বৃহস্পতিবার ১৫ এপ্রিল ২০২১



লন্ডন নেতৃত্ব চায় না বিএনপির কর্মীরা!


বাংলা নিউজ ব্যাংক :
25.02.2021

নিউজ ডেস্ক: বিএনপিকে রাজনৈতিকভবে ঘুরে দাঁড়াতে হলে দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান ও তার অনুসারীদের প্রভাব মুক্ত করতে হবে বলে মনে করেন দলটির তৃণমূল নেতাকর্মীরা। লন্ডন থেকে তারেকের নেতৃত্বে বিএনপির রাজনীতি পরিচালিত হোক সেটাও চান না তারা। দলে একক নেতৃত্বের পরিবর্তে ক্ষমতার ভারসাম্য বজায় রাখার দাবি তাদের।

তারা বলেন, বিএনপিতে তারেক রহমানের একক প্রভাবের কারণে বিএনপির অধিকাংশ সিনিয়র নেতা আজ নিষ্ক্রিয় হয়ে আছেন। তারা নিজেদের কোন নেতৃত্ব প্রকাশ করতে পারছেন না। পদ-পদবি হারানোর ভয়ে নিজেরা উদ্যোগী হয়ে কোনো কর্মসূচি গ্রহণ করেন না। ফলে বিএনপি দিন দিন কোণঠাসা হয়ে পড়েছে। রাজনৈতিক দল হিসেবে অস্তিত্ব সংকটে রয়েছে। বিএনপিতে সিনিয়র নেতারা এখন জি হুজুর, জি হুজুর নেতৃত্বে ব্যস্ত।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন তৃণমূল নেতা বলেন, বেগম জিয়া কারাগারে যাওয়ার পর থেকেই বিএনপির নেতৃত্ব চলে যায় একজনের হাতে। আগে বেগম খালেদা জিয়া দল চালানোর সময় রাজনৈতিক বিশ্লেষক ও বুদ্ধিজীবীদের পরামর্শ গ্রহণ করতেন। কিন্তু দলের ক্ষমতা যখন তারেক রহমানের হাতে চলে গেছে তখন থেকেই এ দলে বুদ্ধিজীবীরাও নিষ্ক্রিয়। তারা কোনো পরামর্শ দেন না, কেননা তারা তো খালেদা জিয়ার বুদ্ধিজীবী ছিলেন। তারা তার পুত্র তারেক রহমান সম্পর্কে অনেক বিষয়ে সতর্ক করতেন। সেই তারেক রহমানের হাতে যখন দলের ক্ষমতা তখন তারা কীভাবে বুদ্ধি- পরামর্শ দিয়ে সহযোগিতা করবেন? আর তারেক রহমান মনে করেন, বিএনপিতে এসব বুদ্ধিজীবীর প্রয়োজন নেই।

জানতে চাইলে এ বিষয়ে স্থায়ী কমিটির সদস্য ও নীতিনির্ধারণী পর্যায়ের একজন নেতা বলেন, বিএনপির নেতৃত্বে ভারসাম্য দরকার।

তিনি বলেন, বিএনপিতে এখন অঘোষিত স্বৈরতন্ত্র চলছে। এখানে একজনের ইচ্ছায় সবকিছু হচ্ছে। তিনি যেটা করছেন সেটা ভুল হলেও বাস্তবায়ন করতে বাধ্য হচ্ছেন সিনিয়র নেতারা। তারা জিম্মি হয়ে আছেন। একদিকে, তৃণমূল নেতাদের চাপ অন্যদিকে দলে অবমূল্যায়ন। ফলে নেতারা উভয় সংকটের মধ্যে আছেন। তাই রাজনৈতিকভাবে ঘুরে দাঁড়াতে হলে এ দলের ক্ষমতায়নে ভারসাম্য দরকার।

এ বিষয়ে বিএনপিপন্থী বুদ্ধিজীবী ও গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, বিএনপির মধ্যে গণতন্ত্র নেই। নেই ক্ষমতার ভারসাম্য।

তিনি বলেন, মওদুদ, খন্দকার মোশাররফের মতো নেতারা তো দলের ক্রান্তিকালে দায়িত্ব নিতে পারেন। তারা কেন সেটা করছেন না। দলের মহাসচিব এখন একজন পুতুল মহাসচিবে পরিণত হয়েছেন। তিনি যদি দলের মধ্যে নির্বাচিত মহাসচিব হতেন, তাহলে তিনি তার দায়িত্ব সঠিকভাবে পালন করতে পারতেন। তিনি নির্বাচিত নয়, কারো দয়ায় মহাসচিব হয়েছেন। বিএনপির রাজনীতিতে এটার পরিবর্তন করতে হবে।

তিনি আরো বলেন, লন্ডনে বসে দেশের চিত্র বুঝা যাবে না। সেখানে বসে দল চালানো সম্ভব নয়। ছোট ছোট করে চুল কাটলেই জিয়াউর রহমান হওয়া যায় না। দলের সিনিয়র ও ত্যাগী নেতাদের মূল্যায়ন করতে হবে। তাদের হাতে ক্ষমতা তুলে দিতে হবে।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি