শুক্রবার ২৫ জুন ২০২১
  • প্রচ্ছদ » Lead 3 » দেয়ালে পিঠ ঠেকা বিএনপি জানে না তার ভবিষ্যৎ



দেয়ালে পিঠ ঠেকা বিএনপি জানে না তার ভবিষ্যৎ


বাংলা নিউজ ব্যাংক :
28.05.2021

নিউজ ডেস্ক : একের পর এক নির্বাচনে হারের পর করোনার অজুহাতে ঘরে বসে থাকা বিএনপি কর্মীদের চরম হতাশা দেখা দিয়েছে বলে জানা গেছে। অনেকেই দল ত্যাগের মত কঠিন সিদ্ধান্তে উপনীত হচ্ছেন। এমতাবস্থায় দলীয় নীতিনির্ধারকরা সরকারের সঙ্গে সমঝোতার চেষ্টা করছেন। নির্ভরযোগ্য একটি সূত্র এ তথ্য নিশ্চিত করেছে।

সূত্রটি জানায়, বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান লন্ডনে বসে আয়েশি জীবন যাপন করছেন। আর এর পেছনে ব্যয় হচ্ছে বিপুল পরিমাণ অর্থ। সেই অর্থের যোগান দিতে তিনি পদ ও মনোনয়ন বাণিজ্য করে মোটা অংকের অর্থ হাতিয়ে নিচ্ছেন বলে গুঞ্জন রয়েছে। আর এই পদ ও মনোনয়ন বাণিজ্য করতে গিয়ে তিনি অনেক যোগ্য ও ত্যাগী নেতাকে পদ ও মনোনয়ন-বঞ্চিত করছেন। যার ফলে দলের মধ্যে বিভক্তি চরম আকার ধারণ করেছে। উপরন্তু রয়েছে দলের জ্যেষ্ঠ নেতাদের ‘গাছাড়া’ মনোভাব। তারা দলের চেয়ে নিজের ব্যবসা-বাণিজ্য নিয়ে ব্যস্ত সময় পার করছেন। যে কারণে দলের সাংগঠনিক দুর্বলতা এখন তুঙ্গে। মিছিল-মিটিং-সমাবেশ বলে আর কিছুই নেই বিএনপির। যার ফলে অনেকটা অলস সময় পার করছেন দলের তৃণমূল থেকে কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ।

তৃণমূলের বিএনপি কর্মীরা জানায়, বিএনপির স্থানীয় কার্যালয়গুলোতে কোন কার্যক্রম নেই। নেই ইউনিয়ন পর্যায়েও দলকে পুনর্গঠনের কোন উদ্যোগ। সীমাহীন অবসরে কাটে তাদের সময়। অধিকাংশই নিজেদের ব্যবসা-বাণিজ্য ও পরিবার নিয়ে ব্যস্ত। দল নিয়ে কিঞ্চিৎ মাথা ব্যথাও নেই তাদের। এর পেছনে অন্যতম কারণ দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের স্বেচ্ছাচারিতা ও দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার কারাবাসে থাকা।

নেতাকর্মীদের ভাষ্য, খালেদা জিয়া বাইরে থাকলে আর কিছু না হোক, রাজনৈতিক কর্মসূচিগুলো ডাকা হতো। আর সেগুলো পালনও করা হতো। কিন্তু তারেক রহমানের হাতে দায়িত্ব যাওয়ার পর থেকেই এসব যেন জাদুঘরে চলে গেছে।

দলীয় নীতিনির্ধারকরা বলছেন, বিএনপির দেয়ালে পিঠ ঠেকে গেছে। এখন আর করার কিছু নেই। খালেদা জিয়াকে মুক্ত করতে হলে এবং দলকে বাঁচাতে হলে এখন সরকারের সঙ্গে সমঝোতা করা ছাড়া অন্য কোন পথ খোলা নেই সামনে। কারণ বিএনপিপন্থী আইনজীবীরা খালেদার মুক্তির ব্যাপারে ইতোমধ্যে অনাগ্রহ দেখিয়েছেন। তাই আমাদেরকে নিজেদের অস্তিত্ব রক্ষার স্বার্থে হলেও সরকারের শরণাপন্ন হয়ে মীমাংসায় যেতে হবে।

এদিকে বিএনপির বিক্ষুব্ধ একটি অংশ বলছে, দলের বড় একটি অংশ সরকারের অনেক নেতাকর্মীর সঙ্গে গোপনে দেখা- সাক্ষাৎ করছেন এবং নিজেদেরকে সেফ জোনে রাখতে সমস্ত কৌশল অবলম্বন করছেন। যেটা রাজনৈতিক বেঈমানির শামিল।

রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন, বিএনপি এখন তাদের অতীত কর্মকাণ্ডের ফল ভোগ করছে। এ কারণে আজ তাদের এই হাল। দলের চেয়ারপারসন দুর্নীতির দায়ে কারাভ্যন্তরে, ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান দেশছাড়া। সাংগঠনিক কর্মকাণ্ডও ভঙ্গুর অবস্থায়। নেতাকর্মীরা ইতোমধ্যে দলবিমুখ হয়ে অন্যত্র চলে যাচ্ছেন। যেটা একটা রাজনৈতিক দলের জন্য অশুভকর বার্তা। এমতাবস্থায় দলের একটি মহল সরকারের সঙ্গে সমঝোতার পথে পা বাড়াতে চাইছে, যেটা থেকে সহজেই অনুমেয়-বিএনপি মেরুদণ্ডহীন একটি দল। যার কোন সক্ষমতা নেই।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি