শনিবার ৪ জুলাই ২০২০



গঠনতন্ত্র নিয়ে নতুন বিতর্কে বিএনপি!


বাংলা নিউজ ব্যাংক :
25.06.2020

নিউজ ডেস্ক: বিএনপিতে শূন্যপদ পূরণ এবং পদ স্থগিতে দলের গঠনতন্ত্র ও সাংগঠনিক নিয়ম মানা হচ্ছে না বলে অভিযোগ উঠেছে। গত ২২ জুন ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক পদে মনোনয়ন এবং ১২ জুন সৌদি আরব পশ্চিমাঞ্চল বিএনপির প্রচার সম্পাদক রওশন জামিন শিপুর পদ স্থগিতে এই অভিযোগ আরো তীব্র আকার ধারণ করেছে।

এবিষয়ে দলটির নেতাদের অভিযোগ, গঠনতন্ত্র ও সাংগঠনিক নিয়ম না মেনেই দলের একটি সিন্ডিকেট যাকে ইচ্ছে তাকেই পদ দিচ্ছে এবং বহিষ্কার করছে। আর এবিষয়ে সিন্ডিকেটরা দলের হাই কমান্ডের সঙ্গেও কথা বলছে না।

এদিকে করোনাভাইরাসের জন্য সারাদেশে সকল পর্যায়ের কমিটি গঠন ও পুনর্গঠন কার্যক্রম ২৫ জুন পর্যন্ত স্থগিত করেছে বিএনপি। তবে অপরাধের মাত্রা বেশি হলে এটার জন্য কোনো সময় ও নির্দেশনা থাকে না বলে বাংলাদেশ জার্নালকে জানান বিএনপির সহ সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুস সালাম আজাদ।

অন্যদিকে গঠনতন্ত্র না মেনে ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক পদে পছন্দের নেতাকে মনোনয়ন দেয়া হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। সম্প্রতি উত্তরের সাধারণ সম্পাদক আহসান উল্লাহ হাসানের মৃত্যুতে পদটি শূন্য হয়। গত সোমবার বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে সংগঠনের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক হিসেবে বর্তমান কমিটির সহসভাপতি ও ঢাকা সিটি কর্পোরেশনের সাবেক কমিশনার আবদুল আলীম নকিকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে।

তবে দলের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী সাধারণ সম্পাদকের অবর্তমানে বা মৃত্যুতে সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদকই ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন। সে হিসেবে ঢাকা মহানগর বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম সম্পাদক ও সাবেক কমিশনার আনোয়ারুজ্জামান আনোয়ার ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক দায়িত্ব পাওয়ার কথা। তিনি কোনো কারণে অপারগতা প্রকাশ করলে পরের যুগ্ম সম্পাদক দায়িত্ব পালন করবেন। কিন্তু যুগ্ম সম্পাদকদের বাদ দিয়ে সহ সভাপতি থেকে সাধারণ সম্পাদক করায় বিতর্কের সৃষ্টি হয়েছে বলে জানান আনোয়ারুজ্জামান আনোয়ার। তিনি দলের হাইকমান্ডের কাছে এ বিষয়ে দৃষ্টি দেয়ার জন্য জানিয়েছেন।

এবিষয়ে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সংগঠনের এক নেতা বলেন, আবদুল আলীম নকি বিগত বছরগুলোতে নিষ্ক্রিয় ছিলেন। এমনকি গত সিটি করপোরেশন নির্বাচনে তিনি প্রার্থীও হননি। নেতাকর্মীদের সঙ্গে তার যোগাযোগ নাই বললেই চলে। শুধুমাত্র সিন্ডিকেট পছন্দের কারণে গঠনতন্ত্র ভঙ্গ করে তাকে এ পদ দেয়া হয়েছে।

নকি’র ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব প্রদানের বিবৃতির অনুলিপিতে স্বাক্ষর করেছেন ঢাকা বিভাগীয় বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ফজরুল হক মিলন, ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপির সভাপতি এম এ কাইয়ুম, ঢাকা বিভাগীয় বিএনপির সহ সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুস সালাম আজাদ এবং শহীদুল ইসলাম বাবুল।

নকিকে সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব দেয়ায় নগর উত্তর বিএনপির নেতাদের অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে আব্দুস সালাম আজাদ বলেন, এটা বিএনপির চেয়ারপারসন না কি ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের নির্দেশে করেছেন- সেটা আমি জানি না। তবে শীর্ষস্থানীয় নেতার নির্দেশেই এটা করা হয়েছে।

এদিকে গত ১২ জুন সৌদি আরব পশ্চিমাঞ্চল বিএনপির প্রচার সম্পাদক রওশন জামিন শিপু’র পদসহ প্রাথমিক সদস্য পদ স্থগিত করা হয়। আর শিপু’র পদ স্থগিতের ফলে সৌদি আরব পশ্চিমাঞ্চল কেন্দ্রীয় বিএনপির সভাপতি আহম্মেদ আলী মুকিবের একক গঠনতন্ত্র ও অসাংগঠনিক সিন্ধান্তের বিরুদ্ধে নেতাকর্মীদের মধ্যে চরম ক্ষোভের সৃষ্টি বিরাজ করছে।

বিএনপির ৬ষ্ঠ কাউন্সিলে দলীয় গঠনতন্ত্রে বলা রয়েছে যে, মহানগর/ জেলা কমিটি দলীয় শৃঙ্খলা রক্ষায় প্রয়োজনে এবং দলীয় কর্মকাণ্ডে নিস্ক্রিয় থাকার কারণে কর্মকর্তা ও সদস্যদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে পারবে। তবে কাউকে সাময়িকভাবে বহিষ্কার কিম্বা কারো সদস্য পদ সাময়িকভাবে স্থগিত করতে হলে অনুমোদন দানকারী কমিটির এবং কাউকে বহিষ্কার করতে হলে জাতীয় স্থায়ী কমিটির কিংবা দলের চেয়ারম্যানের অনুমতি নিতে হবে।

কিন্তু রওশন জামিন শিপু’র পদ স্থগিতে দলের গঠনতন্ত্র মানা হয়নি বলে অভিযোগ করেছেন সৌদি আরব পশ্চিমাঞ্চল বিএনপির নেতাকর্মীরা।

রওশন জামিন শিপুকে কারণ দর্শানোর নোটিশে স্বাক্ষর করেন আহম্মেদ আলী মুকিব। মুকিবের স্বাক্ষরিত নোটিশে বলা হয়, এতদ্বারা আপনাকে জানানো যাচ্ছে যে, আমার প্রেরিত পত্র গত ৩০ মে আপনার প্রতি “কারণ দর্শানোর নোটিশে” আপনার গত ৫ জুন পত্রের সন্তোষজনক বিবেচিত হয় নাই। বরং অনেক অপ্রাসঙ্গিক ও অনভিপ্রেত ঘটনাবলীর অবতারনা আপনার মতো একজন দায়িত্ববান নেতার নিকট থেকে অপ্রত্যাশিত ছিল। যেহেতু আপনার পত্রের উত্তর অসন্তোষজনক, অনাঙ্ক্ষিত ও অনভিপ্রেত বিবেচিত হয়েছে। তাই সৌদি আরব পশ্চিমাঞ্চল বিএনপি আপনার দলীয় পদবী “প্রচার সম্পাদক” পদসহ প্রাথমিক সদস্য পদ ১২ জুন থেকে স্থগিত করা হল।

সৌদি আরব বিএনপির একটি নির্ভরযোগ্য সূত্রে জানা গেছে, আহম্মেদ আলী মুকিব কোন গঠনতন্ত্র ও সাংগঠনিক নিয়ম-নীতি না মেনে গত ৩০ মে রওশন জামিল শিপুকে কারণ দর্শানো নোটিশ দেযন। নোটিশের পরিপ্রেক্ষিতে প্রচার সম্পাদক শিপু আত্মপক্ষ সমর্থন করে গত ৫ মে ৫ পৃষ্ঠার জবাব জবাব দেন। কিন্তু নোটিশের জবাবের পরও মুকিব সৌদি আরব পশ্চিমাঞ্চল বিএনপির কোন সভা আহ্বান না করেই এবং কোনো নেতাকর্মীদের পরামর্শ না নিয়ে গত ১২ জুন শিপুকে দলের প্রচার সম্পাদক পদসহ প্রাথমিক পদ স্থগিত করেন।

এবিষয়ে জানতে চাইলে আব্দুস সালাম আজাদ বলেন, গুরুত্বপূর্ণ অপরাধ করলে এটার জন্য কোনো সময় ও নির্দেশনা থাকে না। তবে উনি কী অপরাধ করেছেন তা আমি জানি না। আর এটা আমার ক্ষেত্রেও হবে। তাই সংগঠন ঠিক রাখার জন্য এগুলো করতে হয়।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি