বুধবার ২১ এপ্রিল ২০২১
  • প্রচ্ছদ » Lead 1 » করোনা ইস্যু: নিজের ফাঁদেই কুপোকাত বিএনপি, ৪৪০ নেতাকর্মীর মৃত্যু



করোনা ইস্যু: নিজের ফাঁদেই কুপোকাত বিএনপি, ৪৪০ নেতাকর্মীর মৃত্যু


বাংলা নিউজ ব্যাংক :
07.04.2021

দেশে উদ্ভূত করোনা পরিস্থিতির শুরু থেকে অদ্যাবধি সরকার প্রাণান্তর চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে সবাইকে সুরক্ষিত রাখতে, পরিস্থিতি মোকাবিলা করতে। অথচ সরকারবিরোধী আন্দোলনের নামে তাদের বেকায়দায় ফেলতে বিভিন্ন ইস্যুতে রাজনৈতিকভাবে সংঘবদ্ধ হয়েছেন এবং হচ্ছেন বিএনপি নেতৃবৃন্দ। স্বাস্থ্যবিধি না মেনে সবার মাঝে ছড়িয়ে দিচ্ছেন করোনা। যার ফলে গত বছরের মার্চ মাস থেকে এখন পর্যন্ত তাদের করোনা আক্রান্ত হয়ে চার শতাধিক নেতাকর্মীর মৃত্যু হয়েছে। বিএনপির চেয়ারপারসনের মিডিয়া উইং সূত্রে এমন তথ্য জানা গেছে।

দায়িত্বশীল সূত্রের তথ্যমতে, দেশজুড়ে বইছে সরকারের উন্নয়নযজ্ঞ। জনসমর্থনও তুঙ্গে। এরই মধ্যে উন্নয়নশীল দেশের কাতারে উত্তরণ ঘটেছে লাল-সবুজের বাংলাদেশের। সরকার প্রধানের এমন ভিশনারী ও প্রাজ্ঞ নেতৃত্বে গাত্রদাহ শুরু হয়েছে স্বাধীনতাবিরোধী বিএনপি-জামায়াত চক্রের। এ কারণে অনলাইন-অফলাইনে তারা মিথ্যা প্রচারণা চালিয়ে সরকারের বিরুদ্ধাচরণ করে আসছে। শুধু তাই নয়, ষড়যন্ত্রের অংশ হিসেবে তারা করোনার মধ্যে বিভিন্ন ইস্যুতে দলীয় লোক সমাগম করে সরকারকে চাপে ফেলতে চেয়েছিল। কিন্তু একটা কথা আছে না, আল্লাহর মাইর দুনিয়ার বাইর। তারা স্বাস্থ্যবিধি না মেনে সংঘবদ্ধ হওয়ায় নিজেরাই সংক্রমিত হয়েছেন করোনায়। এ পর্যন্ত প্রাণ গেছে ৪৪০ জনের। কেউ আছেন হাসপাতালে আবার কেউবা বাসায় থেকে নিচ্ছেন চিকিৎসা।

বাংলা নিউজ ব্যাংকের সঙ্গে আলাপনে এ ব্যাপারে বিএনপির চেয়ারপারসনের মিডিয়া উইংয়ের সদস্য শায়রুল কবির খান বলেন, করোনায় এ পর্যন্ত বিএনপির ৪৪০ জন নেতাকর্মী মারা গেছেন। এর বাইরেও বর্তমানে করোনায় আক্রান্ত বিএনপির নেতাকর্মীদের মধ্যে রুহুল কবির রিজভী, ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, সেলিমা রহমান, অ্যাডভোকেট আহমেদ আজম খান, ডা. এ জেড এম জাহিদ হোসেন, গাজী মাজহারুল আনোয়ার, খন্দকার আব্দুল মুক্তাদির, ডা. ফরহাদ হালিম ডোনার, শিমুল বিশ্বাস, ডা. এ কে এম আজিজুল হক, অ্যাডভোকেট ফারজানা শারমিন পুতুল প্রমুখ উল্লেখযোগ্য।

অপরের জন্য কুয়া খুঁড়লে সেখানে নিজেকেই পড়তে হয় উল্লেখ করে দেশের রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকরা বলছেন,
এখন অপরের জন্য পাতা ফাঁদে নিজেরাই কুপোকাত। তাদের বর্তমান পরিস্থিতি সেটাই পরিষ্কারভাবে জানান দিচ্ছে। কারণ, বিএনপির শীর্ষ নেতৃত্ব থেকে তৃণমূল, সর্বত্রই সবাই করোনা আক্রান্ত। আর এটা নিঃসন্দেহে তাদের পাপের ফসল।

রাজনৈতিক এই বিজ্ঞজনদের আরও ভাষ্য, অন্যের অমঙ্গল কামনা করলে কিংবা কাউকে বেকায়দায় ফেলার ফল কখনও ভালো হয় না। এবার যদি বিএনপির শুভ বুদ্ধির উদয় হয়, তবে সেটাই হবে শ্রেয়।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি