শুক্রবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২১



এতোদিন ‘ভুল দরজায়’ কড়া নেড়েছেন খালেদা!


বাংলা নিউজ ব্যাংক :
20.02.2021

চোর পালালে যেমন মানুষের বুদ্ধি বাড়ে, ঠিক তেমন অবস্থা বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার। এতদিন তিনি জ্যেষ্ঠপুত্র তারেক রহমানের উপর ভরসা করে দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের দায়িত্ব দিয়েছিলেন। কিন্তু তার সেই ভুল ভাঙে দুর্নীতি মামলায় কারান্তরীণ থাকা অবস্থায়। তার মুক্তির জন্য তারেক কিছুই করেনি। এমনকি দলীয় নেতাকর্মীদেরও দৃশ্যমান কোন নির্দেশনা দেননি। উপরন্তু খালেদার মুক্তির নাম করে বিভিন্ন মহল থেকে মোটা অংকের অর্থ আদায় করে তা তিনি নিজে আত্মসাৎ করেন এবং গড়ে তোলেন নিজের এক আলাদা সাম্রাজ্য। যে সাম্রাজ্যের মূল স্টামিনা কুক্ষিগত করা দলীয় শক্তি। বিশিষ্টজনদের মতে, খালেদা এতদিন ভুল দরজায় কড়া নেড়ে নিজেই নিজের পায়ে কুড়াল মেরেছেন। যার কারণে, আজ বিএনপি ও তার এই পরিণতি।

দায়িত্বশীল সূত্রের তথ্যমতে, ভুল রাজনীতির চর্চাই কাল হয়েছে বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়ার। সঙ্গে রয়েছে নিজের করা একাধিক ভুল ও দলীয় নেতাকর্মীদের চরম দায়িত্বহীনতা। এসবের সুযোগ নিয়ে নিজের আখের গুছিয়েছেন লন্ডনে পলাতক ফেরারি আসামি ও বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান। তার এই যাত্রা আরও সহজ হয়, খালেদা কারাগারে গেলে। তখন সব নিজের মত করে গুছিয়ে নেন তিনি। লক্ষ্য পূরণে হয়ে ওঠেন বেপরোয়া। কমিটি-পদ-মনোনয়ন সবকিছুতেই শুরু করেন বাণিজ্য। টাকার বিনিময়ে অযোগ্যকে ‘যোগ্য’ বানিয়ে দুর্দিনে মাঠে থাকা ত্যাগী নেতাকর্মীদের তিনি করেছেন অবজ্ঞা-অবমূল্যায়ন।

সরকারের মহানুভবতায় জেল থেকে মুক্তির পর এসব বিষয়ে অবগত হন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। এরপর নিজেই নিজে আফসোস করেন। চেষ্টা করেন এই সংকট থেকে উত্তরণের। কিন্তু তারেক রহমান এমনভাবে নেতাকর্মীদের ম্যানেজ করেছেন, তারা কেউই এখন নেত্রীর কথা না শুনে বরং এড়িয়ে যাচ্ছেন।

সূত্রটি আরো জানায়, এক জীবনে খালেদা অনেক ভুল করেছে। তার মধ্যে-জাতির পিতাকে অসম্মান করা, ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ বাতিল না করা, বঙ্গবন্ধুর হত্যাকারীদের মদদ দেয়া, স্বাধীনতা বিরোধীদের সঙ্গে আঁতাত করে তাদের গাড়িতে জাতীয় পতাকা উত্তোলনের সুযোগ দেয়া, নিজের দুই ছেলের করা অপকর্মের ওপর অন্ধ বিশ্বাস রাখা, আত্মীয়-স্বজনের দুর্নীতির সঙ্গে একাত্মতা ঘোষণা করে নীরব থাকা, রাজনৈতিক শিষ্টাচার অনুসরণ না করে অসৌজন্যতা প্রদর্শন, বিদেশিদের প্রতি নির্ভরশীল হওয়া, কতিপয় দলীয় নেতার ওপর অতিমাত্রায় ভরসা করা ও সর্বশেষ ২১ আগস্টের গ্রেনেড হামলার ঘটনায় নীরব সমর্থন দেয়া উল্লেখযোগ্য। এসবের দায় তিনি কোনভাবেই এড়াতে পারেন না।

বাংলা নিউজ ব্যাংকের সঙ্গে আলাপনে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিএনপির স্থায়ী কমিটির এক সদস্য বলেন, এখন আর মাথা চাপড়িয়ে কী লাভ! জীবনে অগণিত পাপ ও ভুল করেছেন তিনি। তাই সেসবেরই মাশুল দিচ্ছেন এখন তিনি। চাইলেও আর তিনি সবকিছু ঠিক করতে পারবেন না। অনেকটা দেরি হয়ে গেছে।

এ বিষয়ে দেশের রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন, তারেকের উপর ভরসা করে এতদিন ভুল দরজাতেই কড়া নেড়েছেন খালেদা জিয়া। এ কারণে ‘পাপ বাপকে ছাড়ে না’ প্রবাদ বাক্যটি মিথ্যে হয়ে যায়নি। এখন তিনি নিজেই নিজের কর্মের ফল ভোগ করছেন। আর এটাই তার প্রাপ্য ছিলো।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি