শুক্রবার ১৮ জুন ২০২১



বিএনপির ঘরের শত্রু বিভীষণ


বাংলা নিউজ ব্যাংক :
25.05.2021

নিউজ ডেস্ক : সর্বমোট চার চারবার জামিন আবেদন খারিজ হয়েছে প্রমাণিত দুর্নীতি মামলায় কারান্তরীণ বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার। আর এর নেপথ্য কারণ, তার আইনজীবীদের চরম অনাগ্রহ, দলীয় কোন্দল, কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের দুর্বলতা ও পারিবারিক বিভক্তি। একপক্ষ খালেদার মুক্তির দাবিতে কিছুটা সরব হলেও অপরপক্ষ দেখাচ্ছে গা-ছাড়া ভাব। এমতাবস্থায় দলীয় জ্যেষ্ঠজনরা পড়েছেন দ্বিধাদ্বন্দ্বে।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, তিন বছরেরও অধিক সময় ধরে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া দুর্নীতি মামলার শাস্তি ভোগ করছেন। এই দীর্ঘসময়ে পরিবার ও তার দলের পক্ষ থেকে লক্ষণীয় কোনো তৎপরতা দেখা যায়নি। এমনকি তার মুক্তির দাবিতে ঘোষণা করা হয়নি কোনো কঠোর রাজনৈতিক কর্মসূচিও। যা দু’একটা নামসর্বস্ব হরতাল-বিক্ষোভ-সমাবেশ হয়েছে, সেখানেও দলীয় নেতাকর্মীরা অনাগ্রহ দেখিয়ে উপস্থিত হননি। এমনকি যে ক’জনা এসেছিলেন তারা ছিলেন খোশগল্প, সেলফি তোলা ও ফেসবুকিংয়ে মত্ত। অর্থাৎ খালেদার মুক্তির আন্দোলনে দলের তৃণমূলের পাশাপাশি যে কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দেরও নিদারুণ অবহেলা ছিলো, তা আর নতুন করে বলার অপেক্ষা রাখে না। খালেদা জিয়ার পরিবারের ক্ষেত্রেও দেখা গেছে একই চিত্র, গায়ে বাতাস লাগিয়ে ফুরফুরে থাকার মনোভাব।

এ ব্যাপারে খালেদা জিয়ার বোন সেলিমা ইসলাম এ প্রতিবেদককে বলেন, পরিবারের সবাই বসে দেখি কী করা যায়! তাছাড়া বেগম জিয়ারও একটা মতামত আছে। সেটাকেও পায়ে ঠেলা যাবে না। তাই এ অবস্থা থেকে উত্তরণে এখন আমাদের বসতে হবে, আলোচনা করতে হবে। তবে হ্যাঁ, একটু সময় তো লাগবেই।

এদিকে, কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের দুর্বলতার জেরে খালেদা জিয়ার মুক্তি নিয়ে সিদ্ধান্তহীনতায় বিএনপি। তারা নিজেরাই বুঝতে পারছেন না কী করবেন, কী করে নিজেদের ব্যর্থতা ঢাকবেন।

এ বিষয়ে খালেদার আইনজীবী খন্দকার মাহবুব হোসেন বলেন, দলের কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের দুর্বলতায় কোনো আন্দোলনেই খালেদা জিয়ার মুক্তি সম্ভব না। তাই আমরা ঠিক বুঝতে পারছি না, আমাদের কী করণীয়। এ কারণে উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশ নিতে চেয়ে চ্যারিটেবল দুর্নীতি মামলায় বেগম জিয়ার জামিন খারিজের পর পরবর্তী আইনি প্রক্রিয়া নিয়েও আমরা দ্বিধাদ্বন্দ্বে।

বিএনপির হাইকমান্ড বলছে, চেষ্টার তো কোনো ত্রুটি রাখিনি ম্যাডামের (খালেদা জিয়ার) মুক্তির বিষয়ে। তৃণমূলেও সেভাবে নির্দেশনা দেয়া হয়েছিলো। কিন্তু তা সম্ভব হয়ে ওঠেনি। এমনকি দলের ডাকা হরতাল-বিক্ষোভ-সমাবেশেও তাদের উপস্থিতি শূন্যের কোঠায় থাকায় এখন আমরা সর্বোচ্চ পর্যায়ের দ্বিধা-দ্বন্দ্বে ভুগছি।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি