রবিবার ৭ মার্চ ২০২১
  • প্রচ্ছদ » Lead 2 » জিয়াউর রহমানের পক্ষে আন্দোলন দৃঢ় করতে না পারায় বিএনপি ছাড়ছেন ত্যাগীরা



জিয়াউর রহমানের পক্ষে আন্দোলন দৃঢ় করতে না পারায় বিএনপি ছাড়ছেন ত্যাগীরা


বাংলা নিউজ ব্যাংক :
17.02.2021

নিউজ ডেস্ক : বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের পক্ষ হতে স্বাধীনতার ঘোষণা দেয়া ছাড়া মুক্তিযুদ্ধে জিয়াউর রহমানের কোনো অবদান ছিলো না, এই মর্মে জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা কাউন্সিল জিয়াউর রহমানের খেতাব বাতিল করতে চাইলে বিএনপি তার প্রতিবাদ করলেও বরাবরের মতো কোনো শক্ত আন্দোলন গড়ে তুলতে পারেনি। এর কারণ হিসেবে বিএনপির এক পক্ষ তারেক রহমান ও অপর পক্ষ দলীয় হাইকমান্ডকে দুষছেন। এই কারণে দেখা যাচ্ছে দল থেকে বেরিয়ে যেতে চাইছেন বিএনপির ছোট বড় সহস্রাধিক নেতা।

জানা গেছে, দীর্ঘদিন ধরেই সিনিয়র নেতারা তারেক রহমানের নেতৃত্ব থেকে দলকে বের করতে চাইছিলেন। এ কারণে বিভিন্ন সময়ে তারেককে নিজ থেকে নেতৃত্ব ছেড়ে দেওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন। কথায় কাজ না হওয়ায় অনেকটা রাগ করেই সিনিয়র নেতারা পদত্যাগ করছেন বলেও জানা গেছে।

এ প্রসঙ্গে পূর্বে পদত্যাগ করা বিএনপির সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান এম মোরশেদ খান বলেন, তারেক রহমান নেতৃত্ব মেনে নিতে না পারায় পদত্যাগ করেছি। প্রকৃতপক্ষে দলের প্রতি অনুগত নন তিনি। একবার বলেন, দুর্বার আন্দোলন গড়ে তোলা হবে। আবার বলেন, কোনো আন্দোলনের প্রয়োজন নেই। তার প্রতিটি সিদ্ধান্তই দলকে বিপদে ফেলছে। আজ বিএনপির এমন অবস্থার জন্য একমাত্র তারেক রহমানই দায়ী। আর এ কথা তাকে বোঝালেই কেন্দ্রীয় কমিটির অন্যান্যদের ওপর তিনি রাগ করতেন। তার এমন একগুঁয়েমি সহ্য করতে না পেরেই পদত্যাগ করেছি।

তিনি আরো বলেন, আমার পরপরই অসংখ্য নেতাই পদত্যাগ করেছেন। আমরা যারা পদত্যাগ করেছি, তারা অবশ্যই বিএনপিকে ভালোবেসেই পদত্যাগ করেছি। সঙ্গে এও বলছি, তারেক রহমান যদি তার একগুঁয়েমি সিদ্ধান্ত থেকে বেরিয়ে পদত্যাগ করেন, তবে অবশ্যই বিএনপির কল্যাণে আমরা পুনরায় বিএনপিতে যোগ দেবো।

এদিকে জানা যায়, তারেক রহমানের পদত্যাগ চেয়ে গোপনে দাবি উঠেছে দলের অভ্যন্তরে। এর মূল কারণ হলো, দল নিয়ে তারেকের বিভিন্ন একগুঁয়ে সিদ্ধান্ত। অনেকেই মনে করছেন, তারেক রহমান চান না খালেদা জিয়া মুক্তি পাক। যদি খালেদা জিয়াকে মুক্ত করার ইচ্ছাই থাকতো, তবে অনেক আগেই আন্দোলন গড়ে তোলা যেত।

পদত্যাগী নেতা মাহবুবুর রহমান বলেন, তারেক রহমান দলে থাকলে বিএনপি করার কোনো মানেই হয় না। ২০০৭ সালে বিএনপির বিপর্যয়ের জন্য যিনি দায়ী তার নেতৃত্বে আর যাই হোক বিএনপিকে এগিয়ে নেওয়া যাবে না। তার নেতৃত্বে বিএনপি করা আর আত্মহত্যা করা সমান কথা। তিনি নিজেরটা ছাড়া আর কিছুই বোঝেন না। নিজের মায়ের জন্যেই যার কোনো দরদ নেই, দল এবং দলের নেতা-কর্মীদের জন্য তার চিন্তা আসবে কেমন করে?



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি