শনিবার ১৫ মে ২০২১
  • প্রচ্ছদ » Lead 2 » করোনার ভয়ে খালেদার কাছে কেউ নেই, বাধ্য করা হচ্ছে ফাতেমাকে



করোনার ভয়ে খালেদার কাছে কেউ নেই, বাধ্য করা হচ্ছে ফাতেমাকে


বাংলা নিউজ ব্যাংক :
13.04.2021

নিউজ ডেস্ক : করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন দুর্নীতির দায়ে দণ্ডিত বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। আর এ কারণে ভয়ে কাছে ভিড়ছেন না তার পরিবারের কেউ।

এ প্রসঙ্গে খালেদা জিয়ার ছোট ভাই শামীম ইস্কান্দারের সঙ্গে কথা হলে তিনি বলেন, আমি অনেক ব্যস্ত থাকি এ কারণে আপার যত্ন নেয়ার সুযোগ হয় না। সঙ্গে আমার স্ত্রীও ইদানীং প্রচুর ব্যস্ত থাকে, এ কারণে আপার কাছে যেতে পারছে না। তবে সামনে সুযোগ পেলেই আমরা তার সঙ্গে দেখা করতে যাবো।

অপরদিকে খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা খুব একটা ভালো নয়, এমতাবস্থায় তার পরিচর্যা প্রয়োজন বলে মনে করেন তার বোন সেলিমা ইসলাম। তিনি বলেন, আপার বয়স হয়েছে, এ সময় তার পাশে থাকতে পারলে ভালো হতো। কিন্তু আমার বয়স ৭০ ছুঁই ছুঁই। আমার স্বামী বা আমি গিয়ে যদি তার কাছে থাকি, তখন আমরাও করোনায় আক্রান্ত হতে পারি। এছাড়া আমরা সকলে করোনার ভ্যাক্সিন নিয়েছি। আপাকেও নিতে বলেছিলাম, কিন্তু তার ছেলে তারেক রহমানের জন্য দিতে পারিনি। আর এ কারণেই বেগম জিয়ার করোনা হয়েছে। এখন কি তারেক রহমানের স্ত্রী জোবায়দা রহমান পারে না তার সেবা করতে? শাশুড়ির যত্ন নিতে ঢাকায় আসতে? সব দায়িত্ব কি আমাদের?

জোবায়দা রহমান কেন আসছেন না? এ বিষয়ে জানতে তার ফোনে একাধিক বার কল করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি। তবে সরজমিনে খালেদা জিয়ার গুলশানে অবস্থিত ফিরোজার বাসায় গিয়ে জানা যায়, করোনা কালীন সময়ও তার সেবা করছেন গৃহপরিচারিকা ফাতেমা। এ বিষয়ে ফাতেমার ঘনিষ্ঠজন জানায়, পরিবারের কেউ খালেদা জিয়ার দায়িত্ব নিতে না চাওয়ায় বাধ্য হয়ে ফাতেমাকেই খালেদার সেবা করার জন্য থাকতে হচ্ছে। যদিও গৃহপরিচারিকা নিজেও করোনায় আক্রান্ত।

খালেদা জিয়ার বর্তমান পরিস্থিতির ব্যাখ্যায় বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, এটি আসলে তাদের পরিবারের ব্যক্তিগত বিষয়। সঙ্গত কারণেই আমরা চাইলেও খালেদা জিয়ার কোনো খবর নিতে পারছি না। তবে আমি মনে করি, জোবায়দা রহমানের অন্তত উচিত খালেদা জিয়ার সেবা করার জন্য বাংলাদেশে আসা।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি