মঙ্গলবার ১১ মে ২০২১



আটক আতঙ্কে হেফাজতের কেন্দ্রীয় নেতারা!


বাংলা নিউজ ব্যাংক :
21.04.2021

সরকারের কঠোর অবস্থানে সুর পাল্টেছে হেফাজত নেতাদের। দেশব্যাপী ভাঙচুর, তাণ্ডব চালানোর সময় হেফাজতের নেতারা গরম গরম বক্তব্য দিলেও গত কয়েক দিনে রাষ্ট্রবিরোধী কর্মকাণ্ডের জেরে হেফাজতের কেন্দ্রীয় কয়েকজন নেতাকে গ্রেফতার করার পর সুর বদলেছে হেফাজতের নেতাদের। জানা গেছে, হেফাজতের কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব মামুনুল হককে আটকের পর ভয় পেয়েছেন হেফাজতের কেন্দ্রীয় নেতারা। তারা বাঁচার চেষ্টা করছেন। এরই অংশ হিসেবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামালের সঙ্গে বৈঠক করেছেন হেফাজতে ইসলামের শীর্ষ নেতারা। সোমবার রাত ১০টার দিকে হেফাজতের ১২ শীর্ষ নেতা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর ধানমন্ডির বাসায় ঢোকেন। রাত ১২টার দিকে তারা বেরিয়ে আসেন।

হেফাজতের কেন্দ্রীয় প্রচার সম্পাদক জাকারিয়া নোমান জানান, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকে তাদের ১২ জন নেতা অংশ নেন। বৈঠকে অংশ নেওয়া হেফাজতের শীর্ষ নেতাদের মধ্যে ছিলেন সংগঠনের নায়েবে আমীর আতাউল্লাহ হাফেজী, হেফাজতের মহাসচিব নূরুল ইসলাম জেহাদী, মামুনুল হকের ভাই বেফাকের মহাসচিব মাহফুজুল হক, অধ্যক্ষ মিজানুর রহমান, হাবিবুল্লাহ সিরাজী প্রমুখ।

এদিকে সোমবার হেফাজতের আমির জুনায়েদ বাবুনগরী তার কর্মীদের উদ্দেশ্যে বলেছেন, ‘আপনারা কোনও সংঘাতে যাবেন না। কোনও জ্বালাও পোড়াও করবেন না। হেফাজতে ইসলাম ভাংচুর আর জ্বালাও পোড়াওতে বিশ্বাস করে না। বরং হারাম মনে করে।’ সোমবার নিজ নামে খোলা (আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী) ফেসবুক পেজে এক ভিডিও বার্তায় তিনি এই নির্দেশনা দেন।

রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন, হেফাজত দেশব্যাপী তাণ্ডব চালিয়েছে। তখন তাদের নেতারা গরম গরম কথা বলেছে। তারা ভেবেছিলো, সরকার পতন হয়ে যাবে। তাদের পেছনে স্বাধীনতাবিরোধী শক্তি জামায়াত-বিএনপি থাকায় তারা এত সাহস পেয়েছিল। কিন্তু বিএনপি যখন দেখল, হেফাজতের তাণ্ডবে সরকারের কিছুই হয়নি তখন তারা পাশ কেটেছে। এখন হেফাজত পড়েছে বিপদে। সহিংসতার দায়ে একে একে নেতারা গ্রেপ্তার হওয়ায় কেন্দ্রীয় নেতারা ভয়ে পড়েছেন। তাই সরকারের সাথে আপোষ করে টিকে থাকতে চাইছেন।

হেফাজতের মত মৌলবাদীদের ছাড় দেওয়া যাবে না বলে মত দেন তবে রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা। তারা বলেন, হেফাজতের মত ধর্ম ব্যবসায়ীরা সুযোগের অপেক্ষায় থাকে। এখন ছাড় দিলে আবার সময়মত মাথা চারা দেবে। স্বাধীনতাবিরোধী জামায়াত যেমন একাত্তরে মানবতাবিরোধী কাজ করে ডুব দিয়েছিল, পরে আবার সময়মত আসল রূপে ফিরে এসেছিল। হেফাজত তেমনিভাবেই ফিরে আসবে। তাই এদের সুযোগ দেওয়া যাবে না। দেশকে অসাম্প্রদায়িক ধারায় রাখতে এবং উন্নয়নের পথে এগিয়ে নিতে এসব অপশক্তিকে শক্ত হাতে দমন করতে হবে। কোনভাবেই ছাড় দেওয়া যাবে না।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি