বুধবার ২১ এপ্রিল ২০২১
  • প্রচ্ছদ » Lead 3 » নুর-ইশরাকে চরম বিপদে বিএনপির জ্যেষ্ঠ নেতারা



নুর-ইশরাকে চরম বিপদে বিএনপির জ্যেষ্ঠ নেতারা


বাংলা নিউজ ব্যাংক :
25.02.2021

নিউজ ডেস্ক: কোটা সংস্কার আন্দোলনের মাধ্যমে পরিচিতি পাওয়া ডাকসুর সাবেক ভিপি নুরুল হক নুর এবং প্রয়াত বিএনপি নেতা সাদেক হোসেন খোকার ছেলে ইশরাক হোসেনকে নিয়ে বিপাকে পড়েছেন বিএনপির জ্যেষ্ঠ নেতারা। নুর-ইশরাক প্রভাব বিস্তার করায় কোণঠাসা হয়ে পড়ছেন দলের নেতারা।

সূত্র বলছে, নুরুল হক নুরের দল বিএনপি থেকে আলাদা। তবে তিনি বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান কর্তৃক পরিচালিত হন। ডাকসুর সাবেক ভিপি নুরকে বিএনপির নীতিনির্ধারণী সিদ্ধান্ত নিতে দেখা গেছে। এ কারণে বিএনপির মির্জা ফখরুলপন্থী নেতারা দলে কোনো কথা বলার সুযোগ পান না। নতুন করে ইশরাক হোসেনের আধিপত্য মির্জা ফখরুলপন্থী নেতাদের বেশ পীড়া দিচ্ছে।

এ প্রসঙ্গে বিএনপির স্থায়ী কমিটির এক সদস্য বলেন, ভিপি নুর ও ইশরাকের কার্যক্রমকে স্বাগত জানাই। কিন্তু বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলামের অবদান অনস্বীকার্য। তবে ইশরাক ও ভিপি নুর আসার পর থেকে তার প্রাধান্য কমে যাচ্ছে।

তিনি আরো বলেন, বিএনপি নেতাদের মনে রাখতে হবে যে, কাউকে দলে ভেড়াতে গিয়ে দলের গুরুত্বপূর্ণ নেতারা যেন হাত ছাড়া না হয়ে যান।

এদিকে ভিপি নুর ও ইশরাকের নেতৃত্বকে অস্বীকার করে এরই মধ্যে মির্জা ফখরুলপন্থী নেতারা নয়াপল্টন কার্যালয়ের সামনে আন্দোলন করেছেন বলে জানা গেছে।

মির্জা ফখরুলপন্থী নেতাদের মতে, দলের হয়ে সর্বোচ্চ পর্যায়ের ত্যাগ স্বীকার করেছেন মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। বর্তমানে তার চেয়ে বেশি, ইশরাক ও নুরকে প্রাধান্য দিচ্ছে বিএনপির একটি অংশ, যা মেনে নেয়া যায় না। এমন চলতে থাকলে বিএনপির রাজনীতিতে ভাঙন সৃষ্টি হবে।

এ ব্যাপারে বিএনপির এক যুগ্ম মহাসচিব বলেন, রাজনীতিতে কারো পদ স্থায়ী নয়। দলের প্রয়োজনে অনেক সময় ছোট নেতাদের মূল্যায়ন করতে হয়। তবে ছোটদের ওপর নির্ভরতা দলকে বিপদে ফেলতে পারে। নুর বেশ কিছু কর্মকাণ্ডের জন্য বিতর্কিত। আর ইশরাক যেকোনো সময় নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেলেন। সবার আগে নুর ও ইশরাককে আত্মনিয়ন্ত্রণ করা শিখতে হবে।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি