সোমবার ১ মার্চ ২০২১



স্বাধীনতা বিরোধী চিন্তা আদর্শ লালন করে বিএনপি


বাংলা নিউজ ব্যাংক :
21.02.2021

নিউজ ডেস্ক: স্বাধীনতা বিরোধী চিন্তা আদর্শ ও স্বপ্ন বাস্তবায়নের জন্যই গঠিত হয়েছিল বিএনপি। পঁচাত্তরের ১৫ আগস্টের ঘটনাটা ছিলো বাংলাদেশের স্বাধীনতা বিরোধী এবং প্রতিক্রিয়াশীল চক্রের একটি ষড়যন্ত্র। এই ষড়যন্ত্র বাস্তবায়নে স্বাধীনতা বিরোধীদের মদদ ছিল অনস্বীকার্য। তাদের মূল লক্ষ্য ছিলো একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধের পরাজয়ের প্রতিশোধ গ্রহণ করা। এই প্রতিশোধ গ্রহণ করার জন্য তারা শুধু বঙ্গবন্ধুকেই হত্যা করেনি, তারা বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে হত্যা করেছিলো এবং স্বাধীনতা বিরোধী ভাব-ধারা বাংলাদেশে পুনঃপ্রতিষ্ঠিত করেছিলো। এই পুনঃপ্রতিষ্ঠার জন্য তাদের একটি রাজনৈতিক দলের দরকার ছিলো।

এই বাস্তবতায় একটি বিভ্রান্তমূলক আদর্শের খিচুড়ি রাজনৈতিক দল জন্ম দেয়ার উদ্যোগ নেয়া হয়। এই রকম একটি খিচুড়ি রাজনৈতিক দল হলো বিএনপি। আর এজন্যই বিএনপিতে শুরু থেকেই দেখা গিয়েছিলো স্বাধীনতা বিরোধীদের প্রাধান্য।

বিএনপি যখন গঠিত হয় তখন শীর্ষ নেতৃত্বের মধ্যে প্রায় ৭০ ভাগ ছিলো রাজাকার ও স্বাধীনতা বিরোধী। শাহ আজিজ, মাজিদুল হক, মোস্তাফিজুর রহমানের মতো ব্যক্তিরা শুরুতে বিএনপির নীতিনির্ধারক হয়েছিলেন, যারা ছিলেন স্বাধীনতা বিরোধী।

আর এই কারণেই শুরু থেকে বিএনপিতে স্বাধীনতা বিরোধী ভাব-ধারা এবং সেই মোড়কে বাংলাদেশ বাস্তবায়নের মিশনে ছিলো। এ কারণেই তারা পঁচাত্তরের ১৫ আগস্টকে জাতীয় শোক দিবস হিসেবে পালন করেনি। এই কারণেই তারা পঁচাত্তরের খুনিদের বিচারের প্রক্রিয়া করেনি। বরং খুনিদের লোভনীয় চাকরি দিয়ে বিদেশে প্রেরণ করেছে। এ কারণেই তারা ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ বাতিল করেনি। এ কারণেই তারা মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বিরোধী পথে হেঁটেছিলো।

কিন্তু বাংলাদেশে ১৯৮১ সালের পর শেখ হাসিনা ধাপে ধাপে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা প্রতিষ্ঠা করার উদ্যোগ নেন। চেতনা প্রতিষ্ঠা করার ক্ষেত্রে তিনি সবচেয়ে বড় যে কাজটি করেছিলেন তা হলো- জনগণের জাগরণ। বিশেষ করে নতুন প্রজন্মের কাছে মুক্তিযুদ্ধের বার্তা পৌঁছে দেয়া।

আমাদের স্বাধীনতা প্রকৃত ইতিহাস তুলে ধরার ক্ষেত্রে শেখ হাসিনা একটি নিরলস দীর্ঘ কর্মপ্রয়াস গ্রহণ করেন। তার বাস্তবতায় বাংলাদেশে যে নতুন প্রজন্ম তৈরি হয়েছে, তারা স্বাধীনতা বিরোধীদের ঘৃণা করে। মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাস করে এবং বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে কোনো রকম বিতর্ককে বরদাশত করে না। আর এই বাস্তবতায় যে বিএনপি এক সময় তারুণ্য নির্ভর দল ছিলো, সেই বিএনপি তরুণদের কাছ থেকে বিচ্যুত হতে থাকে। সেইসঙ্গে তরুণদের কাছ থেকে প্রত্যাখ্যাত হতে থাকে।

রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা মনে করছেন, বিএনপিতে স্বাধীনতা বিরোধীদের প্রধান হোতা তারেক জিয়া। এখন বিএনপির রাজনীতি পরিচালিত হয় তার নির্দেশেই। কাজেই বিএনপিতে স্বাধীনতা বিরোধীরা কোণঠাসা হয়েছেন এমনটি ভাবার কোনো কারণ নেই।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি