বুধবার ২১ এপ্রিল ২০২১



মুজিববর্ষকে বিতর্কিত করতে শ্রমিকদের উসকে দিল বিএনপি!


বাংলা নিউজ ব্যাংক :
16.03.2021

নিউজ ডেস্ক: বহির্বিশ্বের বুকে সরকারকে বিতর্কিত করতে থেমে নেই বিএনপির অপতৎপরতা। তারই অংশ হিসেবে মুজিববর্ষে এবার তারা রাজধানীর তেজগাঁওয়ে পোশাক শ্রমিকদের উসকে দিয়ে বিক্ষোভে নামিয়েছে। মূলত চলমান মুজিববর্ষের মর্যাদা ক্ষুণ্ণ করতেই তারা এমন ন্যক্কারজনক কাজ করেছে বলে মন্তব্য, দেশের বিশিষ্টজনদের।

বিশ্বস্ত সূত্রের তথ্যমতে, ১৭ থেকে ২৬ মার্চ তারিখ পর্যন্ত বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী এবং স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন উপলক্ষে ১০ দিনব্যাপী বিশেষ অনুষ্ঠানমালার আয়োজন করেছে সরকার। যা জাতীয় প্যারেড গ্রাউন্ডে অনুষ্ঠিত হবে। এ উপলক্ষে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিসহ দক্ষিণ এশিয়ার পাঁচ দেশের রাষ্ট্র ও সরকার প্রধানরা রাজধানী ঢাকায় আসবেন। তাই এই সময়টাতে বিশৃঙ্খলা ঘটিয়ে আন্তর্জাতিক মহলে সরকারের বিরুদ্ধাচরণ করতে বিএনপির পক্ষ থেকে নানা পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। লন্ডনে পলাতক ফেরারি আসামি ও বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের নির্দেশনায় এর অংশ হিসেবে মঙ্গলবার (১৬ মার্চ) সকালে রাজধানীর তেজগাঁওয়ের তিব্বত মোড়ে শ্রমিকদের বিভ্রান্তমূলক তথ্য দিয়ে উসকে দেয় বিএনপি। যার প্রেক্ষিতে তারা সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করে। ফলে ওই সড়কে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। সৃষ্টি হয় তীব্র যানজট।

তবে বাংলা নিউজ ব্যাংকের সঙ্গে আলাপনে এই বিক্ষোভের সঠিক কারণ জানাতে পারেনি শ্রমিকরা। তাদের ভাষ্য, অধিকাংশরাই জানেন না এই বিক্ষোভের কী কারণ? কারও ধারণা, কর্মী ছাঁটাইয়ের প্রতিবাদ। আবারও কেউবা বলছে, বিশেষ কেউ এই ঘটনা ঘটিয়েছে। আর এ কারণে ‘বিরিয়ানি খাওয়ার’ জন্য মিলছে নগদ অর্থ।

স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, একদল মানুষ কালো কাচের গাড়িতে করে এসে অর্থের বিনিময়ে শ্রমিকদেরকে বিভিন্ন রকম মিথ্যা তথ্য দিয়ে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির কথা বলে। শ্রমিকরাও কিছু না বুঝে রাস্তা বন্ধ করে বিভিন্ন অযৌক্তিক দাবিতে স্লোগান দিতে থাকে। এ সময় তাদের সঙ্গে স্থানীয় বিএনপির বেশকিছু নেতাকর্মীসহ ছাত্রদল-যুবদল ও স্বেচ্ছাসেবকদলের কর্মীদের উপস্থিতি লক্ষ্য করা যায়। তবে তারা বেশিক্ষণ বিক্ষোভে থাকেননি। শ্রমিকদের উসকে দিয়েই দ্রুত ঘটনাস্থল ত্যাগ করেন।

এ বিষয়ে জানতে যোগাযোগ করা হয় বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের সঙ্গে। তিনি এই প্রতিবেদককে বলেন, এমন ঘটনা সম্পর্কে আমার জানা নেই। আর বিএনপির দলীয় কেউ এমনটা করবে না। তাদেরকে সেই নীতি-আদর্শে দীক্ষিত করা হয়নি। তারপরেও যদি কেউ এই ঘটনার সঙ্গে যুক্ত থাকে, তার বিরুদ্ধে কঠোর সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে। কোনভাবেই বরদাশত করা হবে না।

রাজনৈতিক বিজ্ঞজনরা বলছেন, প্রতিহিংসা পরায়ণ হয়ে সরকারের বিরুদ্ধাচরণ করা ও দেশবিরোধী কাজ করা বিএনপি নেতৃবৃন্দের পুরনো অভ্যাস। এ কারণে মুজিবর্ষের মত লগ্নে তারা এমনটা করেছেন। সরকার ও সরকারপ্রধানকে বিতর্কিত করার লালসায় অন্ধ হয়ে শ্রমিকদেরকে উসকে দিয়ে চেষ্টা চালিয়েছেন নিজেদের রাজনৈতিক এজেন্ডা বাস্তবায়নে। যা শেষ অবধি ভণ্ডুল হয়েছে সরকার ও দেশবাসীর সচেতনতায়।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি