বুধবার ২১ এপ্রিল ২০২১
  • প্রচ্ছদ » Lead 1 » খালেদার মুক্তির মেয়াদ বাড়লো আরো ৬ মাস, ‘মন খারাপ’ তারেকের!



খালেদার মুক্তির মেয়াদ বাড়লো আরো ৬ মাস, ‘মন খারাপ’ তারেকের!


বাংলা নিউজ ব্যাংক :
15.03.2021

নিউজ ডেস্ক: প্রমাণিত দুর্নীতি মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার সাজা স্থগিত করে মুক্তির মেয়াদ আরো ছয় মাস বাড়ানো হয়েছে। তবে এ খবরে খুশি হওয়ার বিপরীতে বরং মন খারাপ করেছেন লন্ডনে পলাতক ফেরারি আসামি ও বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান। কারণ, খালেদা বেশিদিন বাইরে থাকা মানে দলের একটি অংশ তার কথা শুনবে এবং কথানুযায়ী চলবে। এতে তার ক্ষতি বৈ লাভ হবে না।

নির্ভরযোগ্য সূত্রের তথ্যমতে, জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় দণ্ডিত হয়ে ২০১৮ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি থেকে কারাগারে ছিলেন বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়া। গত বছরের ২৫ মার্চ শর্তসাপেক্ষে ছয় মাসের জন্য দণ্ড স্থগিত করে তাকে মুক্তি দেয় সরকার। এরপর দ্বিতীয় দফায় ফের ছয় মাস সাজা স্থগিতের মেয়াদ বাড়ানো হয়। সেই মেয়াদ শেষের আগেই পূর্বের ন্যায় দল কিংবা পুত্র তারেকের সহায়তা ছাড়াই পরিবারের মাধ্যমে সাজা স্থগিতের মেয়াদ বাড়ানোর আবেদন করেন খালেদা। মঙ্গলবার (২ মার্চ) স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বরাবর ওই আবেদনটি করেন তার ভাই শামীম ইস্কান্দার।

তার প্রেক্ষিতে খালেদার সাজা স্থগিত করে মুক্তির মেয়াদ আরো ছয় মাস বাড়ানো হয়েছে। তবে এ সময়ে তিনি বিদেশে যেতে পারবেন না। সোমবার (১৫ মার্চ) স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল গণমাধ্যমে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, খালেদা জিয়ার সাজা আরো ছয় মাসের জন্য স্থগিত রেখে মুক্তি দেয়ার প্রস্তাব প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অনুমোদন করেছেন।

এর আগে গত ৮ মার্চ বিএনপি নেত্রীর শাস্তি স্থগিত করে মুক্তির মেয়াদ ছয় মাস বাড়ানোর বিষয়ে মতামত দিয়ে আইন মন্ত্রণালয় থেকে এ সংক্রান্ত ফাইল স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়। সাজা স্থগিতের মেয়াদ বাড়ানোর ক্ষেত্রে আগের শর্তগুলো বহাল রাখার বিষয়ে তাদের মতামতের কথাও জানায় আইন মন্ত্রণালয়। আগের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, খালেদা জিয়ার দ্বিতীয় দফায় ৬ মাসের মুক্তির মেয়াদ শেষ হচ্ছে আগামী ২৪ মার্চ। সব বিবেচনাপূর্বক ফৌজদারি কার্যবিধির ৪০১ ধারার উপধারা ১-এ খালেদার সাজা ছয় মাসের জন্য স্থগিত রেখে তাকে দেশের অভ্যন্তরে বিশেষায়িত চিকিৎসা নেওয়ার শর্তে এ মুক্তি দেয়া হচ্ছে।

তবে ঘটনা যাই হোক না কেন, বেজায় মন খারাপ দুর্নীতির বরপুত্র তারেক রহমানের। কিংস্টনভিত্তিক একটি সূত্রের বরাতে জানা গেছে, তারেক রহমান খুব উদ্বেলিত, চিন্তিত। দারুণ মন খারাপও। কারণ ম্যাডামের (খালেদা জিয়া) বেশিদিন বাইরে থাকা মানে, তার ক্ষতি। তিনি ঠিকভাবে দলকে নিয়ন্ত্রণ করতে পারবেন না। কারণ কিছু নেতাকর্মী আছেন যারা তারেকের চেয়ে খালেদার কথাকেই বেশি প্রাধান্য দেন এবং সে অনুযায়ী চলেন।

এ বিষয়ে দেশের রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন, তারেক রহমান মনে মনে চেয়েছিলেন তার ‘পথের কাঁটা’ খালেদার মুক্তির মেয়াদ না বাড়ুক। তিনি দ্রুতই কারাগারে ফিরে যান। তাহলে কুক্ষিগত করা দলীয় ক্ষমতা বহাল থাকবে। পাশাপাশি সামান্যতম ক্ষতিও হবে না নিজের একক সাম্রাজ্যে। কিন্তু তা আর হলো কই! মুক্তির মেয়াদ বৃদ্ধির ফলে পরোক্ষভাবে আবারও দলে কর্তৃত্ব প্রতিষ্ঠার সুযোগ পেলো খালেদা। আর এ খবর শুনে মাথা চাপড়ানো শুরু করেছেন তারেক। বলছেন, হায় হায় এ কী হলো! কেন হলো!



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি