মঙ্গলবার ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০



রাজনীতি ছাড়ছেন খালেদা, হতাশ কেন্দ্রীয় নেতারা


বাংলা নিউজ ব্যাংক :
15.09.2020

নিউজ ডেস্ক: বিএনপির তৃণমূলসহ শীর্ষস্থানীয় অনেক নেতাই আশা করেছিলেন, খুব শিগগিরই দলের চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া মুক্ত হবেন এবং পুনরায় দলের দায়িত্ব বুঝে নেবেন। কিন্তু সেই আশায় গুঁড়েবালি। কেননা খালেদা জিয়া রাজনীতির প্রতি আগ্রহ হারিয়ে ফেলেছেন। চেয়ারপার্সনের রাজনীতির প্রতি বিমুখতা ও দলীয় নেতাকর্মীদের উদাসীনতায় হতাশা বেড়েছে বিএনপিতে।

খালেদা জিয়া পরিবারের ঘনিষ্ঠ সূত্রে জানা গেছে, তিনি এখন আর তার পরিবারের সদস্য ও লোকজন ছাড়া কারো সঙ্গে তেমন দেখা-সাক্ষাৎ করেন না। তিনি তার আইনজীবীদের উপরও আস্থা হারিয়ে ফেলেছেন।

এছাড়া নিজেও উপলব্ধি করছেন, বিএনপিতে তার চেয়ে এখন তারেক রহমানের গুরুত্ব বা মূল্যায়ন বেশি। তাই তিনি রাজনীতি থেকে অনেকটা বিমুখ। ফলে বিএনপির মধ্যে খালেদা জিয়াকে নিয়ে হতাশা আরো বেড়ে গেছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিএনপিতে এক সময়ের প্রভাবশালী ও শীর্ষস্থানীয় এক নেতা বলেন, আমরা রাজনীতিতে আজ চরমভাবে হতাশাগ্রস্ত। ভেবেছিলাম খালেদা জিয়ার মুক্তির পর আমাদের সঙ্গে আলোচনা করবেন। দলের সাংগঠনিক অবস্থা পর্যবেক্ষণ করবেন। দলের মধ্যে কোন্দল নিরসনে বিভিন্ন পরামর্শ দেবেন। অভিমানী নেতাদের ফিরিয়ে আনতে ফলপ্রসূ উদ্যোগী হবেন। কিন্তু এখনো পর্যন্ত তিনি খোলস ছেড়ে বের হতে পারেননি। তারেক রহমান তাকে পুরোপুরি রাজনীতি শূন্য করে রেখেছেন।

ওই নেতা আরো বলেন, খালেদা জিয়ার উচিত ছিল কারাগার থেকে মুক্ত হয়ে নেতা-কর্মীদের খোঁজ-খবর নেয়া। করোনাভাইরাস মহামারিতে দেশের জনগণের খোঁজ-খবর নেয়া। কিন্তু তা না করে তিনি নিজেকে ঘরের মধ্যে বন্দি করে রেখেছেন। ফলে দিন দিন আরো হতাশাগ্রস্ত হয়ে যাচ্ছি। ভেবে উঠতে পারছি না এই দলের ভবিষ্যত কী?

কণ্ঠে হতাশার সুর নিয়ে নীতিনির্ধারণী পর্যায়ের আরেক নেতা বলেন, এর আগে বিএনপির অবস্থা কখনো এতো করুণ হয়নি। বিএনপি এখন কঠিন সময় অতিবাহিত করছে।

তিনি বলেন, দলের মধ্যে আজ অবিশ্বাসে ভরে গেছে। দল দুটি ভাগে বিভক্ত। জানি না কবে এই অমাবস্যার অন্ধকার সরে রাজনীতির আকাশে পূর্ণিমার চাঁদ দেখা দেবে।

সম্প্রতি নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের নিচে এক আলোচনা সভায় বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেছেন, আন্দোলন চাই। আবার সময় মতো আমি নিজে নাই, টেলিফোন বন্ধ।

নিজ দলীয় নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, ঈমান ঠিক করেন, যেদিন বলতে পারবেন- মরতে হয় মরবো, গণতন্ত্র আনবো। সেদিনই খালেদা জিয়া মুক্তি পাবে।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি