সংসদীয় কমিটির সভাপতি আ. লীগের জ্যেষ্ঠ ৬ নেতা

নিউজ ডেস্ক: একাদশ সংসদ নির্বাচনের পর শেখ হাসিনার মন্ত্রিসভা থেকে বাদ পড়া আওয়ামী লীগের জ্যেষ্ঠ নেতা তোফয়েল আহমদ, আমির হোসেন আমু, মোহাম্মদ নাসিম, খন্দকার মোশাররফ হোসেন, মতিয়া চৌধুরীসহ ৬ জনকে বুধবার সংসদীয় কমিটির সভাপতি করা হয়েছে।

বুধবার জাতীয় সংসদে ৮টি সংসদীয় স্থায়ী কমিটি গঠন করা হয়। এরমধ্যে শিল্প, বাণিজ্য, কৃষি ও স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির সভাপতি পদ দেওয়া হয়েছে গত মেয়াদে একই মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বে থাকা মন্ত্রীদের। সংসদ নেতার অনুমতিক্রমে কমিটিগুলো গঠনের প্রস্তাব সংসদে তোলেন চিফ হুইপ নূর-ই-আলম চৌধুরী। পরে কণ্ঠভোটে প্রস্তাবগুলো পাস হয়।

এর আগে ১০টি সংসদীয় কমিটি গঠন করা হয়। এখন পর্যন্ত একাদশ সংসদের ১৮টি সংসদীয় স্থায়ী কমিটি গঠন করা হয়েছে। দশম সংসদে ৫০টি সংসদীয় স্থায়ী কমিটি ছিল।

বুধবারের বৈঠকে সাবেক শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমুকে শিল্প মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত কমিটির সভাপতি, সাবেক বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদকে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত কমিটির সভাপতি, সাবেক কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরীকে কৃষি মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির সভাপতি ও সাবেক স্থানীয় সরকারমন্ত্রী খন্দকার মোশাররফ হোসেনকে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির সভাপতি করা হয়েছে।

এছাড়া সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলীকে অর্থমন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির এবং সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিমকে খাদ্য মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির সভাপতি করা হয়েছে। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির সভাপতি করা হয়েছে ফারুক খানকে। তিনি নবম সংসদে বাণিজ্য ও বিমানমন্ত্রী ছিলেন। স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির সভাপতি করা হয়েছে শেখ ফজলুল করিম সেলিমকে। ১৯৯৬ সালে গঠিত সরকারে তিনি স্বাস্থ্যমন্ত্রী ছিলেন।

কমিটির সদস্য যারা
অর্থমন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির সদস্য করা হয়েছে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল, আব্দুস শহীদ, মোস্তাফিজুর রহমান চৌধুরী, নাজমুল হাসান, কাজী নাবিল আহমেদ, আহেমদ ফিরোজ কবীর, সেলিমা আহমেদ ও রানা মোহাম্মদ সোহেল।

শিল্প মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির সদস্যদরা হলেন শিল্পমন্ত্রী নুরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন, এ কে ফজলুল হক, হাবিবুর রহমান মোল্লা, শামীম ওসমান, আবুল কালাম মো. আহসানুল হক চৌধুরী, আবু রেজা মোহাম্মদ নেজামউদ্দিন, মো. সহিদুজ্জামান ও কাজিম উদ্দিন আহমেদ।

বাণিজ্য মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির সদস্যরা হলেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশী, আ ক ম বাহাউদ্দীন, মাহামুদ উস সামাদ চৌধুরী, ইউসুফ আব্দুল্লাহ হারুন, হাসান ইমাম, তাহজীব আলম সিদ্দিকী, লিয়াকত হোসেন খোকা ও সেলিম আলতাফ জজ।

স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির সদস্যরা হলেন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী জাহিদ মালেক, প্রতিমন্ত্রী মুরাদ হাসান, আ ফ ম রুহুল হক, মুহিবুর রহমান মানিক, একরামুল করিম চৌধুরী ও ইউনূস আলী সরকার।

খাদ্য মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন—খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার, নূরুল ইসলাম নাহিদ, হাজী মো. সেলিম, আতিউর রহমান, ধীরেন্দ্র নাথ শম্ভু, আব্দুল হাই, আয়েন উদ্দিন ও আতাউর রহমান খান।

কৃষি মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন— কৃষিমন্ত্রী আব্দুল রাজ্জাক, ইমাজউদ্দিন প্রামাণিক, মোসলেম উদ্দিন, ওমর ফারুক চৌধুরী, আব্দুল মান্নান, মামুনুর রশীদ কিরণ, আনোয়ারুল আবেদীন খান ও জয়া সেনগুপ্তা।

স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত কমিটির সদস্যরা হলেন স্থানীয় সরকার মন্ত্রী তাজুল ইসলাম, মসিউর রহমান রাঙ্গা, শেখ আফিল উদ্দিন, রেবেকা মমিন, রাজী মোহাম্মদ ফকরুল, শাহে আলম, ছানোয়ার হোসেন ও আবদুস সালাম মুর্শেদী।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন— পরাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন, পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম, নূরুল ইসলাম নাহিদ, গোলাম ফারুখ খন্দকার, আব্দুল মজিদ খান, হাবিবে মিল্লাত, নাহিম রাজ্জাক, কাজী নাবিল আহমেদ ও নিজামউদ্দিন জলিল।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আরও দেখুন

বিএনপি আমলে তারেক খাম্বার ব্যবসা করেছে, বিদ্যুৎ আসেনি: নানক

Share this… Facebook 0 Twitter Telegram Linkedin আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য অ্যাডভোকেট জাহাঙ্গীর কবির নানক বলেছেন, বিএনপি বিদ্যুৎ খাত ধ্বংস করে দিয়েছিলো। ৯৬ সালে শেখ হাসিনার সরকার ৪ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন করেছিলেন। বিএনপি ২০০১ সালে ক্ষমতায় এসে তারেক রহমান খাম্বার ব্যবসা করেছে, বিদ্যুৎ আসেনি। সেই বিদ্যুৎ ২ হাজার মেগাওয়াটে চলে এসেছিলো। আর শেখ হাসিনার […]

বিস্তারিত

বঙ্গবন্ধু হত্যায় জিয়াউর রহমান জড়িত: হানিফ

Share this… Facebook 0 Twitter Telegram Linkedin আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুল আলম হানিফ বলেছেন, বঙ্গবন্ধুর হত্যার সঙ্গে জিয়াউর রহমান জড়িত ছিলো। জিয়া বঙ্গবন্ধুর হত্যাকারীদের পুনর্বাসন করেছে। বঙ্গবন্ধুর হত্যাকারী কর্নেল রশিদ বিবিসির সঙ্গে সাক্ষাৎকারে বলেছিলো, এ হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে তারা কিভাবে জড়িত ছিলো। তিনি বলেন, রশিদ বলেছিলো হত্যাকাণ্ডের আগে একাধিকবার তারা জিয়াউর রহমানের সঙ্গে বৈঠক […]

বিস্তারিত

১৫ আগস্টের খুনি চক্র এখনও সোচ্চার: শেখ তাপস

Share this… Facebook 0 Twitter Telegram Linkedin ১৫ আগস্টের খুনি চক্র এখনও সোচ্চার রয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ঢাদসিক) মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস। সম্প্রতি জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে কদমতলী থানা আওয়ামী লীগ আয়োজিত আলোচনা সভা, দোয়া মাহফিল ও দুস্থদের মাঝে তবারক বিতরণ অনুষ্ঠানে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে মেয়র ব্যারিস্টার শেখ তাপস […]

বিস্তারিত