উপজেলা নির্বাচনের মনোনয়ন নিয়েও বিএনপির বাণিজ্য!

নিউজ ডেস্ক: দলের ভঙ্গুর পরিস্থিতি বিবেচনা ও নির্বাচনে আশানুরূপ ফল না পাওয়ার শঙ্কায় এবার উপজেলা নির্বাচনেও দলীয় যোগ্য প্রার্থীদের মনোনীত না করে বাণিজ্যের লক্ষ্যে স্বতন্ত্র প্রার্থীদের সমর্থন দেয়ার পরিকল্পনা নিয়েছে বিএনপির শীর্ষ নেতৃত্ব। যা নিয়ে সরব হয়েছে তৃণমূল বিএনপি। যা নিয়ে চরম অসন্তোষও দেখা দিয়েছে।

সূত্র বলছে, উপজেলা নির্বাচনে বিএনপি অংশ নেবে না বলে সিদ্ধান্ত নিয়েছে। তবে দলটির কিছু অসাধু নেতা উপজেলা নির্বাচনকে কেন্দ্র করে তৃণমূল কর্মীদের স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে দলের সমর্থন দিয়ে আর্থিকভাবে লাভবান হতে চাইছে। আর এর সঙ্গে জড়িত আছেন কিছু সংখ্যক কেন্দ্রীয় নেতাও। দলীয় মনোনয়নের ভুয়া চিঠি দিয়ে বিভিন্ন উপজেলাতে বিকল্প প্রার্থী হিসেবে আনকোরা নেতাদের নাম জুড়ে দিচ্ছে। জানা গেছে, এসব অযাচিত ঘটনায় বিব্রত ও অপমানিত বোধ করছেন তৃণমূলের ত্যাগী এবং পুরনো নেতারা। স্থানীয় নির্বাচনে নিজেদের দল বিএনপি অংশ নেবে না- এমন সিদ্ধান্ত তৃণমূল মেনে নিলেও নতুন মুখের একটি বড় অংশ টাকার বিনিময়ে দলীয় সমর্থন পাচ্ছেন বলে মাঠ পর্যায়ে ইতোমধ্যেই আওয়াজ উঠেছে। বিএনপি সূত্র জানিয়েছে, এসব অভিযোগ তদন্ত করে দায়ীদের শাস্তি দিতে নির্দেশ দিয়েছেন দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান।

এ প্রসঙ্গে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন বঞ্চিত সাবেক এমপি লায়ন হারুন অর রশিদ বলেন, উপজেলা নির্বাচন নিয়েও বিএনপির অনেক শীর্ষ নেতা বাণিজ্য শুরু করেছেন। ইতোমধ্যেই তারা অযোগ্য অনেক নেতাকে টাকার বিনিময়ে দলীয় সমর্থন এনে দেবেন বলে প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। এভাবে দল চললে বাংলাদেশ থেকে বিএনপির অস্তিত্ব নিশ্চিহ্ন হয়ে যাবে।

একাদশ জাতীয় নির্বাচনে মনোনয়ন বাণিজ্যের বিষয়টি নিয়ে তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করে তিনি আরও বলেন, চাঁদপুর-৪ আসনে আমার জনপ্রিয়তার মূল্যায়ন না করে দলীয় অন্তর্কোন্দল সৃষ্টিকারী এমএ হান্নানের কাছ থেকে টাকা খেয়ে দলের শীর্ষ নেতারা তার হাতে ধানের শীষ তুলে দিলেন। বিনিময়ে চাঁদপুর-৪ আসনে বিএনপির ভরাডুবি হলো। এবার উপজেলা নির্বাচনেও যদি মনোনয়ন বাণিজ্য করা হয়, তবে দলের অস্তিত্ব থাকবে না।

এদিকে মনোনয়ন বাণিজ্য নিয়ে গণমাধ্যমের কাছে লক্ষ্মীপুর-১ আসনের বিএনপি নেতা নাজিমউদ্দিন ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, সংসদ নির্বাচনে লক্ষ্মীপুর-১ আসনে আমার তুমুল জনপ্রিয়তা থাকা সত্ত্বেও আমাকে ধানের শীষ দেয়া হয়নি। আর এখন শুনছি উপজেলা নির্বাচনে মনোনয়নের কথা বলে দলের শীর্ষ নেতারা বাণিজ্য করছেন! অযোগ্য অজনপ্রিয় নেতাদের দল সমর্থন দেবে বলে মাঠ পর্যায়ে বিভিন্ন কথা শোনা যাচ্ছে। যা আমাদের মতো তৃণমূল নেতাদের জন্য খুবই বিব্রতকর পরিস্থিতি সৃষ্টি করছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও দেখুন

বিএনপি কার্যালয়ের সামনে ককটেল বিস্ফোরণ দলীয় কর্মীদের

বিএনপির নয়াপল্টন কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে একটি ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে। তবে এতে কেনো হতাহতের ঘটনা ঘটেনি। শনিবার (৩ ডিসেম্বর) সন্ধ্যা সোয়া ৬টার দিকে কার্যালয়ের সামনের সড়কে ডিভাইডারের পাশে এই বিস্ফোরণ ঘটে। কে বা কারা এই ককটেল বিস্ফোরণ ঘটিয়েছে তা জানা যায়নি। এ বিষয়ে পল্টন থানার পরিদর্শক (তদন্ত) সেন্টু মিয়া বলেন, আমরা শুনেছি সন্ধ্যার দিকে পল্টনে […]

বিস্তারিত

বিভক্ত বিএনপি, কেন্দ্রীয় নেতাদের সামনেই দু’পক্ষের সংঘর্ষ

রাজশাহীর মাদ্রাসা মাঠে বিএনপির গণসমাবেশে কেন্দ্রীয় নেতাদের সামনেই দুই পক্ষের মধ্যে মারামারি ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এ সময় প্ল্যাকার্ড ছোড়াছুড়ি করেন উভয়পক্ষের নেতাকর্মীরা। ব্যক্তিগত শো-ডাউনকে কেন্দ্র করে সাবেক সংসদ সদস্য নাদিম মোস্তফার বক্তব্য চলাকালে এ ঘটনা ঘটে। কেন্দ্রীয় নেতারা এ সময় বারবার তাদের নিবৃত্ত করার নির্দেশ দিলেও মারামারি চলতে থাকে। দুই পক্ষই সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। […]

বিস্তারিত

লাশের সন্ধানে বিএনপি

আগামী ১০ ডিসেম্বর ঢাকায় মহাসমাবেশে সন্ধানে বিএনপি। যেকোনো মূল্যে লাশ পড়তে হবে এটিই বিএনপির মূল আরাধ্য এবং এ ব্যাপারে বিএনপির নেতা কর্মীদেরকে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। আগামী ১০ ডিসেম্বর ঢাকার মহাসমাবেশকে সামনে রেখে বিভিন্ন পর্যায়ে বিএনপি এখন সমাবেশ করছে। ওয়ার্ডে এবং থানাগুলোতে বিএনপির এই সমস্ত কর্মীসভা গুলোতে কোনো রকম ছাড় না দেওয়া এবং পুলিশ যদি সামান্যতম […]

বিস্তারিত