শুক্রবার ২ অক্টোবর ২০২০



খালেদাকে নিয়ে রাজনীতি করছে বিএনপি!


বাংলা নিউজ ব্যাংক :
15.09.2020

নিউজ ডেস্ক: আগামী মাসেই শেষ হতে চলেছে বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়ার সাজা স্থগিতের মেয়াদ। নির্দিষ্ট সময়ের পূর্বেই এ মেয়াদ বৃদ্ধির আবেদন না করলে নিয়ম অনুযায়ী ফের কারাগারে যেতে হবে তাকে।

ঈদুল আজহার দিন স্থায়ী কমিটির সদস্যরা খালেদা জিয়ার সঙ্গে সাক্ষাত করে জামিনের মেয়াদ বৃদ্ধির আবেদন করবেন বলে জানিয়েছিলেন। কিন্তু তারও প্রায় ২০ দিন অতিবাহিত হলেও দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ স্থায়ী কমিটির সদস্যদের কারো কাছেই এ বিষয়ে সুস্পষ্ট কোনো তথ্য নেই। এখনো এ বিষয়ে ধোঁয়াশায় বিএনপি ও তার পরিবারের সদস্যরা। এ অবস্থায় জনমনে প্রশ্নের দানা বাঁধতে শুরু করেছে। তাহলে কি খালেদা জিয়াকে নিয়ে ফের রাজনীতি করেছে বিএনপি?

কবে নাগাদ খালেদা জিয়ার সাজা স্থগিতের মেয়াদ বৃদ্ধির আবেদন করা হতে পারে- জানতে চাইলে দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, এ বিষয়ে আমার কাছে কোনো তথ্য নেই। একই ধরনের কথা বলেন তার ব্যক্তিগত বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক দলের সদস্য ও বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ডা. এজেডএম জাহিদ হোসেন।

দীর্ঘ ২৫ মাস সাজা ভোগের পর মুক্তি পেয়ে গুলশানের ভাড়া বাড়ি ফিরোজায় উঠেছেন বিএনপি চেয়ারপার্সন। এরপর থেকে সেখানেই আছেন তিনি। খালেদা জিয়ার চিকিৎসার সবকিছু লন্ডন থেকে তার পুত্রবধূ ডাক্তার জোবায়দা রহমান তত্ত্বাবধায়ন করে যাচ্ছেন। শর্তসাপেক্ষে ৬ মাসের মুক্তির মেয়াদ আর প্রায় এক মাস বাকি আছে।

এ প্রসঙ্গে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক জিয়া পরিবারের এক ঘনিষ্ঠজন জানান, দলীয় নেতা-কর্মী ও আইনজীবীদের প্রতি আস্থা হারিয়ে ফেলেছেন খালেদা জিয়া।

তিনি বলেন, বিএনপি দলীয় স্বার্থে খালেদা জিয়াকে রাজনৈতিক গুটি হিসেবে ব্যবহার করতে চায়। এ বিষয়টি এখন তার কাছে স্পষ্ট। তাই তার মুক্তির ব্যাপারে দলীয় বা তার আইনজীবীদের আর নাক গলাতে পছন্দ করছেন না তিনি। এই বিষয়টি এখন পরিবারের সদস্যদের উপরই ছেড়ে দিয়েছেন খালেদা জিয়া। সেপ্টেম্বরের প্রথম সপ্তাহের মধ্যেই তার জামিনের মেয়াদ বৃদ্ধির আবেদন করা হতে পারে।

প্রসঙ্গত, জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় ২০০৮ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি কারাগারে যান খালেদা জিয়া। পরে জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট ও জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতির দুই মামলায় ১৭ বছরের জেল হয় তার। করোনা পরিস্থিতির কারণে দীর্ঘ ২৫ মাস পর সরকারের নির্বাহী আদেশে শর্তসাপেক্ষে ৬ মাসের জামিন পান তিনি।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি