সোমবার ১ মার্চ ২০২১
  • প্রচ্ছদ » Lead 1 » তারেকের ছত্রছায়ায় রিজভীর ‘স্বৈরাচারী আচরণ’, ক্ষুব্ধ খালেদা!



তারেকের ছত্রছায়ায় রিজভীর ‘স্বৈরাচারী আচরণ’, ক্ষুব্ধ খালেদা!


বাংলা নিউজ ব্যাংক :
15.02.2021

যতই সময় যাচ্ছে, ততই যেন লন্ডনে পলাতক ফেরারি আসামি ও বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের ছত্রছায়ায় থেকে বেপরোয়া হয়ে উঠছেন দলের সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। অবস্থা এখন এমন পর্যায়ে গিয়ে পৌঁছেছে যে, তিনি দলীয় নেত্রী খালেদা জিয়ার কথাও শুনছেন না। এ নিয়ে বিএনপিতে চাপা উত্তেজনা বিরাজ করছে।

দায়িত্বশীল সূত্রের তথ্যমতে, বিএনপির আসন্ন জাতীয় কাউন্সিলে দলের বর্তমান মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলামকে হটিয়ে তারেকের ‘আস্থাভাজন’ হিসেবে মহাসচিবের পদ বাগাতে যাচ্ছেন চলতি দায়িত্বে থাকা সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, এমন খবর দলের অভ্যন্তরে চাউর হয়েছে। এর প্রেক্ষিতে রিজভীর আচরণ বদলে যেতে শুরু করেছে। সাম্প্রতিককালের তার বেশকিছু কর্মকাণ্ডে বিরক্ত ও বিব্রত অবস্থায় পড়েছেন বিএনপি নেত্রী বেগম খালেদা জিয়াসহ দলটির অন্যান্য জ্যেষ্ঠ নেতারা।

এখানেই শেষ নয়। বিষয়টি নিয়ে একাধিকবার রিজভীকে বলা হলেও সে কথার ভ্রুক্ষেপ না করে বরং বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে তিনি এগিয়ে চলেছেন আপনমনে। করছেন
যেকোনো ইস্যুতে খেয়াল-খুশিমত হুট করে সংবাদ সম্মেলন আর প্রশাসনের চোখ ফাঁকি দিয়ে ঝটিকা মিছিল।

বাংলা নিউজ ব্যাংকের সঙ্গে কথোপকথনে দলের একাধিক নেতাকর্মী জানান, কোনভাবেই রিজভীকে নিয়ন্ত্রণ করতে পারছেন না ম্যাডাম (খালেদা)। তিনি তার কোন কথাই শুনছেন না। উপরন্তু ছক কষে ষড়যন্ত্র করে এবং বিএনপির বর্তমান নিয়ন্ত্রক তারেকের কাছে কান ভাঙানি দিয়ে মির্জা ফখরুলের বিরুদ্ধে নানা মিথ্যা খবর পৌঁছাচ্ছেন। বলছেন, ফখরুল অযোগ্য। দলে তার কোন উল্লেখযোগ্য ভূমিকা নেই। তার কথায় আশ্বস্ত হয়ে তারেকও তাকে ‘আহ্লাদ করে’ পরবর্তী মহাসচিব বানানোর প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। এসব বিষয় নিয়ে দারুণ ক্ষুব্ধ খালেদা।

নেতাকর্মীরা আরও বলছেন, রিজভীর স্বৈরাচারী কর্মকাণ্ড দেখে দলীয় রাজনীতিতে দিন দিন নিরুৎসাহিত হয়ে পড়ছেন অন্যান্য নেতাকর্মীরা। এমনকি অনেকে নিজেকে দল থেকে গুটিয়ে নেয়ার মত সিদ্ধান্তেও পৌঁছেছেন। যদি রিজভী তার অনৈতিক কর্মকাণ্ড থেকে নিজেকে সরিয়ে না নেন, তবে অচিরেই ‘জাদুঘরের রাজনৈতিক দল’এ পরিণত হবে বিএনপি।

এ বিষয়ে রাজনৈতিক বিজ্ঞজনদের অভিমত, রিজভীর ‌‘কাউকে তোয়াক্কা’ না করার প্রবণতাই বলে দিচ্ছে বিএনপির ভবিষ্যৎ কতোটা অন্ধকার। তার মাধ্যমেই দলীয় অনৈক্য দাবানলের মতো ছড়িয়ে পড়ছে। এ থেকে সহজেই বিএনপির আসল চারিত্রিক বৈশিষ্ট্যের প্রমাণ মেলে। এখন দেখার বিষয়, কোথায় গিয়ে রিজভীর এই স্বৈরাচারী যাত্রার পরিসমাপ্তি ঘটে!



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি