সোমবার ২৬ অক্টোবর ২০২০



জামায়াতের সঙ্গ ত্যাগ না করায় বিএনপিতে ভাঙনের সুর


বাংলা নিউজ ব্যাংক :
14.10.2020

নিউজ ডেস্ক: রাজনৈতিকভাবে সবচেয়ে বড় মিত্র জামায়াতকে ছেড়ে দেয়ার সিদ্ধান্তের প্রায় কাছাকাছি গিয়েও হঠাৎ করেই অবস্থান পরিবর্তন করায় ক্ষিপ্ত বিএনপির জামায়াত বিরোধীরা।

তবে কী কারণে হঠাৎ করেই এমন সিদ্ধান্ত থেকে সরে এসেছে দলটি, এ নিয়ে রাজনৈতিক অঙ্গনে চলছে নানা কানাঘুষা। আর বিএনপির অভ্যন্তরে লেগেছে ভাঙনের আশঙ্কা। শেষ পর্যন্ত অনুসন্ধানে জানা গেছে, বিএনপির এক শীর্ষ নেতার সঙ্গে যোগাযোগ করে জামায়াত ওই উদ্যোগ থামিয়ে দিতে সফল হয়েছে।

দলীয় সূত্র জানায়, জামায়াত নিয়ে করণীয় নির্ধারণে মতামত বা পরামর্শের অংশ হিসেবে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সব নেতার বক্তব্যের পর গত ৫ সেপ্টেম্বর (শনিবার) বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের বক্তব্য দেয়ার কথা ছিল। কিন্তু এরপর আরো তিন শনিবার বৈঠক হলেও ফখরুল বক্তব্য দেননি। ফলে এ নিয়ে বিএনপিতে আলোচনা-সমালোচনা এখনও চলছে।

এমন পরিস্থিতিতে জামায়াত তাদের জোট থেকে বের না করার অনুরোধমূলক বার্তাটি বিএনপির এক শীর্ষ নেতার কাছে পৌঁছানোর ব্যবস্থা করে। এরপর বিএনপির ওই শীর্ষ নেতা জামায়াত প্রশ্নে দলটির স্থায়ী কমিটিকে ‘ধীরে চলো নীতি’ গ্রহণের নির্দেশনা দেন। এতে জামায়াত নিয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণের প্রশ্নে দলটির স্থায়ী কমিটির তৎপরতা থেমে যায়।

বিএনপির ওই শীর্ষ নেতা সম্প্রতি দলের এক নীতিনির্ধারক নেতাকে ডেকে জামায়াত সম্পর্কে নির্দেশনা দেন। কিন্তু এতে দলটির জামায়াতবিরোধী নেতারা ক্ষুব্ধ হয়েছেন। তারা বলছেন, বৈশ্বিক ও জাতীয় রাজনৈতিক পরিস্থিতি বিবেচনা করেই কৌশলগত কারণে জামায়াতকে আপাতত দূরে রাখা উচিত।

তাদের মতে, শরিক জামায়াতকে জড়িয়ে বিএনপির বিরুদ্ধে জ্বালও-পোড়াওসহ নানা সহিংস ঘটনা রয়েছে। পাশাপাশি সুধীসমাজসহ দেশের সাধারণ মানুষও জামায়াতকে সহ্য করতে পারে না।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে বিএনপির স্থায়ী কমিটির এক নেতা বলেন, জামায়াতের তৎপরতার কারণেই উদ্যোগটি থামানোর নির্দেশনা আসে।

তিনি বলেন, চেষ্টা যতই হোক, আমরা প্রায় গুছিয়ে এনেছি। জোট থেকে জামায়াতকে বিদায় করতেই হবে। অন্যথায় বিএনপি থেকে মুখ ফিরিয়ে নিতে হবে।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি