বৃহস্পতিবার ১৫ এপ্রিল ২০২১
  • প্রচ্ছদ » Lead 2 » স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীর অনুষ্ঠান হঠাৎ স্থগিত বিএনপির, কারণ কী?



স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীর অনুষ্ঠান হঠাৎ স্থগিত বিএনপির, কারণ কী?


বাংলা নিউজ ব্যাংক :
24.03.2021

নিউজ ডেস্ক: হঠাৎ করেই স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে পূর্বঘোষিত সব কর্মসূচি স্থগিত করেছে বিএনপি। কিন্তু ঠিক কি কারণে এমনটা হলো, দলের পক্ষ থেকে তা খোলসা করা হয়নি। তবে এক সংবাদ সম্মেলনে তারা দাবি করেছে, করোনা পরিস্থিতির কারণেই তারা অনুষ্ঠান বন্ধ রেখেছে। তবে কারণটা ভিন্ন উল্লেখ করে দেশের রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের ভাষ্য, কাঙ্ক্ষিত অংকের চাঁদা না ওঠায় তারেক রহমান এই অনুষ্ঠানমালা বন্ধ করে দিয়েছেন।

বিশ্বস্ত সূত্রের তথ্যমতে, স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী উপলক্ষে ১ মার্চ (সোমবার) দুপুরে বিএনপির পক্ষ থেকে দলীয় অনুষ্ঠানমালার উদ্বোধন করা হয়। প্রধান অতিথি ও উদ্বোধক হিসেবে দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান অনুষ্ঠানের শুভ সূচনা ঘোষণা করেন। তবে দুঃখজনক হলেও সত্য, ওই দিনের আয়োজিত দলীয় অনুষ্ঠানমালার ব্যানারে প্রতিষ্ঠাতা হিসেবে জিয়াউর রহমানের ছবি থাকলেও কোথাও ছিল না খালেদার নাম বা ছবি। এ নিয়ে দলের ভেতর গুঞ্জন চাউর হয়, গর্ভধারিণী মাকে কৌশলে মাইনাস করে নিজেই সব ক্ষমতা কুক্ষিগত করছেন দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান। সে কারণে ব্যানারে খালেদার ছবি পর্যন্ত রাখতে দেননি তিনি।

উপরন্তু এই অনুষ্ঠানমালা নিয়ে দলের সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভীকে দায়িত্ব দিয়েছিলেন দেশ-বিদেশের বিভিন্ন মহল থেকে মোটা অংকের চাঁদা করতে। কিন্তু পথিমধ্যে রিজভী করোনা আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হওয়ায় তারেকের কাঙ্ক্ষিত অংকের চাঁদা ওঠেনি। এ খবর লন্ডনে তার কানে পৌঁছাতেই তিনি রেগে গিয়ে সিদ্ধান্ত নেন সব অনুষ্ঠান স্থগিতের। পাশাপাশি নির্দেশ দেন করোনার দোহাই দিয়ে মিডিয়ার সামনে সেভাবেই প্রচারণা চালাতে। সে অনুযায়ী ২৪ মার্চ থেকে ৩০ মার্চ পর্যন্ত স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে পূর্বঘোষিত সব কর্মসূচি স্থগিত করেছে বিএনপি।

বুধবার (২৪ মার্চ) বিকেলে রাজধানীর গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে গণমাধ্যমকে এ তথ্য নিশ্চিত করেন স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপনে বিএনপি গঠিত জাতীয় কমিটির আহ্বায়ক ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন। তিনি বলেন, তারেক রহমানের নির্দেশে আমরা আমাদের ঘোষিত সব কর্মসূচি স্থগিত করলাম। ৩০ মার্চের পরে পুনরায় এসব কর্মসূচির বিষয়ে জানানো হবে।

এ সময় বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ও উদযাপন কমিটির সদস্য সচিব আব্দুস সালাম, দলের প্রচার সম্পাদক শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানি প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

এ বিষয়ে বাংলা নিউজ ব্যাংককে লন্ডনের কিংস্টন ভিত্তিক একটি সূত্র জানিয়েছে, রুহুল কবির রিজভীকে স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী অনুষ্ঠানমালা পরিচালনার লক্ষ্যে তারেক রহমান নির্দেশ দিয়েছিলেন বিভিন্ন মহল থেকে চাঁদা আদায় করতে। তিনি কাজও শুরু করেছিলেন। কিন্তু হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়ায় চাঁদা উত্তোলনও বন্ধ হয়ে গেছে। তাই কাঙ্ক্ষিত অংকের টাকা না ওঠায় তিনি বাধ্য হয়ে অনুষ্ঠান স্থগিতের সিদ্ধান্তে উপনীত হয়েছেন।

রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন, নিজের ভাগের টাকা না পেলে এর আগেও অনেকবার পূর্ব ঘোষিত কর্মসূচি ভণ্ডুল করেছেন তারেক রহমান। স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীর অনুষ্ঠান স্থগিতও তার বাইরে কিছু নয়। এ অভ্যাস তার পুরাতন। এ থেকে তার মতাদর্শ ও চারিত্রিক বৈশিষ্ট্যের যেমন প্রমাণ মেলে, তেমনি অনাগত দিনে বিএনপিসহ তারেকের পথচলা কেমন হবে তাও অনুমান করা যায়।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি