বিএনপির অধঃপতনের জন্য তারেকের লোভ-লালসাকে দায়ী করছেন নেতা-কর্মীরা

নিউজ ডেস্ক: বিএনপির রাজনৈতিক অধঃপতন ও সাংগঠনিক দুর্বলতার জন্য লন্ডনে অবস্থানকারী বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানকেই দায়ী করছেন দলটির একাধিক সিনিয়র নেতা। এ সংক্রান্ত একটি ইংরেজি সাপ্তাহিক পত্রিকায় প্রকাশিত নিবন্ধ নিয়ে রাজনৈতিক অঙ্গনে তোলপাড় শুরু হয়েছে।

প্রকাশিত সংবাদের সত্যতা নিশ্চিত করে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিএনপির একজন সিনিয়র নেতা আক্ষেপ করে বলেন, বিএনপির প্রায় ৬ কোটি নেতা-কর্মী ও সমর্থকরা রাজনৈতিকভাবে নিঃস্ব হয়েছেন শুধুমাত্র একজন নেতার মাত্রাতিরিক্ত লোভ ও লালসার কারণে। তিনি আর কেউ নন, লন্ডনে আশ্রিত বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান। তার প্রতি নেতা-কর্মীদের ক্ষোভ দ্বিগুণ হয়েছে তখন, যখন জানা গেছে, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তিনি মনোনয়ন বাণিজ্য করে কোটি কোটি টাকা অবৈধভাবে আয় করেছেন।

এ বিষয়ে একজন রাজনৈতিক বিশ্লেষক বলেন, জাতীয় নির্বাচনে বিএনপির অনাকাঙ্ক্ষিত পরাজয়ের মূল কারণ হচ্ছে, যোগ্য ও পরীক্ষিত নেতাদের বাদ দিয়ে অযোগ্য ব্যক্তিদের মনোনয়ন দেয়া। বিএনপির চরম দুর্দশার জন্য দায়ী একমাত্র তারেক রহমান। নির্বাচনকালীন সময়ে তিনি লন্ডনে বসে কলকাঠি নেড়ে বিএনপির চরম ক্ষতি করেছেন। তারেক রহমানের রাজনৈতিক অদূরদর্শিতার জন্য বিএনপি মাত্র ৬টি আসনে জয়ী হতে পেরেছে। এই ৬ আসনে জয়ী হওয়াটা বিএনপির জন্য গ্লানিকর অভিজ্ঞতা।

তিনি আরো বলেন, জানতে পেরেছি, নির্বাচনকালীন সময়ে তারেক দেশীয় এজেন্টদের মাধ্যমে কোটি কোটি টাকা লন্ডনে নিয়ে গেছেন। মনোনয়ন বাণিজ্য এতটাই অসহনীয় এবং অগ্রহণযোগ্য হয়ে পড়ে যার কারণে খোদ দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর পর্যন্ত পদত্যাগ করারও হুমকি দিয়েছিলেন।

এদিকে ৩০ জানুয়ারির নির্বাচনে পরাজয়ে পর বিএনপির বড় একটি অংশ ভেবেছিলো- দৈব্য কোনো শক্তি এসে তাদের বিপর্যয় থেকে মুক্তি দেবে। রাজনৈতিক সংকট উত্তরণে উপায় খোঁজা বাদ দিয়ে খোদ বিএনপি নেতারা এখনও বিশ্বাস করেন যে, তৃতীয় কোনো পক্ষ হঠাৎ করে এসে বিএনপিকে রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় বসিয়ে দেবে। কিন্তু বিএনপির বেশকিছু নেতা-কর্মীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, দলের কার্যক্রম নিয়ে তারা দ্বিধান্বিত এবং দলের পরবর্তী কার্যক্রম সম্পর্কে জ্ঞাত নন।

জানা গেছে, বিএনপির এমন সাংঘাতিক দুর্দশার মধ্যে কোন্দল স্পষ্ট হওয়ায় দলের বিভক্তি বিষয়ক শঙ্কা প্রকাশ করেছেন স্বয়ং দলটির সিনিয়র নেতৃবৃন্দ। দলের কয়েকজন সিনিয়র নেতা বিএনপিকে নতুন করে রাজপথে ফিরিয়ে আনতে গোপন ষড়যন্ত্র করে জিয়া পরিবারকে মাইনাস করার চেষ্টা চালাচ্ছেন বলেও জানা গেছে। সংস্কারপন্থী এসব নেতারা মনে করেন, বেগম জিয়া ও তারেক রহমানের দখল থেকে বিএনপিকে বের করতে না পারলে আগামীতে বিএনপির অস্তিত্ব সংকটে পড়বে।’

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আরও দেখুন

কর্নেল ফারুক

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের খুনির মার্কাও ধানের শীষ!

Share this… Facebook 0 Twitter Telegram Linkedin নিউজ ডেস্ক: বাংলাদেশের স্বাধীনতার স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যা করা হয় ১৫ আগস্ট ১৯৭৫। সেই নারকীয় হত্যাকাণ্ডকে দেশবিরোধী দল বিএনপি নাম দেয় “আগস্ট বিপ্লব” বলে। নিজেদের স্বার্থসিদ্ধির জন্য রাষ্ট্রের এমন কোনো খাত নেই যেখানে বঙ্গবন্ধুর হত্যাকারী তথা বিএনপি-জামায়াতের লোকদের পদায়ন করা হয়নি। এমনকি জাতির পিতার খুনিকেও […]

বিস্তারিত
বিএনপি

খালেদা জিয়াকে মুক্ত করতে ১৬ আগস্ট মিলাদ পড়াবে বিএনপি

Share this… Facebook 0 Twitter Telegram Linkedin নিউজ ডেস্ক: দুর্নীতির দায়ে দণ্ডিত বিএনপি নেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির জন্য আগস্ট মাসে ব্যতিক্রমী উদ্যোগ গ্রহণ করেছে বিএনপি। জানা গেছে, আইনি প্রক্রিয়ায় নেত্রীর মুক্তি আদায়ে ব্যর্থ হওয়ায় আগস্ট মাসে ক্ষমতাসীন দলের আবেগকে পুঁজি করে বেগম জিয়াকে মুক্ত করতে প্রয়াস চালাবে দলটি। সে লক্ষ্যে ১৬ আগস্ট খালেদা জিয়াকে […]

বিস্তারিত
১৫ আগস্ট ও খালেদা জিয়া

১৫ আগস্ট ও খালেদা জিয়ার জঘন্য জন্মদিন নাটক

Share this… Facebook 0 Twitter Telegram Linkedin নিউজ ডেস্ক: খালেদা জিয়া। এই নামটিই বাংলাদেশে বারবার জন্ম দিয়েছে একের পর এক বিতর্কের। কখনো অতি স্বজনপ্রীয়তা কিংবা দুর্নীতি আবার কখনোবা চারিত্রিক ত্রুটি। তবে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যার দিনটিকে তথা জাতীয় শোক দিবসে (১৫ আগস্ট) জন্মদিন পালনের যে জঘন্য রীতি সে তৈরী করেছে তা […]

বিস্তারিত