বৃহস্পতিবার ১৫ এপ্রিল ২০২১
  • প্রচ্ছদ » Lead 1 » সরকারবিরোধী ষড়যন্ত্র ‘বিএনপির গাত্রদাহ’র ফসল!



সরকারবিরোধী ষড়যন্ত্র ‘বিএনপির গাত্রদাহ’র ফসল!


বাংলা নিউজ ব্যাংক :
01.03.2021

ইতিহাস বরাবরই সাক্ষ্য দেয়। অতীতের দিকে তাকালে তাই সহজেই স্পষ্ট হওয়া যায় যে, নিজেদের স্বার্থে সন্ত্রাস-দুর্নীতি-চাঁদাবাজি-লুটতরাজ-জঙ্গিবাদের মতো এহেন কোন কাজ নেই, যা বিএনপি করেনি। রন্ধ্রে রন্ধ্রে তাদের স্বার্থপরতা। তাইতো রাজনৈতিক উদ্দেশ্য হাসিলে জ্যান্ত মানুষকেও পুড়িয়ে মারতে পিছপা হয়নি তারা। বর্তমানে দলের সাংগঠনিক কোন তৎপরতা না থাকায় দলটির নেতৃবৃন্দ ‘নেই কাজ তো খৈ ভাজ’ নীতিতে চলছেন। আর বসে বসে সরকারবিরোধী ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হচ্ছেন।

বিশ্বস্ত সূত্রের তথ্যমতে, রাষ্ট্রীয় ক্ষমতা দখল করতে জ্বালাও-পোড়াও আন্দোলনসহ নানা কূটকৌশল অবলম্বন করেছে বিএনপি। করেছে ২০১৩ সালে শাপলা চত্বরকে কেন্দ্র করে সরকার হটানোর ষড়যন্ত্রও। কিন্তু কোন কিছুতেই কিচ্ছু হয়নি। বরং ‘থলের বিড়াল’ অর্থাৎ প্রকৃত সত্য জনগণের সামনে উন্মোচিত হওয়ায় তারা জনআস্থা অর্জনের বিপরীতে বারবার হয়েছেন প্রত্যাখ্যাত। যার ফলাফল বিগত অনুষ্ঠিত সবগুলো নির্বাচনেই প্রকাশ্য হয়েছে। প্রতিটি নির্বাচনে ভরাডুবি হয়েছে বিএনপি নেতৃবৃন্দের। শুধু তাই নয়, তারেক রহমানের অর্থ ও মনোনয়ন বাণিজ্যের ফলে বিএনপিতে ঠাঁই মিলেছে হাইব্রিড-বহিরাগতদের। ফলে সহজেই ত্যাগী ও দীর্ঘদিনের নেতার পরিবর্তে ‘টাকার জোরে’ মূল্যায়িত হচ্ছেন তারা। যার কারণে, আর যাই হোক দলীয় রাজনীতিটা হচ্ছে না। যেটা হচ্ছে সেটা হলো, ভাই পন্থীদের দৌরাত্ম বাড়ছে।

এমতাবস্থাতেও সরকার পতনের রোগে আক্রান্ত বিএনপি। নিজেদের ‘অলস মস্তিষ্ক’ নিয়ে দলটির নেতৃবৃন্দ নিয়েছেন ৫০০ মিলিয়ন ডলারের প্রজেক্ট। যে প্রজেক্টের কাজ হচ্ছে তিল থেকে তাল না হলেও সেটিকে রং মাখিয়ে রাজনৈতিক রূপ দিয়ে জনগণকে সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে বিভ্রান্ত করা এবং সফল সরকার ব্যবস্থাকে দেশ ও বহির্বিশ্বে বিতর্কিত করা। আর এ কাজে তারা মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে তাসনিম খলিল, পিনাকী ভট্টাচার্য, ডেভিড বার্গম্যানদের মতো ‘পেইড এজেন্ট’ নিয়োগ দিয়েছেন। যাদের কাজই হল পান থেকে চুন খসার আগেই সরকারকে দোষারোপ করা। নতুন নতুন ষড়যন্ত্র করে সরকারকে বিব্রত করা।

সূত্রটি আরো জানায়, দেশ সরকারপ্রধানের নেতৃত্বে অদম্য গতিতে প্রশংসনীয়ভাবে এগিয়ে চলেছে। পৌঁছে গেছে উন্নয়নশীল দেশের কাতারেও। শুধু তাই নয়, অর্থনৈতিক ও সামাজিক নানা সূচকেও এসেছে ঈর্ষণীয় অগ্রগতি। যা অনেক দেশের জন্য উদাহরণ। পাশাপাশি করোনা মোকাবিলাতেও বাংলাদেশ অর্জন করেছে অভূতপূর্ব সাফল্য। এসব কর্মতৎপরতায় সরকারের প্রতি মানুষের জনআস্থা বেড়েছে বহুগুণ। পক্ষান্তরে গাত্রদাহ শুরু হয়েছে দেশবিরোধী বিএনপি-জামায়াত চক্রের। তাই পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী তারা আন্দোলনের ইস্যু না পেয়ে সরকারের বিরুদ্ধে একের পর এক ষড়যন্ত্রে লিপ্ত।

কিন্তু তাদের এই অসৎ উদ্দেশ্য সফল হবে না উল্লেখ করে দেশের রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন, এ পর্যন্ত বিএনপির প্রত্যেকটি অপকৌশলকে সুনিপুণভাবে ব্যর্থ করে দিয়েছে দেশের জনগণ। এ কারণে ব্যর্থ-হতাশাগ্রস্ত দলটি আন্দোলনের কোনো ইস্যু খুঁজে না পেয়ে এখন সরকারের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়েছে। কিন্তু এবারও তারা ব্যর্থ বৈ সফল হবে না। তাদের সব ষড়যন্ত্র সরকারের পাশাপাশি দেশের সচেতন জনতা রুখে দেবে। প্রমাণ করে দেবে এতিমের অর্থ আত্মসাৎ করা দলের নেতৃত্ব কিংবা তাদের কোন কথাতেই কর্ণপাত করে না দেশবাসী।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি