শুক্রবার ১৮ জুন ২০২১
  • প্রচ্ছদ » Lead 2 » খালেদা জিয়ার অবস্থার উন্নতি, স্বপ্নভঙ্গের বেদনায় মুষড়ে পড়েছেন মির্জা ফখরুল!



খালেদা জিয়ার অবস্থার উন্নতি, স্বপ্নভঙ্গের বেদনায় মুষড়ে পড়েছেন মির্জা ফখরুল!


বাংলা নিউজ ব্যাংক :
19.05.2021

ডেস্ক রিপোর্ট: রাজধানীর এভারকেয়ার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থার উন্নতি হয়েছে। বুধবার ১০ সদস্যের মেডিকেল টিম বৈঠক করে খালেদা জিয়ার ফুসফুসের পানি বের করার জন্য বুকের দুটি পাইপের মধ্যে বাম পাশেরটি খুলে ফেলেছে। মেডিকেল বোর্ডের একজন চিকিৎসক এমনটাই জানিয়েছেন। খালেদা জিয়ার চিকিৎসক ও বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ডা. এজেডএম জাহিদ হোসেন বলেন, বিএনপি চেয়ারপারসনের শারীরিক অবস্থার উন্নতি ঘটায় চিকিৎসকরা একটি পাইপ খুলে ফেলেছেন। এদিকে খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থায় উন্নতির সংবাদে নিজের স্বপ্নভঙ্গের বেদনায় মুষড়ে পড়েছেন দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

সূত্র জানায়, বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া করোনা আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তির পর থেকেই ফুরফুরে মেজাজে ছিলেন দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল। দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান দুর্নীতির দায়ে দণ্ডপ্রাপ্ত তারেক রহমান লন্ডনে পলাতক, এই অবস্থায় খালেদা জিয়ার মৃত্যু হলে দেশে বসে বিএনপিতে একাই ছড়ি ঘোরানোর স্বপ্ন দেখছিলেন মির্জা ফখরুল। এজন্য খালেদা জিয়ার অবস্থার অবনতি হলে পরিবারের সদস্যরা যখন তাকে বিদেশে চিকিৎসা করানোর জন্য সরকারের কাছে আবেদন করেছিলেন তখনও তার বিরোধিতা করেন মির্জা ফখরুল। খালেদা সুস্থ হয়ে দেশে আসলে দলে তার প্রভাব কমে যাওয়ার ভয়েই বিদেশযাত্রার বিরোধিতা করেন। এদিকে বিদেশে না গিয়ে খালেদা হাসপাতালে থাকায় দলে একক ক্ষমতা ভোগ করছিলেন ফখরুল। মির্জা ফখরুলের ঘনিষ্ঠ ঠাকুরগাঁও জেলা বিএনপির এক নেতা জানান, মহাসচিব আমাদের বলেছেন, দলে এখন তার একক ক্ষমতা। তারেক রহমান পলাতক, খালেদা জিয়া অসুস্থ, দলের সব সিদ্ধান্ত আমাকেই নিতে হচ্ছে। গত দুই দিন ধরে মির্জা ফখরুল ঠাকুরগাঁওয়ে বেশ খোশ মেজাজে থাকলেও আজ খালেদা জিয়ার অবস্থার উন্নতির খবরে তিনি একটু বিমর্ষ হয়ে পড়েছেন।

জানা গেছে, এভারকেয়ার হাসপাতালের হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ ডা. শাহাবুদ্দিন তালুকদারের নেতৃত্বে ১০ সদস্যের একটি মেডিকেল বোর্ডের তত্ত্বাবধায়নে খালেদা জিয়ার চিকিৎসা চলছে। বোর্ডের একজন চিকিৎসক জানান, খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা ধীরে ধীরে উন্নতি ঘটছে। ফুসফুসে জমা পানি বের করার জন্য খালেদা জিয়ার বুকের দুই পাশে দুটি পাইপ বসানো হয়েছিল। ফুসফুসে পানি জমাটা অনেকটা নিয়ন্ত্রণ করতে সক্ষম হওয়ায় তারা আপাতত বাম পাশের পাইপটি খুলে নিয়েছেন। এখন তারা পর্যবেক্ষণ করবেন, আদৌ আর পানি জমা হয় কি-না। এটার ওপর নির্ভর করে অপর পাইপটিও তারা খুলে ফেলবেন।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেন, মির্জা ফখরুল সাহেব দুই দিন ধরে ঠাকুরগাঁওয়ে কি করছেন আমি জানি না। দলের চেয়ারপারসনের সুস্থতার খবরে তো তার খুশি হওয়া উচিত। অবশ্য মির্জা ফখরুল সাহেবকে তারেক রহমান দাম দেন না, তিনি রিজভী সাহেবকে বেশি মূল্যায়ন করেন। এই জন্য তার মধ্যে ক্ষোভ থাকতেও পারে।

বিশ্লেষকরা বলছেন, বিএনপি সুবিধাবাদীদের দল। এই দলে কেউ জনগণের জন্য কাজ করতে আসেন না। সবাই সবার আখের গোছাতে ব্যস্ত থাকেন। তারেকের মত দুর্নীতিবাজ নেতা যে দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান সেই দলের মহাসচিবও লোভী হবেন এটা খুবই স্বাভাবিক। খালেদা জিয়ার মৃত্যুর সাথে সাথে বিএনপি কয়েক টুকরা হয়ে যাবে বলে জানান বিশ্লেষকরা। তাদের মতে, মির্জা ফখরুলরা শুধুমাত্র খালেদার মৃত্যুর জন্য অপেক্ষা করছেন। খালেদার মৃত্যু সংবাদ পাওয়া মাত্রই মির্জা ফখরুলরা যার যার বিএনপি গঠন করবেন, তারেকের কথাও কেউই শুনবেন না। এই দলের ভবিষ্যৎ বলে আর কিছুই বাকি নেই।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি