শুক্রবার ২৭ নভেম্বর ২০২০



বিএনপির সিনিয়র নেতাদের সাথে বেয়াদবি করছেন তারেক!


বাংলা নিউজ ব্যাংক :
12.11.2020

নিউজ ডেস্ক: বিএনপির সিনিয়র নেতাদের সঙ্গে নিয়মিত বেয়াদবি করেন তারেক এ অভিযোগ এখন পুরনো হয়ে গেছে। নতুন খবর হলো তারেক ইদানিং নিজের মায়ের নির্দেশনা না মেনে দল চালাচ্ছেণ এবং রীতিমত খবরদারি ও তাচ্ছিল্যপূর্ণ আচরণ করছেন দলের চেয়ারপারসনের সাথে। সম্প্রতি দলের একাধিক সিনিয়র নেতার সঙ্গে কথা বলে এমনটাই জানা গেছে।

তারা জানান, সর্বশেষ অনুষ্ঠিত জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তারেকের বিরুদ্ধে ব্যাপক অনিয়ম, দুর্নীতি ও মনোনয়ন বাণিজ্যের অভিযোগ ওঠে। এছাড়া দীর্ঘদিন ধরে খালেদার অনুপস্থিতিতে বিভিন্ন বিতর্কিত ভূমিকার কারণে তারেকের ওপর আস্থা পাচ্ছেন না বিএনপির সিনিয়র নেতারা। সম্মান হারানোর ভয়ে তারেকের সব অত্যাচার তারা সহ্য করছেন।

এদিকে রাজপথে আন্দোলন করতে ব্যর্থ বিএনপির নেতৃত্ব নিয়ে দলের মধ্যে চলছে নানা জল্পনা-কল্পনা। ব্যাপক দুর্নীতির বোঝা মাথায় নিয়ে ২০০৯ সাল থেকে লন্ডনে পলাতক জীবনযাপন করছেন তারেক। পরপর তিন মেয়াদে ক্ষমতায় আসতে না পারাকে রাজনৈতিকভাবে দেউলিয়াত্বের বহিঃপ্রকাশ বলে মনে করছেন অনেকে।

দলীয় সূত্র মতে, দুর্নীতির মামলায় খালেদা জিয়া কারাগারে যাওয়ার পর থেকেই দলের দায়িত্ব বুঝে নেন তারেক। খালেদা জিয়ার অনুপস্থিতিতে দলের সব কার্যক্রমে তার ভূমিকায় সিনিয়র নেতারা বারবার হতাশ হয়েছেন। ব্যর্থ তারেকের একক নেতৃত্ব বর্তমানে কেউই মানতে পারছেন না। ফলে দলের মধ্যে নতুন এক সংকট তৈরি হয়েছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিএনপির সিনিয়র ও দায়িত্বশীল এক নেতা বলেন, বিএনপির মতো একটি রাজনৈতিক দলে একক নেতৃত্ব কখনো কাম্য নয়। তারেক রহমান দলের যথেষ্ট ক্ষতি করেছেন।

তিনি বলেন, বিএনপির মধ্যে গণতন্ত্রের চর্চা নেই। তারেক রহমানের একক কর্তৃত্ব থাকায় ও সিনিয়র নেতাদের পরামর্শ না নেয়ায় দলের মধ্যে একটা বিভাজনের সৃষ্টি হয়েছে। তারেকের ব্যবহারে সিনিয়র নেতারা নারাজ। তিনি সিনিয়র নেতাদের সঙ্গে চাকর-বাকরের মতো আচরণ করেন ও সব সময় ধমকের সুরে কথা বলেন।

এ বিষয়ে রাজনৈতিক বুদ্ধিজীবী ও বিশ্লেষকেরা বলেন, তারেক রহমানের বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগগুলো তিনি খণ্ডন করতে পারেননি। বিএনপিকে অখণ্ড রাখতে হলে জিয়া পরিবারের বাইরে নতুন করে চিন্তা-ভাবনা করতে হবে।

জানতে চাইলে রাজনৈতিক বিশ্লেষক অধ্যাপক ড. ইমতিয়াজ আহমেদ বলেন, দলে পরিবারতন্ত্র চলতে থাকলে এক সময় বিএনপির সিনিয়র নেতারা রাজনীতির প্রতি আগ্রহ হারিয়ে ফেলবেন। সে পথেই এগোচ্ছে বিএনপি।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি