ঐক্যফ্রন্টে পদের আশায় রবের মতিভ্রম, চাইলেন খালেদার মুক্তি

নিউজ ডেস্ক: খালেদা জিয়াসহ দলীয় নেতাকর্মীদের মুক্ত করতে কঠোর আন্দোলন গড়ে তোলা হবে বলে সরকারের প্রতি হুঁশিয়ারি বাক্য উচ্চারণ করেছেন ঐক্যফ্রন্ট নেতা আ স ম আবদুর রব।

৬ ফেব্রুয়ারি বিকেলে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট আয়োজিত এক মানববন্ধনে এ হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেন জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জেএসডি) সভাপতি আ স ম আবদুর রব।

এদিকে বিএনপি নেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি নিয়ে রবের মতো মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তি বলে দাবি করা নেতার হুমকি দ্বিচারিতা এবং বৃথা আস্ফালন বলে মনে করছেন রাজনৈতিক বিশ্লেষক অধ্যাপক এ আরাফাত। তার মতে, রাজনৈতিক সুবিধা আদায় করতে এবং বিএনপির জোর সমর্থন আদায় করে ঐক্যফ্রন্টে গুরুত্বপূর্ণ পদ আদায় করতে রব উচ্চবাচ্য করেছেন বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

এ বিষয়ে আরাফাত বলেন, ঐক্যফ্রন্টে যোগ দেয়ার আগে কিন্তু রব সাহেব বিএনপির ঘোর বিরোধী ছিলেন। নিজেকে স্বাধীনতার পক্ষের শক্তি দাবি করে রব বিএনপিকে জামায়াতের দোসর ভেবে প্রচণ্ড ঘৃণা করতেন। অথচ যখনই নির্বাচন ও সংসদ সদস্য হওয়ার সম্ভাবনা সৃষ্টি হলো তখন জেনেশুনে বিএনপি-জামায়াতের হাত ধরলেন তিনি। এগুলো রাজনৈতিক ভণ্ডামির অংশমাত্র। রবের মতো মানুষের কোন রাজনৈতিক আদর্শ নেই। ক্ষমতার প্রয়োজনে নিজেকে বিক্রি করতেও লজ্জা পান না তিনি। শুনেছি, ঐক্যফ্রন্টে গুরুত্বপূর্ণ পদ বাগিয়ে নেয়ার জন্য বিএনপি-প্রীতি বাড়িয়েছেন রব। রব যে সুবিধাবাদী নেতা সেটি আবারও প্রমাণ হলো। বিএনপির উচিত হবে রবের কাছ থেকে দূরত্ব বজায় রাখা। কেননা সুযোগ বুঝে আবারও তিনি রঙ পাল্টাতে পারেন।

বিষয়টিকে ভিন্নভাবে ব্যাখ্যা করে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মওদুদ আহমেদ বলেন, খালেদা জিয়া যে জনপ্রিয় নেত্রী তা কিন্তু রবের বক্তব্যে প্রমাণ হয়েছে। যারা বিএনপিকে অবজ্ঞা ও অবহেলা করতেন তারাই কিন্তু আজকে বিএনপি নেত্রীর মুক্তির দাবি করছেন। যদিও রব সাহেবের মূল দল আওয়ামী লীগ ছিলো। রব অতীতে বিএনপি-বিরোধী ছিলেন, এখন কিন্তু তিনি বিএনপির অনুরাগী বলা চলে। আমি চাই, ঐক্যফ্রন্টে রবকে ভালো একটি পদ দেয়া হোক। যদিও ম্যাডাম জিয়ার মুক্তির দাবি করায় রবের রাজনৈতিক কৌশল ও নীতি-নৈতিকতা নিয়ে বিএনপি ও ঐক্যফ্রন্টে নানা গুঞ্জন চলছে। কিন্তু আমি স্পষ্ট করে বলতে চাই, রব আজ থেকে বিএনপির বন্ধু হিসেবে বিবেচিত হবেন। আশা-করি, বিএনপি-জামায়াত নিয়ে রব কিংবা ড. কামালদের আর সমস্যা হবে না। ঐক্যফ্রন্টে বিএনপি-জামায়াতকে আর কেউ গালি দেবে না। রাজনীতিতে স্থির আদর্শ বলে কিছু নেই। প্রয়োজন সব কিছুকে বৈধতা দেয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আরও দেখুন

বিএনপি বিদেশিদের দিয়ে সরকার উৎখাত করার স্বপ্ন দেখছে: হানিফ

Share this… Facebook 0 Twitter Telegram Linkedin বিএনপি বিদেশিদের দিয়ে সরকার উৎখাত করার স্বপ্ন দেখছে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ। তিনি বলেন, মহান মুক্তিযুদ্ধে পাকিস্তানের পরাজয় হলেও বর্তমান বাংলাদেশে তাদের এজেন্টরা এখনো বেঁচে আছে। তারা (বিএনপি) নানান সময়ে নানা মিথ্যাচার করে, অভিযোগ করে বিদেশিদের দিয়ে সরকার উৎখাত করার স্বপ্ন […]

বিস্তারিত

ষড়যন্ত্র প্রতিরোধে শপথ নিতে হবে: কৃষিমন্ত্রী

Share this… Facebook 0 Twitter Telegram Linkedin আওয়ামী লীগ সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও কৃষিমন্ত্রী ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক বলেছেন, বঙ্গবন্ধুর খুনিরা আজও ষড়যন্ত্র করে যাচ্ছে। মুক্তিযুদ্ধবিরোধী জামায়াত-বিএনপির সব ষড়যন্ত্র প্রতিরোধ করতে সবাইকে শপথ নিতে হবে। বৃহস্পতিবার রাজধানীর জহির রায়হান সাংস্কৃতিক কেন্দ্রে জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে গেন্ডারিয়া থানা আওয়ামী লীগ আয়োজিত আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলে এসব […]

বিস্তারিত

চৌদ্দগ্রামে বিএনপি কার্যালয় ভাঙচুর করলেন যুবদল নেতা

Share this… Facebook 0 Twitter Telegram Linkedin কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামে দলীয় কর্মসূচিতে দাওয়াত না পেয়ে বিএনপি কার্যালয়ের আসবাবপত্র ভাঙচুর করেছেন যুবদল নেতা নাজমুল হক। তিনি চৌদ্দগ্রাম উপজেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক। জানা গেছে, বুধবার সন্ধ্যায় চৌদ্দগ্রাম বাজারের বিএনপির কার্যালয়ে উপজেলা ও পৌর বিএনপির উদ্যোগে এক দোয়া মাহফিল ও আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। পৌর বিএনপির সদস্য সচিব […]

বিস্তারিত