শনিবার ৪ জুলাই ২০২০
  • প্রচ্ছদ » Lead 2 » ভিপি নুরের নতুন রাজনৈতিক দল: ঘোষণা আসছে কবে?



ভিপি নুরের নতুন রাজনৈতিক দল: ঘোষণা আসছে কবে?


বাংলা নিউজ ব্যাংক :
27.06.2020

নিউজ ডেস্ক: সময়ের সঙ্গে মানুষের যে চাহিদা সেটা ধারণ করব। একইসঙ্গে মূল লক্ষ্য-উদ্দেশ্য হচ্ছে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও বাহাত্তরের সংবিধানের আদর্শ বাস্তবায়ন করা-এমন দাবিতে নতুন রাজনৈতিক দল গঠনের ঘোষণা দিয়েছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (ডাকসু) সহ-সভাপতি (ভিপি) নুরুল হক নুর। তবে তার দলের নামকরণ, মতাদর্শ ও কবে দল ঘোষণা করা হবে তা নিয়ে খোলসা করে কোন তথ্য পাওয়া যায়নি।

দায়িত্বশীল একটি সূত্রে জানা গেছে, অর্থ-সম্পদের লোভ সামলাতে পারেননি মধ্যবিত্ত পরিবারের সন্তান ডাকসু ভিপি নুর। এ কারণে ছাত্রদের প্রতিনিধিত্ব করার নামে নিজের আখের গোছানোর কাজে ব্যস্ত সময় পার করছেন তিনি। এমনকি পিছপা হননি বিএনপি-জামায়াতের মত স্বাধীনতাবিরোধীদের ‘পেইড এজেন্ট’ হয়ে কাজ করতেও। মোটা অংকের মাসোয়ারার বিনিময়ে তাদের হয়ে কাজ করছেন বলেই সময়-অসময়ে তিনি পান থেকে চুন খসলেই সত্যতা যাচাই না করে তার জন্য সরকারকে দায়ী করে মিথ্যাচার করেন। এখন তাদের রাজনৈতিক এজেন্ডা বাস্তবায়নের উদ্দেশ্যে লন্ডনে পলাতক তারেক রহমানের নির্দেশনায় নুর নতুন রাজনৈতিক দল গঠনের ঘোষণা দিয়েছেন। আর সেখানে তিনি বিএনপি-জামায়াত এমনকি সংস্কারপন্থীদেরকেও ঠাঁই দেবেন বলে খবর পাওয়া গেছে। তার এমন কর্মকাণ্ড আশাতীতভাবে প্রমাণ করে, তার আসন্ন রাজনৈতিক দলটি হবে বিএনপির একটি ব্যাকআপ সংগঠন এবং ব্যাপারটা হবে নতুন বোতলে পুরনো মদের মতো।

দল ঘোষণা ও বিভিন্ন বিষয় নিয়ে জানতে চাইলে ডাকসু ভিপি নুর এই প্রতিবেদককে বলেন, একটু অপেক্ষা করুন। সঙ্গে ধৈর্যও রাখুন। কারণ, দল ঘোষণার ক্ষেত্রে আমি চমক দেখাতে চাই। আগামী বছর আসার পরিকল্পনা ছিল। কিন্তু করোনা পরিস্থিতিতে রাষ্ট্রব্যবস্থা যে চরম ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েছে সেই জিনিসটা আরো ভাবিয়েছে। তবে যেকোনো সময় ঘোষণা আসবে এবং ভালো কিছুই আসছে-এতোটুকু গ্যারান্টি দিতে পারি।

ইতোমধ্যে নুরের দল ঘোষণা নিয়ে বিএনপি, জামায়াত ও সংস্কারপন্থীদের (এবি পার্টি) মধ্যে ত্রিমুখী মনোভাব বিরাজ করছে। তাদের ধারণা, নুর রাজনৈতিক দল গঠন করলে প্রলোভন দেখিয়ে তাদের ভেতর থেকে নেতাকর্মীদের নিয়ে যাবেন এবং নিজ স্বার্থে ব্যবহার করবেন। এতে মুখ থুবড়ে পড়বে তাদের দলগুলো।

তবে এই অভিযোগকে অস্বীকার করে নুর বলেন, আমার কাছেই পর্যাপ্ত নেতাকর্মী আছে, অন্যদল থেকে কর্মী নেওয়ার প্রশ্নই আসেনা। তাছাড়া আমার দলের অন্যতম বৈশিষ্ট্য হবে, তরুণদেরকে প্রাধান্য দেওয়া। আর সে মতোই আমি অগ্রসর হচ্ছি। তাছাড়া সিনিয়র সিটিজেনরাও থাকবেন। তবে তারা থাকবেন উপদেষ্টা প্যানেলে।

এ বিষয়ে দেশের রাজনৈতিক বিজ্ঞজনরা বলছেন, ডাকসু ভিপি নুর ইতোপূর্বে বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমান ও শিবিরের পক্ষে একাধিকবার সাফাই গেয়েছেন। একই সঙ্গে মেরুদণ্ডহীন ও মনগড়া মিথ্যাচার করেছেন সরকারের বিরুদ্ধে। এ থেকে সহজেই প্রমাণিত হয়, তিনি ওই চক্রের সক্রিয় সদস্য। অর্থাৎ বিএনপি-জামায়াত পরিচালিত ‘গুজব সেল’র অন্যতম একজন কর্মী, যার অদ্বিতীয় কাজই হচ্ছে মিথ্যাচার করা। আর তিনি এখন যে নতুন রাজনৈতিক দল গঠনের ঘোষণা দিয়েছেন, সেটাও যে বিএনপি-জামায়াতের রাজনৈতিক এজেন্ডার অংশ নয়, তার গ্যারান্টি কি! তাই সরকারসহ সবাইকে এ ব্যাপারে সতর্ক থাকতে হবে।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি