শুক্রবার ২৭ নভেম্বর ২০২০
  • প্রচ্ছদ » Lead 3 » বেগম জিয়া-তারেক বাদ, বিএনপির নেতৃত্বে মির্জা ফখরুলকে চান জাফরুল্লাহ!



বেগম জিয়া-তারেক বাদ, বিএনপির নেতৃত্বে মির্জা ফখরুলকে চান জাফরুল্লাহ!


বাংলা নিউজ ব্যাংক :
25.10.2020

নিউজ ডেস্ক: একাদশ সংসদ নির্বাচনে শোচনীয় পরাজয়সহ দলের রাজনৈতিক বিশৃঙ্খলায় বিএনপির দুর্দশা দেশবাসীর কাছে দৃশ্যমান। এক দশকের বেশি সময় পেলেও দল গোছাতে ব্যর্থ হয়েছেন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম জিয়া ও তার পুত্র তারেক রহমান। স্বল্প শিক্ষিত ও অযোগ্য নেতৃত্বের জন্য রাজনীতিতে মুখ থুবড়ে পড়েছে বিএনপি। বেগম জিয়া ও তারেক রহমানের যথেষ্ট রাজনৈতিক জ্ঞানের অভাব রয়েছে। তাই বিএনপিকে রক্ষা করতে চমক দরকার। সেক্ষেত্রে বেগম জিয়া ও তারেক রহমানকে দল পরিচালনার সরাসরি দায়িত্ব থেকে সরে গিয়ে মির্জা ফখরুলের হাতে বিএনপির দায়িত্বভার তুলে দেয়া উচিত বলে মনে করেন বিএনপিপন্থী বুদ্ধিজীবী ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী।

একান্ত আলাপে বাংলা নিউজ ব্যাংকের সাথে বিএনপির বর্তমান রাজনৈতিক গতিধারা, নেতৃত্ব পরিবর্তন ও চমকের রাজনীতির বিষয়ে আলাপ করেছেন তিনি।

গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ও বিএনপিপন্থী বুদ্ধিজীবী ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, বর্তমান ফাস্ট রাজনীতির যুগে সেকেলে বেগম জিয়া ও তারেক রহমানে বড্ড বেমানান। তারা দেশীয় ও বৈশ্বিক রাজনীতির জন্য পারফেক্ট নন। তাছাড়া দুজনই আদালত কর্তৃক দণ্ডপ্রাপ্ত আসামি। যার কারণে দেশ ও বিদেশে বিএনপির বন্ধু-সমর্থকদের সংখ্যা কমে আসছে। কোন্দল, বিদেশনির্ভর নেতৃত্বের জন্য বিএনপির রাজনীতিও ক্রমেই সংকুচিত হয়ে আসছে। তাই ফাস্ট রাজনীতির পরিবেশে বিএনপিকে টিকিয়ে রাখতে হলে নেতৃত্ব পরিবর্তন করে চমক সৃষ্টি করাটা জরুরি হয়ে পড়েছে।

তিনি আরো বলেন, বেগম জিয়ার উচিত চেয়ারপারসনের পদ ছেড়ে দিয়ে দলের সুপ্রিম অ্যাডভাইজর হতে পারেন। বিদেশে বসে তারেকও দলের যথেষ্ট ক্ষতি করছেন। তাকেও পদ ছেড়ে দেয়া উচিত। বরং তিনি লেখাপড়া করে রাজনীতি শিখতে পারেন এই সময়ে। দল বাঁচাতে বেগম জিয়াকে রিস্ক নিতেই হবে। সেক্ষেত্রে মির্জা ফখরুলকে দলের নির্বাহী চেয়ারম্যান বানিয়ে তার হাতে দলের পুরো দায়িত্ব দিয়ে দেয়া উচিত। বিতর্কিত নেতৃত্বের কারণে বিএনপি ঘুরে দাঁড়াতে পারছে না। সেক্ষেত্রে বেগম জিয়া ও তারেক রহমানের উচিত মির্জা ফখরুলের উপর আস্থা রেখে পরিবারের বাইরে নতুন কাউকে দলের প্রধান বানিয়ে চমক দেখানো। এতে অন্তত তরুণ জনগোষ্ঠী বিএনপির প্রতি আকৃষ্ট হতে পারে। ফলে দেশে ও বিদেশে বিএনপির বন্ধর সংখ্যা বাড়তে পারে। কিন্তু জিয়া পরিবার এতো বড় রিস্ক নিবে কি না, সেটি নিয়েও যথেষ্ট শঙ্কা রয়েছে।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি