বৃহস্পতিবার ১৫ এপ্রিল ২০২১
  • প্রচ্ছদ » জাতীয় » বিএনপি’র দুই শীর্ষ নেতার শীতল দ্বন্দ্বে ক্ষতিগ্রস্ত বিএনপি



বিএনপি’র দুই শীর্ষ নেতার শীতল দ্বন্দ্বে ক্ষতিগ্রস্ত বিএনপি


বাংলা নিউজ ব্যাংক :
19.03.2021

নিউজ ডেস্ক: দীর্ঘ এক যুগ ধরে দলের অভ্যন্তরে প্রভাব বিস্তারকে কেন্দ্র করে শীতল যুদ্ধে লিপ্ত রয়েছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ও সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী আহমেদ। দুইজনের এ শীতল যুদ্ধে বিএনপি নানাভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে।

অভিযোগ রয়েছে, মির্জা ফখরুল বিএনপির মহাসচিব হলেও রিজভী আহমেদ বিশেষ ক্ষমতা বলে দল পরিচালনা করছেন।

বিএনপির পার্টি অফিস সূত্রের বরাতে জানা যায়, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগ পর্যন্ত ফখরুল-রিজভীর শীতল যুদ্ধ তেমন প্রকাশ পায়নি। সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে হারের পর পৌর নির্বাচনেও একের পর এক হারতে থাকে বিএনপির প্রার্থীরা। এ সুযোগে মির্জা ফখরুলকে টপকাতে আদর্শের নামে মিথ্যা ও বিভ্রান্তিকর দ্বন্দ্বে জড়িয়ে পড়েছেন রিজভী আহমেদ।

মির্জা ফখরুল কাগজে কলমে মহাসচিব হলেও এখন দলের যাবতীয় কার্যক্রম পরিচালনা ও সিদ্ধান্ত গ্রহণে একচ্ছত্র আধিপত্য বিস্তার করছেন রিজভী। তার ইশারা ছাড়া কোথাও কোনো কমিটি অনুমোদন পাচ্ছে না।

গুঞ্জন রয়েছে, সারাদেশের বিএনপির রাজনীতিকে এক হাতে নিয়ন্ত্রণ করছেন রিজভী। এজন্য মূলত খালেদাপন্থী এবং ধীর বুদ্ধিসম্পন্ন নেতা মির্জা ফখরুলকে তারেকপন্থী রিজভী আহমেদের অনুসারী নেতাদের হাতে বরাবর হেনস্তার শিকার হতে হচ্ছে। কিন্তু দলের ভাবমূর্তি ও সম্মান রক্ষার্থে মির্জা ফখরুল রিজভীদের অপমান মুখ বুজে সহ্য করে যাচ্ছেন।

দলীয় সূত্র বলছে, বিএনপির আগামী জাতীয় কাউন্সিলে মির্জা ফখরুলের বদলে মহাসচিব হতে পারেন রিজভী আহমেদ। সেই বিষয়ে লন্ডন থেকে সবুজ সংকেত পেয়েছেন রিজভী আহমেদ। সেই আভাস পেয়েই রিজভী আহমেদ মির্জা ফখরুলের দায়িত্বে ভাগ বসিয়ে নিজের আগাম ক্ষমতা প্রকাশের চেষ্টা করছেন।

রিজভী আহমেদের বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে দলটির স্থায়ী কমিটির অন্যতম প্রভাবশালী নেতা ও মহাসচিব পদের তালিকায় এগিয়ে থাকা এক প্রার্থী বলেন, রিজভী আহমেদের বিষয়ে অনেক আগে থেকে শৃঙ্খলা ভঙ্গ ও অযাচিতভাবে ক্ষমতার অপব্যবহারের অভিযোগ ছিল। রিজভী আহমেদ তার পদের বাইরে গিয়েও কাজ করে লন্ডনের দৃষ্টি আকর্ষণের চেষ্টা করেন। এতে দলের চেইন অফ কমান্ড ভেঙে যায়।

তিনি আরো বলেন, রিজভীকে নিয়ে অভিযোগের শেষ নেই। কোনটা ছেড়ে কোনটা বলবো! তার বিরুদ্ধে অর্থের বিনিময়ে বিভিন্ন কমিটি অনুমোদন, মনোনয়ন বাণিজ্যের অভিযোগ রয়েছে। রিজভীর মধ্যে সিনিয়রদের অবজ্ঞা ও অবহেলা করার প্রবণতা দেখেছি।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির অন্যতম প্রভাবশালী এ নেতা বলেন, মির্জা ফখরুল সাহেবের মতো মানুষকে অসম্মানকারী লোক কীভাবে বিএনপির রাজনীতি করবেন? মির্জা সাহেবের পর আমরাই দলের হাল ধরব। তখন আমাদের প্রাপ্য সম্মানটুকু আমাদেরকে রিজভি সাহেব কি দিতে পারবেন?



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি