শুক্রবার ২৭ নভেম্বর ২০২০
  • প্রচ্ছদ » Lead 3 » বেগম জিয়া-তারেকের প্রতি মনঃক্ষুণ্ণ গয়েশ্বর-নিপুণ রায় চৌধুরী!



বেগম জিয়া-তারেকের প্রতি মনঃক্ষুণ্ণ গয়েশ্বর-নিপুণ রায় চৌধুরী!


বাংলা নিউজ ব্যাংক :
25.10.2020

নিউজ ডেস্ক: দেশব্যাপী শুরু হয়েছে হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় উৎসব শারদীয় দুর্গা পূজা। করোনার মধ্যেও স্বাস্থ্যবিধি মেনে উৎসবে মেতেছেন সনাতন ধর্মের মানুষরা। সরকারি দলসহ অন্যান্য রাজনৈতিক দলগুলোর পক্ষ থেকে হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের জানানো হচ্ছে শুভেচ্ছা, বিতরণ করা হচ্ছে উপহার সামগ্রী। কিন্তু ব্যতিক্রম শুধু বিএনপির ক্ষেত্রে।

জানা গেছে, দুর্গাপূজা উপলক্ষে বিএনপির সনাতন নেতাদের শুভেচ্ছা জানাননি বেগম জিয়া কিংবা তারেক রহমান। সংখ্যালঘুদের প্রতি এমন বিরূপ আচরণে মনঃক্ষুণ্ণ হয়েছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় ও জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য নিপুণ রায় চৌধুরীসহ অন্যান্য সনাতন ধর্মের নেতারা।

গয়েশ্বর চন্দ্র রায় ঘনিষ্ঠ একাধিক সূত্র বলছে, বিএনপিতে হাতে গোনা কয়েকজন সনাতন ধর্মের নেতা রয়েছেন। তার মধ্যে গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, নিতাই রায় ও নিপুণ রায় চৌধুরীরা অন্যতম। যদিও বিএনপিকে হিন্দু বিদ্বেষী রাজনৈতিক দল হিসেবে বিবেচনা করেন দেশবাসী। এরপরও গয়েশ্বর চন্দ্র রায়রা মনে করেন, হিন্দু বিদ্বেষী মনোভাব দূর করতে কাজ করছেন তারা। এছাড়া জামায়াতের প্রবল প্রভাবের কারণে বিএনপি সনাতন ধর্মের মানুষদের কাছে জনপ্রিয় রাজনৈতিক দলে পরিণত হতে পারেনি। তবে সবচেয়ে খারাপ লাগার বিষয় হলো, দুর্গাপূজার মতো সনাতন ধর্মের মানুষদের উৎসবে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম জিয়া এমনকি ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানও শুভেচ্ছা জানাননি। এতে চরম মনঃক্ষুণ্ণ হয়েছেন বিএনপির সনাতন ধর্মের নেতা-কর্মীরা। বিএনপির এমন বিরূপ আচরণে অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন খোদ গয়েশ্বর চন্দ্র রায়রা। বিএনপিকে সাম্প্রদায়িক মনোভাব দূর করে সকল ধর্ম ও মতের রাজনৈতিক দলকে সাথে নিয়ে চলার পরামর্শও দিয়েছেন তারা।

দুর্গাপূজায় দলের দুই প্রধান নেতার শুভেচ্ছা বাণী না দেয়ার বিষয়ে জানতে চাইলে বিএনপিত্যাগী এক নেতা পরিচয় গোপন রাখার শর্তে বলেন, বিষয়টি আসলে দুঃখজনক। আমার ধারণা, জামায়াত ও অন্যান্য সাম্প্রদায়িক দলের কাছে ভালো সাজতে ইচ্ছাকৃতভাবে দুর্গা পূজায় হিন্দুদের শুভেচ্ছা জানাননি বেগম জিয়া ও তারেক রহমান। সাম্প্রদায়িক মনোভাবের কারণে কিন্তু অন্যান্য ধর্মের মানুষ বিএনপিকে পছন্দ করে না। সংকীর্ণ মনের নেতারা এখন বিএনপিকে নেতৃত্ব দিচ্ছেন, আর বেগম জিয়া ও তারেক রহমানকে ভুলভাল বুঝিয়ে বিএনপিকে আরো জনবিচ্ছিন্ন করার চেষ্টা চলছে। তাই গয়েশ্বর চন্দ্র, নিতাই রায় কিংবা নিপুণ চৌধুরীর মনঃক্ষুণ্ন হওয়াটাই স্বাভাবিক। যতোদূর শুনেছি, বেগম জিয়া শুভেচ্ছা বার্তা না দেয়ায় চরম বিব্রতকর অবস্থায় পড়েছেন সনাতন ধর্মের নেতারা। সাধারণ নেতা-কর্মীদের কাছে তারা মুখ দেখাতে পারছেন বলেও জানতে পেরেছি।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি