মঙ্গলবার ২০ এপ্রিল ২০২১
  • প্রচ্ছদ » Lead 2 » ব্রেকিং: নুর গংয়ের ‘ডিজিটাল প্রতারণা’র খবর ফাঁস!



ব্রেকিং: নুর গংয়ের ‘ডিজিটাল প্রতারণা’র খবর ফাঁস!


বাংলা নিউজ ব্যাংক :
25.03.2021

নিউজ ডেস্ক: বেরিয়ে এলো থলের বিড়াল। ডাকসুর সাবেক ভিপি নুরুল হক নুর যে ফেসবুক পেইজটি ব্যবহার করেন, তার প্রকৃত মালিক ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির আইনবিষয়ক সম্পাদক ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন। যা ২০১৯ সালের অক্টোবরে হ্যাক করে নুর গংরা। কারণ, ওই সময় সুমন ছিলেন জনপ্রিয়তার তুঙ্গে। তাই ওই পেজটি তারা নিয়ন্ত্রণে নিয়ে নিজেদের স্বার্থ হাসিলের চেষ্টায় নামেন।

দায়িত্বশীল সূত্রের তথ্যমতে, ২০১৯ সালে নুরুল হক নুরের জনপ্রিয়তা ছিল শূন্যের কোঠায়। তাই তিনি টার্গেট করেন সোশ্যাল মিডিয়ার জনপ্রিয় মুখ ব্যারিস্টার সুমনকে। পরে ওই বছরের ১৩ অক্টোবর নিজের লোক দিয়ে সুমনের ব্যবহৃত পেইজটি হ্যাক করে নিজের নিয়ন্ত্রণে নেন এবং সেখান থেকে নিয়মিত বিভিন্ন কর্মকাণ্ড পরিচালনা করে আসছেন। বিষয়টি দৃষ্টিগোচর হয় বৃহস্পতিবার (২৫ মার্চ) রাজধানীতে একটি বিক্ষোভ মিছিলে নুরের গুলিবিদ্ধ হওয়ার খবর ওই পেইজের মাধ্যমে ছড়ানোর পর। আশ্চর্যজনক তথ্য হলো, নুর যদি গুলিবিদ্ধ হয়ে থাকেন তবে তাৎক্ষণিকভাবে তার পেইজে স্ট্যাটাস পোস্ট করলেন কে?

বাংলা নিউজ ব্যাংকের অনুসন্ধানে জানা গেছে, বর্তমানে ওই পেইজটি ১০ জন মিলে পরিচালনা করছেন। আর তারাই নুরের গুলিবিদ্ধ হওয়ার ঘটনা স্ট্যাটাস আকারে প্রকাশ করে। তার দুই ঘণ্টা না যেতেই পেইজ থেকে লাইভ আসেন নুর এবং সরকারের বিরুদ্ধে জনসাধারণকে খেপিয়ে তুলতে নানা রকম উসকানিমূলক কথা বলেন। এখন প্রশ্ন হলো, গুলিবিদ্ধ হওয়ার ঘটনা যদি মিথ্যেই না হবে, তাহলে কিভাবে সুস্থ শরীরে তিনি লাইভে এলেন? আর কেনই বা এই নাটক মঞ্চায়ন করলেন?

লাইভে নুর নিজেকে গুলিবিদ্ধ দাবি করলেও সেটাকে ‘মিথ্যে’ বলে মন্তব্য করলেন যুব অধিকার পরিষদের যুগ্ম আহবায়ক তারেক হোসেন। তিনি বলেন, নুরের কিছুই হয়নি। তিনি সম্পূর্ণ সুস্থ।

এ বিষয়ে দেশের রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন, নুরের নাটকের কোন শেষ নেই। বিভিন্ন ইস্যুতে তিনি ‘বিশেষ মহলের’ কাছ থেকে টাকা নিয়ে প্রায়শই এমন কাজ করেন। তবে তিনি নিজের স্বার্থ হাসিলের জন্য ব্যারিস্টার সুমনের ফেসবুক পেইজ হ্যাক করে ‘ডিজিটাল প্রতারণা’ করবেন, সেটি কারও ধারণা ছিল না। যা আজ প্রকাশ্য হলো।

রাজনৈতিক বিজ্ঞজনরা আরও বলেন, প্রতারক ও ভণ্ড নুরের লাগাম যদি এখনই টেনে না ধরা হয়, তবে তার মিথ্যাচারে প্ররোচিত হয়ে দিকভ্রান্ত হবেন সাধারণ মানুষ। কালিমা লাগবে সরকারের গায়ে। বহির্বিশ্বের কাছে তাই তিনি যাতে কোনভাবেই দেশ ও সরকারের সুনাম ক্ষুণ্ণ না করতে পারেন সেদিকে আমাদের সকলের জোর দৃষ্টি রাখতে হবে।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি