৪ লাখ টাকা আত্মসাতে ব্যাংক কর্মকর্তার যাবজ্জীবন

নিউজ ডেস্ক: ফরিদপুরে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) মামলায় এক ব্যাংক কর্মকর্তাকে জরিমানাসহ যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। বুধবার দুপুর সোয়া ১২টার দিকে ফরিদপুরের বিশেষ জজ আদালতের হাকিম মো. মতিয়ার রহমান এ রায় দেন। রায় ঘোষণার সময় ওই ব্যাংক কর্মকর্তা পলাতক ছিলেন।

দণ্ডপ্রাপ্ত পলাতক ব্যাংক কর্মকর্তার নাম শামসুর রহমান। তিনি ইসলামী ব্যাংক লিমিটেডের শরীয়তপুরের ডামুড্যা উপজেলা শাখায় সহকারী কর্মকর্তা কাম ক্যাশ পদে কর্মরত ছিলেন। তবে মামলা হওয়ার পর তাঁর চাকরি চলে যায় এবং তিনি আত্মগোপন করেন।

আদালত সূত্রে জানা যায়, ২০১২ সালের ২০ মার্চ শামসুর রহমান জোহরের নামাজ পড়ার কথা বলে ব্যাংক থেকে বের হয়ে যান। পরে তিনি আর ব্যাংকে ফিরে আসেননি। ওই দিন বিকেলে ওই ব্যাংকের ব্যবস্থাপক মুন্সী রেজাউল রশিদ ব্যাংকের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার সহায়তায় অতিরিক্ত চাবি দিয়ে ক্যাশ খুলে হিসাব মিলিয়ে দেখেন, নির্দিষ্ট টাকার চেয়ে ১ লাখ ৭০ হাজার টাকা কম আছে।

ওই দিনই ব্যাংকের ব্যবস্থাপক মুন্সী রেজাউল রশিদ ডামুড্যা থানায় শামসুর রহমানকে আসামি করে একটি মামলা করেন। ২০১২ সালের ৩১ অক্টোবর মামলাটি তদন্ত করার দায়িত্ব নেন দুর্নীতি দমন সমন্বিত ফরিদপুর আঞ্চলিক কার্যালয়ের উপসহকারী পরিচালক কমল চন্দ্র পাল।

তদন্ত করতে গিয়ে দেখা যায়, শামসুর রহমান ওই ব্যাংকের সঞ্চয়ী হিসাব গ্রহীতা নুর জাহানের ৩০ হাজার টাকা, মতি ফকিরের ১ লাখ ৩০ হাজার টাকা ও চান মিয়ার ৩২ হাজার টাকাসহ মোট ২ লাখ ৩২ হাজার টাকা জমা না দিয়ে আত্মসাৎ করেছেন।

২০১৩ সালের ৩১ জুলাই দুদকের উপসহকারী পরিচালক কমল চন্দ্র পাল গ্রাহক ও ব্যাংকের মোট ৪ লাখ ২ হাজার টাকা আত্মসাতের দায়ে শামসুর রহমানকে অভিযুক্ত করে অভিযোগপত্র জমা দেন।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে দুদকের আইনজীবী মো. মজিবুর রহমান জানান, আজ আদালত দুটি ধারায় শামসুর রহমানকে দোষী সাব্যস্ত করে কারাদণ্ড ও অর্থদণ্ড দেন। ১৮৬০ সালের দণ্ডবিধির ৪০৯ ধারায় দোষী সাব্যস্ত করে শামসুর রহমানকে যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ড দেওয়া হয়। একই সঙ্গে মামলার অভিযোগে উল্লেখ করা আত্মসাতের সমপরিমাণ ৪ লাখ ২ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। জরিমানা অনাদায়ে আরও ছয় মাস বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেওয়া হয়।

এ ছাড়া ১৯৪৭ সালের দুর্নীতি প্রতিরোধ আইনের ৫(২) ধারায় শামসুর রহমানকে দোষী সাব্যস্ত করে পাঁচ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড ও পাঁচ হাজার টাকা জরিমানা করেন আদালত। জরিমানা অনাদায়ে তাঁকে আরও এক মাস বিনাশ্রম কারাদণ্ড ভোগ করতে হবে।

আইনজীবী মো. মজিবুর রহমান আরও জানান, শামসুর রহমানকে দুটি সাজা একই সঙ্গে ভোগ করতে হবে। তবে শামসুর রহমান ২০১২ সালের ২০ মার্চ থেকে পলাতক রয়েছেন। ঘটনার দিনই তাঁকে ব্যাংক থেকে বরখাস্ত করা হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও দেখুন

লাশের সন্ধানে বিএনপি

আগামী ১০ ডিসেম্বর ঢাকায় মহাসমাবেশে সন্ধানে বিএনপি। যেকোনো মূল্যে লাশ পড়তে হবে এটিই বিএনপির মূল আরাধ্য এবং এ ব্যাপারে বিএনপির নেতা কর্মীদেরকে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। আগামী ১০ ডিসেম্বর ঢাকার মহাসমাবেশকে সামনে রেখে বিভিন্ন পর্যায়ে বিএনপি এখন সমাবেশ করছে। ওয়ার্ডে এবং থানাগুলোতে বিএনপির এই সমস্ত কর্মীসভা গুলোতে কোনো রকম ছাড় না দেওয়া এবং পুলিশ যদি সামান্যতম […]

বিস্তারিত

লক্ষ্মীপুরে ছাত্রদল নেতা গ্রেফতার

লক্ষ্মীপুরে পুলিশের ওপর হামলার ঘটনায় ছাত্রদল নেতা সবুজ আহমেদকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। শনিবার আদালতের মাধ্যমে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। এর আগে শুক্রবার রাত ৮টার দিকে শহরের বাজার ব্রিজ এলাকার দোকান থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। সবুজ জেলা ছাত্রদলের সহ-সভাপতি ও লক্ষ্মীপুর পৌরসভার লামচরী এলাকার মৃত সুজায়েত উল্যার ছেলে। তিনি পেশায় ব্যবসায়ী। লক্ষ্মীপুর সদর মডেল থানার […]

বিস্তারিত

টাঙ্গাইলে ককটেল বিস্ফোরণ, বিএনপির ২ নেতাকর্মী আটক

টাঙ্গাইলের ভূঞাপুরে গভীর রাতে বিএনপি নেতাকর্মীদের গোপন বৈঠক ও ককটেল বিস্ফোরণের অভিযোগে ইলিয়াস শেখ ও ঠান্ডু সর্দার নামে বিএনপির দুই নেতা-কর্মীকে আটক করেছে পুলিশ। গত বুধবার ভূঞাপুর পৌর এলাকার শিয়াকোল হাটখোলা থেকে রাতে ইলিয়াস শেখকে এবং শুক্রবার গভীর রাতে ঠান্ডুকে তার নিজ বাড়ি থেকে আটক করে ভূঞাপুর থানা পুলিশ। শনিবার ঠান্ডুকে আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠানো […]

বিস্তারিত