শনিবার ১৫ মে ২০২১
  • প্রচ্ছদ » Lead 1 » দেশকে অস্থিতিশীল করতে গুজব রটাচ্ছে বিএনপির পেইড এজেন্ট ক্যাপ্টেন (অবঃ) শহিদ



দেশকে অস্থিতিশীল করতে গুজব রটাচ্ছে বিএনপির পেইড এজেন্ট ক্যাপ্টেন (অবঃ) শহিদ


বাংলা নিউজ ব্যাংক :
15.04.2021

নিউজ ডেস্ক: বাংলাদেশে অস্থিরতা সৃষ্টির জন্য অনলাইনকে কাজে লাগিয়ে সাধারণ মানুষের মধ্যে গুজব ছড়াচ্ছে বিএনপি-জামায়াত। বিশেষ করে হেফাজতের তাণ্ডবের পেছনে বিএনপির যে গুজব সেল রয়েছে তারা ছিল সক্রিয়। সূত্র বলছে, বিএনপির পেইড এজেন্টরা ফেসবুক, ইউটিউবসহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোকে কাজে লাগিয়ে একের পর এক গুজব ছড়িয়ে সাধারণ মানুষকে বিভ্রান্ত করছে। এছাড়াও ইসলামপন্থী হেফাজতের কর্মীদের উসকে দিয়ে দেশে অরাজকতা সৃষ্টি করতে সহায়ক ভূমিকা রাখছে বিএনপির এসব পেইড এজেন্ট। এবার তারেক রহমানের ইশারাতে হেফাজত ইসু্য ও মামুনুলের নারী কেলেঙ্কারির ঘটনাকে সামনে রেখে গুজব রটাতে আমেরিকা থেকে বিএনপির নতুন পেইড এজেন্ট হিসেবে যুক্ত করা হয়েছে ক্যাপ্টেন (অবঃ) শহিদ।

ইতোমধ্যেই বিএনপির গুজব সেলের পেইড এজেন্টদের মধ্যে হলুদ সাংবাদিক তাসনিম খলিল, কনক সরওয়ার, চরিত্রহীন সাংবাদিক ইলিয়াস, কর্নেল (অবঃ) শহিদ নিজেদের কুকীর্তির মাধ্যমে ভণ্ড হিসেবে ভার্চুয়াল জগতে ব্যাপক পরিচিতি অর্জন করেছেন। এবার তাদের সাথে আমেরিকা থেকে নতুন যুক্ত হয়েছেন আরেক প্রতারক ক্যাপ্টেন (অবঃ) শহিদ। যিনি বাংলাদেশ থেকে সাধারণ জনগণের বিপুল অংকের টাকা আত্মসাৎ করে আমেরিকাতে পালিয়ে গেছেন বলে অভিযোগ রয়েছে।

বিএনপির গুজব সেলে ক্যাপ্টেন (অবঃ) শহিদের যোগদানের বিষয়ে জানতে চাইলে যুক্তরাজ্য যুবদলের ভাইস প্রেসিডেন্ট আবুল খায়ের বাংলা নিউজ ব্যাংককে বলেন,
এবছরে ফেব্রুয়ারি মাসের শুরুর দিকে যুক্তরাজ্যের বেলমন্ড রিসোর্টে বিএনপির একটি অনুষ্ঠানে আমি সর্বপ্রথম ক্যাপ্টেন (অবঃ) শহিদের সাথে পরিচিত হই। মূলত তারেক ভাইয়া আমাদের সকলের সামনে ক্যাপ্টেন (অবঃ) শহিদকে আমাদের দলের নিউ কামার বলে পরিচয় করিয়ে দেন।

তথ্যসূত্র বলছে, বিগত কিছুদিন ধরেই হলুদ সাংবাদিক কনক সরওয়ারের ইউটিউবের কয়েকটি লাইভ অনুষ্ঠানে এসে একের পর এক সরকারের বিরুদ্ধে মিথ্যাচার করে যাচ্ছেন ক্যাপ্টেন (অবঃ) শহিদ। বিশেষ করে হেফাজত ইস্যু ও মামুনুল হকের নারী কেলেঙ্কারীর পক্ষে সাফাই গেয়ে বাংলাদেশ সরকার প্রধান, সেনাবাহিনী ও রাষ্ট্রের বিভিন্ন অর্গান সম্পর্কে গুজব রটিয়ে যাচ্ছেন প্রতারক ক্যাপ্টেন (অবঃ) শহিদ।

জানা যায়, ২৬ মার্চ আমেরিকার একটি স্থানীয় পত্রিকায় প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, অস্ত্র ব্যবসা ও জঙ্গিবাদে অর্থায়নের অভিযোগ রয়েছে ক্যাপ্টেন (অবঃ) শহিদের বিরুদ্ধে। জনগণের টাকা মেরে বাংলাদেশ থেকে পালিয়ে ইংল্যান্ডের টোরি পার্টির ফান্ডে ২০ হাজার পাউন্ড অনুদান দেয়ার বিষয়টিও এফবিআই এর তদন্তে বেরিয়ে এসেছে।

এতে আর বলা হয়েছে, ক্ষমতার অপব্যবহারের দায়ে শাস্তি পাওয়া এ সেনা কর্মকর্তার বিরুদ্ধে বাংলাদেশের জঙ্গিবাদে মদদ দেয়া, অস্ত্র ব্যবসা, প্রতারণা ও অর্থ পাচারের একাধিক অভিযোগ রয়েছে। চলতি বছরের জানুয়ারিতে তার ঢাকার বাসায় অভিযান চালিয়ে জিহাদি বই, অবৈধ অস্ত্র উদ্ধার করে বাংলাদেশের কাউন্টার টেরোরিজম পুলিশ।

মূলত ক্যাপ্টেন (অবঃ) শহিদের এমন অপকর্ম কখনোই সুস্থ মস্তিষ্কের মানুষের দ্বারা সমর্থন যোগ্য নয়। অনিয়মে ভরা দুর্নীতিগ্রস্ত বিএনপির এই পেইড এজেন্ট নিজের বিরুদ্ধে প্রচার হওয়া সত্য অভিযোগকে প্রশ্নবিদ্ধ করে একটি পক্ষের সুবিধা গ্রহণের কাজে লিপ্ত হয়ে রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে বিদেশের মাটিতে মিথ্যাচার ছড়াচ্ছেন বলে মনে করছেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি