মঙ্গলবার ১১ মে ২০২১



হেফাজতকে অর্থায়নে বিএনপির মৌন সম্মতি


বাংলা নিউজ ব্যাংক :
25.04.2021

নিউজ ডেস্ক : আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এবং তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, হেফাজতের গ্রেফতার হওয়া নেতারা মুখ খুলতে শুরু করেছেন। তারা ইতোমধ্যেই স্বীকার করেছেন কোথায় কখন কার বাসায় বৈঠক হয়েছে, কারা অর্থায়ন করেছে।

মন্ত্রী বলেন, আপনারা দেখেছেন ভারতের ইকনোমিক টাইমস ও বাংলাদেশের কয়েকটি পত্রিকায় প্রকাশিত প্রতিবেদনে এসেছে, ২৬ থেকে ২৮ মার্চ সারাদেশে হেফাজতের ব্যানারে যে তাণ্ডব চালানো হয়েছে সেখানে বিএনপি-জামায়াত সক্রিয় অংশ নিয়েছে, দিয়েছে অর্থ যোগান এবং পাকিস্তানি গোয়েন্দা সংস্থা সাহায্য করেছে।

শনিবার দুপুরে রাজধানীর মিন্টো রোডের বাসভবন থেকে অনলাইনে মন্ত্রী তার নির্বাচনী এলাকা রাঙ্গুনিয়ায় নিজের পক্ষ থেকে দুই হাজার স্বল্প আয়ের মানুষের মাঝে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ উদ্বোধনের পর সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন।

এদিকে তথ্য মন্ত্রীর কথার ওপর ভিত্তি করে বিএনপি কি আদৌ তাণ্ডব চালাতে হেফাজতকে অর্থ দিয়েছে কিনা, তার উত্তর জানতে কথা হয় বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের সঙ্গে। তিনি বলেন, বিষয়গুলো অনেক পুরনো। এখন এসব বিষয়ে কথা বলার প্রয়োজন আছে বলে মনে করছি না। করোনাকালীন সময় মানুষ লকডাউনের কারণে অনেক কষ্টে আছে। এছাড়া দেশে প্রচণ্ড গরম পড়েছে। দেশে অতিরিক্ত কলকারখানা গড়ে ওঠার কারণে আজ বাংলাদেশে এতো গরম পড়ছে। আর এ কারণে বিএনপি নেতাদেরসহ দেশের মানুষের এসির বিল দিতে গিয়ে অনেক টাকার বিদ্যুৎ বিল দিতে হয়। সরকারের উচিত এ বিষয়ে নজর দেয়া।

এরপর হেফাজতের তাণ্ডবে বিএনপির অর্থায়ন আছে কি না, এ বিষয়ে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়ের সঙ্গে কথা বলতে গেলে তিনি কোনো কথা বলতে রাজি হননি। স্থায়ী কমিটির অপর সদস্য মির্জা আব্বাস শারীরিক অসুস্থতার দোহাই দিয়ে কথা বলতে অস্বীকৃতি জানান।

বিষয়টির ব্যাখ্যা চেয়ে বিএনপিপন্থী বুদ্ধিজীবী জাফরুল্লাহ চৌধুরীর সঙ্গে কথা হলে তিনি বলেন, হেফাজত একটি উগ্রপন্থী মাথা মোটা দল। যেহেতু বিএনপি নেতারা এ বিষয়ে স্পষ্ট ভাবে কথা বলছেন না সেহেতু ধরে নেয়া যায়, তাদের নেতাকর্মী হেফাজতকে অর্থ দিয়ে থাকতে পারেন।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি