এবার নওগাঁয় ৬ ঘণ্টা পরীক্ষা দিল ছয় শিক্ষার্থী

নিউজ ডেস্ক: প্রশ্নপত্র ভুলে একই বিষয়ে চলতি মাধ্যমিক স্কুল সার্টিফিকেট (এসএসসি) পরীক্ষায় নওগাঁয় ছয় শিক্ষার্থীকে দুইবার পরীক্ষা দিতে হয়েছে। পরীক্ষা শুরুর পর প্রথমে ওই শিক্ষার্থীদের ২০১৮ সালের প্রশ্নপত্র সরবরাহ করা হলেও পরবর্তীতে ২০১৯ সালের প্রশ্নপত্রে পরীক্ষা নেয়া হয়েছে। ঘটনায় কক্ষে দায়িত্বরত শারীরিক শিক্ষা বিষয় শিক্ষক জিয়াউর রহমানকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেয়া হয়েছে। শনিবার নওগাঁ সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় পরীক্ষা কেন্দ্রে বাংলা প্রথম পত্রের পরীক্ষায় এ ঘটনা ঘটে।

পরীক্ষা কেন্দ্র ও শিক্ষার্থী সূত্রে জানা যায়, নওগাঁ সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে ৯৯৬ জন পরীক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ নিয়েছে। সকাল ১০টা থেকে বাংলা প্রথম পত্রের পরীক্ষা শুরু হয়। ওই কেন্দ্রে ২১০ নম্বর কক্ষে ‘নওগাঁ কেডি উচ্চ বিদ্যালয়’ ও শহরের ‘আরজি-নওগাঁ উচ্চ বিদ্যালয়’ এর ৩০ জন পরীক্ষার্থী পরীক্ষা দিয়েছে। প্রথমে পরীক্ষার্থীরা আধাঘণ্টা সময়ে বহু নির্বাচনী পরীক্ষা দেয়। এরপর পরীক্ষার্থীদের সৃজনশীল পরীক্ষার প্রশ্নপত্র সরবরাহ করা হয়।

পরীক্ষার্থীরা প্রশ্নপত্র পাওয়ার পর কক্ষে দায়িত্বে থাকা শিক্ষক জিয়াউর রহমানকে বিষয়টি জানানো হয়। কিন্তু ওই শিক্ষক কোনো গুরুত্ব দেননি। এতে ২০১৮ সালের প্রশ্নপত্রেই নওগাঁ কেডি উচ্চ বিদ্যালয়ের তিন ছাত্র নাফি, মুনতাসির ও মুদ্ধ এবং আরজি-নওগাঁ উচ্চ বিদ্যালয়ের তিন ছাত্রী নিশাদ তাবাসুম, সুমাইয়া ও মুফতিসহ ছয়জন পরীক্ষা দেয়। পরে পরীক্ষা শেষ হতে প্রায় ২৫ মিনিট বাকি থাকতে কেন্দ্রে দায়িত্বরত ট্যাগ অফিসার উপজেলা তথ্য সেবা কর্মকর্তা তানিয়া খন্দকার ওই কক্ষে পরিদর্শনে যান। এসময় পরীক্ষার্থীরা বিষয়টি অবগত করে।

এরপর তিনি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে বিষয়টি আলোচনা করে তাদের ২০১৯ সালের বাংলা প্রথম পত্রের সৃজনশীল প্রশ্নপত্র দিয়ে আবার পরীক্ষা নেয়ার ব্যবস্থা করেন। পরে পরীক্ষার্থীরা বিকেল ৩টা ১০ মিনিট পর্যন্ত একই বিষয়ে দুইবার পরীক্ষা দেয়।

বিড়ম্বনার শিকার পরীক্ষার্থী মুনতাসির, মুদ্ধ ও নিশাদ তাবাসুম জানায়, প্রশ্নপত্র পাওয়ার পর প্রশ্নপত্রের রংটাও কিছুটা আলাদা ছিল। তাক্ষণিকভাবে কক্ষের দায়িত্বরত স্যারকে জানানো হলেও কোনো ব্যবস্থা নেননি। সিলেবাসের বাইরেও তিনটি প্রশ্ন ছিল। সৃজনশীল পাঁচটা প্রশ্ন লেখা শেষ হওয়ার পর এক ম্যাডাম কক্ষে আসলে আমরা বিষয়টি জানালে তিনি পরীক্ষা নেয়ার ব্যবস্থা করেন। প্রায় ছয় ঘণ্টা ধরে লাগাতার পরীক্ষা দেয়ায় আমরা খুব একটা ভালো পরীক্ষা দিতে পারিনি।

উপজেলা তথ্য সেবা কর্মকর্তা তানিয়া খন্দকার বলেন, পরীক্ষার্থীরা প্রথমে প্রশ্নপত্র পাওয়ার পর কিছুটা অমিল পেয়েছিল। বিষয়টি কক্ষে দায়িত্বরত শিক্ষককে জানানো হলেও তিনি হয়তো তখন বুঝতে পারেননি। কিন্তু কক্ষ পরিদর্শনের সময় আমাকে পরীক্ষার্থী জানালে বুঝতে পারি সেটি ছিল ২০১৮ সালের প্রশ্নপত্র। বিষয়টি নিয়ে জেলা প্রশাসক স্যারের সঙ্গে আলোচনা করা হলে পুনরায় পরীক্ষা নেয়ার ব্যবস্থা করতে বলেন।

নওগাঁ জেলা প্রশাসক মো. মিজানুর রহমান বলেন, পরবর্তীতে পুনরায় পরীক্ষা নেয়া হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও দেখুন

নেত্রকোনায় জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আমিরুল, সম্পাদক লিটন

উৎসাহ উদ্দীপনার মধ্যদিয়ে দীর্ঘ ৬ বছর পর অনুষ্ঠিত হয়েছে নেত্রকোনায় জেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন। এতে সভাপতি নির্বাচিত হয়েছেন এডভোকেট আমিরুল ইসলাম এবং সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছেন এডভোকেট শামসুর রাহমান ভিপি লিটন। জেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে ঐতিহাসিক মোক্তারপাড়া মাঠে আয়োজিত ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে সভাপতিত্ব করেন জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি মতিউর রহমান খান। এতে প্রধান অতিথি […]

বিস্তারিত

রসিক নির্বাচন : ঘোষণা দিয়েও কেনো সরে আসলো বিএনপি প্রার্থী?

নিউজ ডেস্ক : রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে মেয়র পদে মনোনয়নপত্র দাখিল করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন একই সিটির গত নির্বাচনে বিএনপি মনোনীত মেয়র প্রার্থী কাওছার জামান বাবলা। দলীয়ভাবে বিএনপি বর্তমান সরকারের অধীনে কোনও নির্বাচনে না যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিলেও তিনি নির্বাচনে অংশ নেবেন বলে জানিয়েছিলেন। সোমবার রাত সাড়ে ৯টায় এই নেতা নিজেই বিষয়টি নিশ্চিত করেন- মঙ্গলবার (২৯ নভেম্বর) […]

বিস্তারিত

‘২০২৪ সালেও শেখ হাসিনার বিজয় নিশান উড়িয়ে ঘরে ফিরবো’

টাঙ্গাইল জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা জোয়াহেরুল ইসলাম (ভিপি জোয়াহের) এমপি বলেছেন, আমি আওয়ামী লীগের কোনো নেতা ও কর্মী নই, আওয়ামী লীগের কামলা। ২০১৫ সালের ১৮ অক্টোবর সম্মেলনের মাধ্যমে শেখ হাসিনা আমাকে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক করেছিলেন। তারপরও দলকে আরও সুসংগঠিত করেছি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দয়ায় ২০১৮ সালের ৩০ ডিসেম্বর দলীয় মনোনয়ন […]

বিস্তারিত