বুধবার ১২ অগাস্ট ২০২০



যে কারণে সিপিএলকে না করলেন তামিম-মোস্তাফিজ


বাংলা নিউজ ব্যাংক :
16.07.2020

প্রস্তাব পেয়েও ক্যারিবীয়ান প্রিমিয়ার লিগ (সিপিএল) খেলতে রাজি হলেন না জাতীয় দলের তিন ক্রিকেটার মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ, তামিম ইকবাল ও মুস্তাফিজুর রহমান। বৈশ্বিক মহামারি কভিড-১৯ ও পরিবারের নিরাপত্তার কথা ভেবে এ সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তারা। আগামী ১৮ আগস্ট থেকে ১০ সেপ্টেম্বর মাঠে গড়াবে ছয় দলের এ টি-২০ লিগ।

সেন্ট লুসিয়া ও সেন্ট কিটসে দুই ফ্র্যাঞ্চাইজি থেকে খেলার প্রস্তাব পান মাহমুদুল্লাহ। কিন্তু বর্তমান বৈশ্বিক বাস্তবতায় অত দূরদেশে গিয়ে খেলতে রাজি হননি তিনি। বাংলাদেশ টি২০ অধিনায়ক বলেন, ‘কভিড-১৯ এর কারণে পরিবার চায় না ওয়েস্ট ইন্ডিজে গিয়ে খেলি। বাস্তবতা মেনে নিতে হলো।’

আর জাতীয় দলের ওয়ানডে অধিনায়ক তামিম ইকবাল কভিড-১৯ এবং পারিবারিক কারণ ছাড়াও ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে খেলার জন্য ছেড়ে দিয়েছেন সিপিএলের দল।

বাঁহাতি ওপেনার বলেন, ‘ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে কমিটমেন্ট থাকায় প্রস্তাবটা গ্রহণ করিনি। কভিড-১৯-এর কারণে লিগের খেলা এক রাউন্ড হয়ে বন্ধ আছে। যেকোন সময় আবার লিগ শুরু হতে পারে। সেটার জন্য অপেক্ষা করছি।’

এ ছাড়াও করোনাকালে সাত সমুদ্র তেরো নদী পাড়ি দিয়ে ক্যারিবীয় অঞ্চলে যাওয়াকেও ঝুঁকিপূর্ণ মনে করেন টাইগার ওয়ানডে অধিনায়ক। তবে প্রস্তাব পাওয়া ফ্র্যাঞ্চাইজির নাম বলেননি তামিম। ২০১৩ সালে সেন্ট লুসিয়া জুকার্সের হয়ে সিপিএলে খেলেছেন বাঁহাতি এ ওপেনার।

বাংলাদেশ জাতীয় দলের বাঁ-হাতি পেসার মুস্তাফিজুর রহমানও দেশের ক্রিকেট না ফিরলে বিদেশি লিগ খেলতে যাওয়ার ব্যাপারে আগ্রহী নন, ‘দেশের ঘরোয়া এবং জাতীয় দলের খেলা কবে ফিরবে জানি না। করোনার থাবা কমলে হয়তো আমাদের এখানে ক্রিকেট শুরু হবে।

তবে সেটা কখন জানি না, আর এসব না জেনে সিপিএলের কোন দলকে কথা দেওয়া যায় না। তাতে করে ওই দল বড় সমস্যায় পড়বে।আমি এখন কেবল জাতীয় দলের অনুশীলনে ফেরার অপেক্ষা করছি।’

খেলোয়াড় ও স্টেকহোল্ডারদের স্বাস্থ্যগত নিরাপত্তার কারণে ২০২০ আসর শুধুমাত্র ত্রিনিদাদ অ্যান্ড টোবাগোতে হবে। বার্বাডোজ ট্রাইডেন্ট, ট্রিনবাগো নাইট রাইডার্স, গায়ানা আমাজন ওয়ারিয়র্স, সেন্ট কিটস অ্যান্ড নেভিস, সেন্ট লুসিয়া জুকার্স এবং জ্যামাইকা তালওয়াস খেলবে সিপিএলে।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি