বৃহস্পতিবার ১৭ জুন ২০২১



তবে কি হাল ছেড়ে দিয়েছে বিএনপি?


বাংলা নিউজ ব্যাংক :
03.05.2021

খালেদা ও তারেক

নিউজ ডেস্ক : দেশের অন্যতম রাজনৈতিক দল হয়েও ভরসা করতে না পেরে সরে যাচ্ছেন অসংখ্য সিনিয়র নেতারা। ইতিমধ্যে দল থেকে পদত্যাগ করেছেন এম মোর্শেদ খান, মোসাদ্দেক আলী ফালু ও ইনাম আহমেদ চৌধুরী। এর মধ্যে আওয়ামী লীগে যোগ দিয়েছেন ইনাম আহমেদ। এছাড়া দুই ভাইস চেয়ারম্যান সেলিমা রহমান ও ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকুকে স্থায়ী কমিটিতে পদোন্নতি দেওয়া হয়েছে। এর বাইরে দীর্ঘদিন অসুস্থ আছেন ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ আল নোমান।

দলটির বর্তমান মেয়াদোত্তীর্ণ কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সর্বোচ্চ নীতিনির্ধারণী ফোরাম স্থায়ী কমিটির সদস্যসহ দলের বিভিন্ন সম্পাদকীয় পদ ফাঁকা রয়েছে। মূলত নেতাদের মৃত্যু, পদত্যাগ, অন্য দলে যোগদান কিংবা পদোন্নতির কারণে অর্ধশতাধিক পদ বছরের পর বছর শূন্য থাকলেও তা পূরণের কোনো উদ্যোগ নেই। এ নিয়ে অনেকের মধ্যে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। তারা বলছেন, বিএনপি কি যোগ্য নেতৃত্বের অভাবে শূন্য পদগুলো পূরণ করতে পারছে না?

দলটির শীর্ষ নেতারা বলছেন, বিএনপির গঠনতন্ত্রে শূন্য পদ পূরণ করতেই হবে— এমন কোনো বাধ্যবাধকতা নেই। সাধারণত কাউন্সিলের মাধ্যমে কমিটি গঠন হয়। পরবর্তীতে শূন্য পদগুলো পূরণ হয়। কাউন্সিলে দলের চেয়ারপারসনকে সব ক্ষমতা দেওয়া হয়েছে। তিনি চাইলে যেকোনো সময় যে কাউকে দলে পদায়ন করতে পারেন। শূন্য পদগুলো পূরণের উদ্যোগও নিতে পারেন। অর্থাৎ পুরো বিষয়টি নির্ভর করছে দলের চেয়ারপারসনের সিদ্ধান্তের ওপর।

দলীয় সূত্রে জানা গেছে, বর্তমানে বিএনপির ১৯ সদস্যের স্থায়ী কমিটির পাঁচটি পদ ফাঁকা। স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, এম কে আনোয়ার, হান্নান শাহ ও তরিকুল ইসলাম মারা গেছেন। স্থায়ী কমিটির সদস্য লে. জেনারেল (অব.) মাহবুবুর রহমান দল থেকে পদত্যাগ করেছেন। শারীরিক অসুস্থতার কারণে গত দুই বছরের বেশি সময় ধরে স্থায়ী কমিটির বৈঠকে অংশ নিতে পারছেন না ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলাম মিয়া। এছাড়া দীর্ঘদিন অনুপ্রবেশের দায়ে ভারতে আটক আছেন স্থায়ী কমিটির অপর সদস্য সালাহ উদ্দিন আহমেদ। এ হিসাবে স্থায়ী কমিটির সাতটি পদই এখন অকার্যকর।

৩০ সদস্যের ভাইস চেয়ারম্যান পদের মধ্যে বর্তমানে ১৩টি ফাঁকা রয়েছে। এর মধ্যে কেউ মারা গেছেন, কেউ আবার দল থেকে পদত্যাগ করেছেন। অন্যরা অসুস্থ কিংবা বিদেশে পলাতক থাকায় রাজনীতিতে নিষ্ক্রিয়। মারা গেছেন সাদেক হোসেন খোকা, ব্যারিস্টার মো. আমিনুল হক, আবদুল মান্নান, চৌধুরী কামাল ইবনে ইউসুফ, মেজর জেনারেল (অব.) রুহুল আলম চৌধুরী। এছাড়া দীর্ঘদিন ধরে বিদেশে পলাতক আছেন কাজী শাহ মোফাজ্জল হোসেন (কায়কোবাদ), ড. ওসমান ফারুক ও শাহজাহান সিরাজ।

বিষয়গুলো বিএনপিকে চরমভাবে বিব্রত করছে বলে জানিয়ে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক দলটির এক ভাইস চেয়ারম্যান বলেন, যোগ্য নেতৃত্বের অভাবের পাশাপাশি দলের শীর্ষ নেতাদের ইচ্ছার অভাবে বিএনপির শূন্য পদগুলো পূরণ হচ্ছে না। আমাদের দলের নেতারা তো এখন একে-অপরের বিরুদ্ধে বিষোদগারে ব্যস্ত। স্থায়ী কমিটির সদস্য হওয়ার মতো কয়েকজন নেতা দলে আছেন। কিন্তু তারা কেউ আঞ্চলিকতা, কেউ সংস্কারপন্থী হওয়ায় দলের মধ্যে কোণঠাসা হয়ে আছেন। বোঝাই যাচ্ছে আমরা হাল ছেড়ে দিয়েছি। এমন চলতে থাকলে আগামী ২০-৫০ বছরেও ক্ষমতায় আসা সম্ভব না।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি