শুক্রবার ২১ জানুয়ারী ২০২২



বিএনপির শীর্ষ নেতাদের বিশ্বাসঘাতক বললেন খালেদা


বাংলা নিউজ ব্যাংক :
07.03.2019

নিউজ ডেস্ক: বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া তার দলের শীর্ষ নেতৃত্বের প্রতি চরম অসন্তুষ্ট। বিশেষ আত্মবিশ্বাসী হয়ে নির্বাচনে যাওয়া এবং ভরাডুবির পরও আন্দোলনের ঘোষণা না দেয়ায় নির্বাচনের পর থেকে দলের হাইকমান্ড নিয়ে সন্তুষ্ট নন তিনি। সূত্র বলছে, ৩ মার্চ নাইকো দুর্নীতি মামলায় হাজিরা দিতে আদালতে আনার সময় খালেদা জিয়া তার দলের শীর্ষ নেতাদের প্রকাশ্যে ভর্ৎসনা করেন।

সূত্র বলছে, নির্বাচনে ভরাডুবির পরও আন্দোলনের ঘোষণা না দেয়ায় দলের নেতাদের প্রতি চটেছেন বেগম জিয়া। দলের হাইকমান্ড ও তৃণমূলের মধ্যে দূরত্ব তৈরি নিয়েও নেতাদের প্রতি রয়েছে তার ক্ষোভ। বেগম জিয়া মনে করছেন বিএনপির নীতিনির্ধারণী ফোরামের নেতারা সরকারের সাথে আঁতাত করে তাকে হত্যার ষড়যন্ত্র করছেন। এছাড়া ২০ দলকে বাদ দিয়ে আদর্শবিচ্যুত ড. কামালকে নিয়ে সংসার করা, অবশেষে সেই কামালেরই দুই অনুসারী মনসুর-মোকাব্বিরের শপথ গ্রহণ- এই বিষয়গুলোকে মন থেকে মেনে নিতে পারছেন না তিনি।

এ বিষয়ে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক দলের নীতিনির্ধারণী ফোরামের এক নেতা বলেন, বেগম খালেদা জিয়া নাইকো দুর্নীতি মামলায় হাজিরা দিতে এসে প্রথম দেখাতেই দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদকে বেইমান বলে উল্লেখ করেন। তিনি বলেন, ‘তোমার কথামতো কাজ করতে গিয়ে আজ আমার এই পরিণতি। তুমি বলেছিলে, আমাকে জেলে নিয়ে গেলে একদিনেই সরকারের পতন হয়ে যাবে। এক বছরের বেশি সময় হয়ে গেল অথচ কিছুই করতে পারলে না।’

জানা যায়, এসময় স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, মঈন খান, আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী, মির্জা আব্বাসসহ দলের বেশ ক’জন সিনিয়র নেতাকে প্রকাশ্যে ভর্ৎসনা করেন তিনি। খালেদা জিয়াকে মুক্ত করতে জ্বালাও-পোড়াও আন্দোলন না করায় এসব নেতাকে হিজরাদের সাথে তুলনা করেন খালেদা জিয়া।

আদালত সূত্র বলছে, আদালতে প্রবেশ পথে বেগম খালেদা জিয়াকে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সালাম দিয়ে কেমন আছেন জানতে চান। সালামের উত্তর না নিয়ে বেগম খালেদা জিয়া রাগান্বিত স্বরে বলেন, গত কদিনে শ’ এর ওপর তৃণমূল নেতাকে বহিষ্কার করে দলটাকে একেবারে ধ্বংস করে দিয়ে গেলেন। যত দ্রুত পারেন দল থেকে বিদায় হোন। এসময় ফখরুলকে সরকারের চর আখ্যা দিয়েও গালাগাল করেন বেগম জিয়া।

এ প্রসঙ্গে দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুলের ষড়যন্ত্রের জন্য আজ বিএনপি চরম সংকটকালীন সময় অতিবাহিত করছে। বিএনপির ভেতরে বিশ্বাস-অবিশ্বাসের জন্ম দিয়েছেন ফখরুল। আর এর সাথে তাল মিলিয়ে সরকারের সুবিধা নিচ্ছেন দলের এক ডজন হাই-প্রোফাইল নেতা। তাই বেগম খালেদা জিয়া বিএনপির শীর্ষ নেতাদের বিশ্বাসঘাতক বলে কোনো ভুল বলেননি।

উল্লেখ্য, অনেকে মনে করছেন, ফখরুল ও লন্ডন থেকে তারেকের নেতৃত্ব মানছে না তৃণমূল। এমনকি সংগঠিত খালেদার দলে বিশ্বাসঘাতকতা তৈরি করেছেন দলের শীর্ষ নেতারা। মির্জা ফখরুলের নরম সুরে দলের মধ্য থেকে প্রশ্ন উঠেছে, বিএনপিকে সাংগঠনিকভাবে শক্তিশালী না করে তিনি দল ধ্বংসের ষড়যন্ত্র করছেন কিনা।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি