বৃহস্পতিবার ১৫ এপ্রিল ২০২১
  • প্রচ্ছদ » Lead 1 » করোনায় আক্রান্ত রিজভী হাসপাতালে, ফখরুলের ‘চওড়া হাসি’!



করোনায় আক্রান্ত রিজভী হাসপাতালে, ফখরুলের ‘চওড়া হাসি’!


বাংলা নিউজ ব্যাংক :
18.03.2021

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে তারেক রহমানের ‘ডান হাত’ খ্যাত বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। লন্ডন থেকে দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান উদ্বিগ্ন হয়ে বারবার তার খবর নিলেও আড়ালে ‘চওড়া হাসি’ হাসছেন বিএনপির তৃতীয় ক্ষমতাধর ব্যক্তি ও দলীয় মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। কারণ, ‘পথের কাঁটা’ রিজভী সরে গেলেই পরবর্তী দলীয় কাউন্সিলে আবারও মহাসচিব হতে পারবেন তিনি, মন্তব্য বিশিষ্টজনদের।

দায়িত্বশীল সূত্রের তথ্যমতে, বেশ কয়েকদিন ধরে জ্বরে ভুগছিলেন রুহুল কবির রিজভী। অবস্থার পরিবর্তন না হওয়ায় বুধবার (১৭ মার্চ) তিনি করোনা টেস্টের জন্য স্যাম্পল দেন। সেই রিপোর্টে করোনা পজিটিভ আসে। বিষয়টি পরবর্তীতে গণমাধ্যমকে নিজেই জানান বিএনপির এই জ্যেষ্ঠ নেতা। রাতে অবস্থার আরও অবনতি হলে বৃহস্পতিবার (১৮ মার্চ) সকালে তাকে রাজধানীর স্কয়ার হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

এ ব্যাপারে বাংলা নিউজ ব্যাংককে বিএনপির স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক ও রিজভীর ব্যক্তিগত চিকিৎসক ডা. রফিকুল ইসলাম জানান, রিজভীর অবস্থা খুব একটা ভালো নয়। এ কারণে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে স্কয়ার হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

এদিকে রিজভীর এই অসুস্থতার খবর লন্ডনে তারেকের কাছে পৌঁছাতেই তিনি বিচলিত হয়ে পড়েছেন। এখন অবধি বেশ কয়েকবার ফোনে তার খবরাখবর জেনেছেন এবং দলীয় নেতৃবৃন্দকে নির্দেশ দিয়েছেন তার সর্বোচ্চ দেখভাল করার জন্য। তারাও সার্বক্ষণিক খোঁজ-খবর রাখছেন। কিন্তু রিজভীর শারীরিক অবস্থা ও চিকিৎসার তদারকিতে উদাসীন মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। সবার সামনে তিনি রিজভীর আশু রোগ মুক্তির জন্য দলীয় নেতাকর্মী ও দেশবাসীর কাছে দোয়া চাইলেও পেছনে পেছনে হাসছেন ‘চওড়া হাসি’। চাইছেন, তারেকের ‘আস্থাভাজন ও পছন্দের’ রিজভী যেন আর না ফেরে। তাহলেই তার রাস্তা পরিষ্কার। আসন্ন দলীয় জাতীয় কাউন্সিলে আবারও মহাসচিব পদ পাবেন তিনি। আবারও সব থাকবে নিজের নিয়ন্ত্রণে। আর বিএনপির তৃতীয় ক্ষমতাধর ব্যক্তি হিসেবে বজায় থাকবে নিজের আধিপত্য।

এ বিষয়ে দেশের রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন, মানুষের অসুস্থতা নিয়ে রাজনীতি করা বিএনপির পুরনো অস্থিগত অভ্যাস। মির্জা ফখরুলও তাই রিজভীর অসুস্থতায় মনে মনে খুশি হয়ে তা নিয়ে অভ্যন্তরীণ দলীয় রাজনীতিতে ব্যস্ত। কারণ, রিজভী না থাকলে তিনিই আবার হবেন পরবর্তী দলীয় মহাসচিব, যেটা তারেক রহমানও চাচ্ছেন। এ থেকে সহজেই দলটির আদর্শিক বৈশিষ্ট্যের প্রমাণ মেলে। প্রমাণ মেলে হীন মানসিকতারও।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি