রবিবার ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১
  • প্রচ্ছদ » Lead 1 » মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রীর ভ্যাকসিন গ্রহণ নিয়ে গুজব ছড়াচ্ছে বিএনপি-জামায়াত



মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রীর ভ্যাকসিন গ্রহণ নিয়ে গুজব ছড়াচ্ছে বিএনপি-জামায়াত


বাংলা নিউজ ব্যাংক :
13.03.2021

নিউজ ডেস্ক: সরকারের অব্যাহত উন্নয়নের ধারা ব্যাহত করতে আবারো মাথাচাড়া দিয়ে উঠেছে বিএনপি-জামায়াত চক্র। করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিন আমদানির শুরু থেকে সরকারকে বিব্রত করতে বিএনপি-জামায়াত উঠে পড়ে লেগেছে। তারই ধারাবাহিকতায় এবার মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হকের টিকা গ্রহণ নিয়ে প্রোপাগান্ডা ছড়াচ্ছে বিএনপি-জামায়াতের গুজব সেল। সম্প্রতি মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রীর ভ্যাকসিন গ্রহণের একটি ”ডেমো” ফুটেজ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়। এ নিয়ে অনলাইনে-অফলাইনে গুজব প্রচার অব্যাহত রেখেছে বিএনপি-জামায়াত চক্র।

তবে এ বিষয়ে মন্ত্রী গণমাধ্যমকে বলেন, তিনি করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিন নিয়েছেন। ভ্যাকসিন নেওয়ার পর গণমাধ্যমের অনুরোধেই নতুন করে ভ্যাকসিন নেওয়ার ‘অভিনয়’ করতে হয়েছে তাকে।

শনিবার (১৩ মার্চ) দুপুরে মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক গণমাধ্যমকে এ কথা বলেন। এদিন সকাল থেকেই ফেসবুকে মন্ত্রীর ভ্যাকসিন নেওয়ার ভান করার ওই ভিডিও ছড়িয়ে পড়ে।

তথ্যসূত্র বলছে, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রীর ওই সময়ের ভ্যাকসিন গ্রহণের ফুটেজ ইতোমধ্যেই বিভিন্ন গণমাধ্যম প্রচারিত হয়েছে। যেখানে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রীকে ভ্যাকসিন নিতে দেখা গেছে। অথচ একটি গণমাধ্যমের বিশেষ অনুরোধে নতুন করে ভ্যাকসিন নেওয়ার ‘ডেমো’ ফুটেজ সংগ্রহ করে বিএনপি-জামায়াতের গুজব সেল অব্যাহত রেখেছে অপপ্রচার ও নানা প্রোপাগান্ডা।

এদিকে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন রাজনৈতিক বিশ্লেষক বলেন, মানুষের মাঝে আতঙ্ক সৃষ্টির জন্যই মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রীর ভ্যাকসিন গ্রহণের বিষয়টিকে চটকদারভাবে উপস্থাপন করছে বিএনপি-জামায়াত। মূলত তাদের উদ্দেশ্য সরকারকে বিব্রত করা। ভ্যাকসিন নিয়ে মানুষকে বিভ্রান্ত করাই বিএনপি-জামায়াতের গুজব সেলের মূল কাজ।

ভাইরাল হওয়া ভিডিওটি নিয়ে জানতে চাইলে আ ক ম মোজাম্মেল হক গণমাধ্যমকে বলেন, “১৭ ফেব্রুয়ারি আমি ভ্যাকসিন নিয়েছি। ভ্যাকসিন নেওয়ার পর সচিবের সঙ্গে আমরা যখন বাইরের দিকে যাচ্ছি, ওই সময় একটি চ্যানেলের সাংবাদিক এসে বলেন, তারা ফুটেজ পাননি। ওই সাংবাদিক অনুরোধ করেন, আমি যেন আবার একটু ভ্যাকসিন নেওয়ার ‘ডেমো’ করি। মূলত তার অনুরোধেই আবার একটু ভ্যাকসিন নেওয়ার ডেমো করতে হয়েছে।”

আ ক ম মোজাম্মেল হক আরও বলেন, আমার ভ্যাকসিন নেওয়ার ফুটেজ বিটিভিসহ সকল প্রতিষ্ঠিত গণমাধ্যমের কাছে রয়েছে। কেউ যদি চ্যালেঞ্জ করতে চায় যে আমি ভ্যাকসিন নিইনি, আমি ওই ফুটেজ দেখাতে পারবো।

এর আগে, গত ১৭ ফেব্রুয়ারি সংসদ সচিবালয় ক্লিনিকে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক ও সচিব তপন কান্তি ঘোষ ভ্যাকসিন নিয়েছেন বলে জানিয়েছিল মন্ত্রণালয়। সব গণমাধ্যমেই সে খবর প্রকাশ পেয়েছিল।

তবে শনিবার ভাইরাল হওয়া ভিডিওতে দেখা যায়, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব তপন কান্তি ঘোষ ও স্বাস্থ্য সচিব মো. আব্দুল মান্নানের সঙ্গে সংসদ সচিবালয় ক্লিনিকের কোভিড ভ্যাকসিন প্রয়োগ কেন্দ্রের সামনে দাঁড়িয়ে আছেন আ ক ম মোজাম্মেল হক। কিছুক্ষণ পর তারা একটি রুমে প্রবেশ করেন। এসময় মন্ত্রী চেয়ারে বসলে একজন নার্স একটি সিরিঞ্জ নিয়ে তার বাম হাতে ভ্যাকসিন প্রয়োগের অভিনয় করেন। এসময় হাসিমুখে চেয়ারে বসেছিলেন মন্ত্রী। পরে বের হয়ে গণমাধ্যমকর্মীদের সঙ্গ কথা বলেন তিনি।

মন্ত্রী বলছেন, এই অভিনয়টুকু করলেও এর আগেই ভ্যাকসিন নিয়েছেন তিনি। গণমাধ্যমের অনুরোধ ফেলতে না পেরেই তিনি এই অভিনয় করেছেন।

যোগাযোগ করলে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব তপন কান্তি ঘোষও জানান, মন্ত্রী ভ্যাকসিন নিয়েছেন। তিনি বলেন, সেদিন আমরা দু’জনেই ভ্যাকসিন নিয়েছি। মন্ত্রী আমার আগেই ভ্যাকসিন নিয়েছেন। উনি নেওয়ার পর আমি নিয়েছি। পরে ডেমো বা অন্য কিছু হয়েছে কি না, সে বিষয়ে আমি কিছু বলতে পারছি না।

এদিকে, ওই সময়ে ধারণ করা আরেক ফুটেজে দেখা যায়, মন্ত্র আ ক ম মোজাম্মেল হক ভ্যাকসিন নিচ্ছিলেন। এসময় তিনি মাস্ক পরিহিত ছিলেন। তবে ফেসবুকে যে ভিডিও ভাইরাল হয়েছে, সেখানে ভ্যাকসিন নেওয়ার ‘ডেমো’ দেখানোর সময় মন্ত্রীর মুখে মাস্ক দেখা যায়নি।

এ বিষয়ে জানতে ঘটনাস্থলে উপস্থিত স্বাস্থ্য সচিব ও সচিবালয় ক্লিনিক কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তারাও মন্ত্রীর ভ্যাকসিন নেয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেন।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি