রবিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১
  • প্রচ্ছদ » Lead 3 » তারেক রহমান ও রিজভীর পদত্যাগ চাওয়ায় বিএনপির ১৪ নেতা বহিষ্কার!



তারেক রহমান ও রিজভীর পদত্যাগ চাওয়ায় বিএনপির ১৪ নেতা বহিষ্কার!


বাংলা নিউজ ব্যাংক :
10.03.2021

নিউজ ডেস্ক : বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান ও সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভীর পদত্যাগ চাওয়ার কারণে গত এক মাস ২২ দিনে ১৪ জন নেতাকে বহিষ্কার করেছে বিএনপি। বহিষ্কারের পর এই নেতাদের আত্মপক্ষ সমর্থনে কোনো ধরনের ব্যাখ্যা দেয়ারও সুযোগ দেয়া হয়নি। এমনকি বহিষ্কারের কোনো সুনির্দিষ্ট ব্যাখ্যাও দেয়নি দলটি।

তবে বিএনপির বিভিন্ন দায়িত্বশীল সূত্র বলছে, মূলত তারেক রহমান ও রুহুল কবির রিজভীর পদত্যাগ চাওয়ার কারণে বহিষ্কার করা হয়েছে ১৪ জন বিএনপি নেতাকে। নেতৃত্ব পরিবর্তনের দাবি তোলায় কথিত শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগ এনে এসব নেতাদের বহিষ্কার করা হয়েছে। এদিকে পরিবর্তন চাওয়া নেতাদের যৌক্তিক দাবিকে উসকানিমূলক বলে চালিয়ে দিচ্ছে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্যরা। তবে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদ বলছেন ভিন্ন কথা।

মওদুদ আহমেদ বলেন, ইদানীং কিছু নেতা বিএনপির নেতৃত্বে পরিবর্তন চাচ্ছেন। তারা চাইছেন না বিএনপির নেতৃত্বে তারেক রহমান এবং রুহুল কবির রিজভী থাকুক। তবে এই অভিযোগে কিন্তু কাউকে বহিষ্কার করা হয়নি। যে ১৪ জন নেতাকে বহিষ্কার করা হয়েছে তারা সবাই দলের শৃঙ্খলা ভেঙেছেন। আর কেউ যদি দলের সিনিয়র ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান এবং দলের যুগ্ম মহাসচিবের পরিবর্তন চায়, সে কখনোই বিএনপির সমর্থক হতে পারে না। এটাও মাথায় রাখতে হবে।

উল্লেখ্য, সোমবার ৮ মার্চ গণমাধ্যমে পাঠানো বিএনপির সহ-দপ্তর সম্পাদক বেলাল আহমেদ স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিবৃতিতে জানানো হয়, দলীয় শৃঙ্খলা পরিপন্থী কাজে লিপ্ত থাকার সুনির্দিষ্ট অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরাম কেন্দ্রীয় আহ্বায়ক কমিটির সাবেক সদস্য মির্জা আল মাহমুদকে বিএনপির প্রাথমিক সদস্য পদসহ সকল পর্যায়ের পদ থেকে বহিষ্কার করছে।

বহিষ্কারের বিষয়ে বাংলা নিউজ ব্যাংকের সঙ্গে কথা হয় মির্জা আল মাহমুদের সঙ্গে। তিনি বলেন, গণতন্ত্র চাই। এটাই আমার অপরাধ। অন্য কোনো অপরাধ নেই। আর আমাকে বহিষ্কারের কোনো ব্যাখ্যা দেওয়ারও সুযোগ দেয়া হয়নি। এরপরও আমি স্বতন্ত্র থেকে সুপ্রিমকোর্ট আইনজীবী সমিতির নির্বাচনে সাধারণ সম্পাদক পদে ভোট করবো।

গত ১১ ফেব্রুয়ারি একই অভিযোগে সাতক্ষীরা জেলা বিএনপির সাবেক সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক কামরুল ইসলাম ফারুক এবং জাতীয়তাবাদী তাঁতী দল সাতক্ষীরা জেলা শাখার সাবেক সভাপতি রফিকুল আলম বাবুকে বিএনপির প্রাথমিক সদস্য পদসহ সকল পর্যায়ের পদ থেকে বহিষ্কার করা হয়।

এদিকে ৮ ফেব্রুয়ারি দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গ ও দলের স্বার্থবিরোধী কর্মকাণ্ডে লিপ্ত থাকার সুস্পষ্ট অভিযোগে দলীয় গঠনতন্ত্র অনুযায়ী জয়পুরহাট জেলার আক্কেলপুর পৌরসভার বিএনপি নেতা মো. রেজাউল করিম সরদারকেও দলের সকল পর্যায়ের পদ থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি