শুক্রবার ১৮ জুন ২০২১
  • প্রচ্ছদ » Lead 3 » জিয়ার অবৈধ হ্যাঁ-না ভোট নিয়ে বেরিয়ে এলো যে তথ্য



জিয়ার অবৈধ হ্যাঁ-না ভোট নিয়ে বেরিয়ে এলো যে তথ্য


বাংলা নিউজ ব্যাংক :
04.06.2021

নিউজ ডেস্ক: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয় দীর্ঘদিন পর রাজনৈতিক বিষয় নিয়ে তাঁর নিজস্ব ভেরিফাইড ফেসবুক পেজে একটি স্ট্যাটাস দিয়েছে।

আমাদের পাঠকদের জন্য স্ট্যাটাসটি হুবুহু তুলে ধরা হলো:

বঙ্গবন্ধুকে নির্মমভাবে সপরিবারে হত্যার পর অবৈধভাবে রাষ্ট্রীয় ক্ষমতা দখল করে তা পাকাপোক্ত করতে ন্যাক্কারজনকভাবে হ্যাঁ/না ভোটের আয়োজন করেন জেনারেল জিয়া। লোকদেখানো সেই হ্যাঁ/না ভোটের আগে কোনো মিটিং মিছিল পর্যন্ত হয়নি। ছিল না পরিচিতি ও প্রচারের ব্যবস্থা। রাস্তাঘাটে রিকশা-বাসে এবং মানুষের ব্যক্তিগত যানবাহনে জোর করে সামরিক পোশাক পরিহিত জেনারেল জিয়ার পোস্টার সাঁটিয়ে প্রচারণার নামে একধরণের আতঙ্ক সৃষ্টি করা হয়।

ভোটের দিন ভোটারবিহীন ভোটকেন্দ্রে মানুষ খুঁজে না পেয়ে শেষ পর্যন্ত অনেক শিশুকেও জোর করে ভোট দিতে নিয়ে যাওয়া হয়। দিন শেষে ঘোষণা আসে, ৯৯.৪ ভাগ ভোট পেয়ে একচেটিয়াভাবে জয় লাভ করেছেন জেনারেল জিয়া! তার বিপক্ষে কেউ ভোট দেয়নি!! এই হাস্যকর নির্বাচন এবং এর আগের-পরের ঘটনাপ্রবাহ বাঙালির ইতিহাসের অমোচনীয় কলঙ্কময় অধ্যায়।

১৯৭১ সালেও জিয়াউর রহমান মূলত ছিলেন একজন মেজর। ১৯৭৫ সালের মধ্যেই তিনি মেজর জেনারেল এবং উপ-সেনাপ্রধানের পদ পেয়েও সন্তুষ্ট হতে পারলেন না। দুই চোখের লাগামহীন উচ্চাভিলাষী দৃষ্টি গোপন রাখতে সবসময় কালো চশমা পরতেন এই খুনি জেনারেল।

উপ-সেনাপ্রধান হওয়ার পর নিজে রাষ্ট্রক্ষমতা দখলের জন্য সদ্য স্বাধীন বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠাতা জাতির পিতা ও রাষ্ট্রপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে হত্যার মদদ দিলেন। এরপর হত্যা করেন সামরিক বাহিনীর শতাধিক মুক্তিযোদ্ধা সেনাসদস্যকে। অবশেষে নিজেকে জেনারেল ও সেনাপ্রধান ঘোষণা করে প্রধান সামরিক আইন প্রশাসক হিসেবে রাষ্ট্রযন্ত্রের দখল নিতে থাকেন। মার্শাল ল অর্ডিন্যান্স জারি করে দেশে রাজনীতি নিষিদ্ধ করেন। বন্দি করেন রাজনীতিবিদদের। একপর্যায়ে অস্থায়ী রাষ্ট্রপতির দায়িত্বে থাকা বিচারপতি সায়েমকে অস্ত্রের মুখে সরিয়ে দিয়ে নিজেকে রাষ্ট্রপতি ঘোষণা করেন।

এরপর সংবিধান এবং সেনা আইনকে বুড়ো আঙ্গুল দেখিয়ে ১৯৭৭ সালের ৩০ মে হ্যাঁ/না ভোটের আয়োজন করেন এবং একাই সেই ভোটে অংশ নেন। থমথমে পরিবেশে ভোটারবিহীন সেই নির্বাচনের উপস্থিতি দেখানো হয় ৮৮ ভাগ, যার মধ্যে প্রায় শতভাগ ভোটই জিয়ার পক্ষে (৯৯.৪ ভাগ) পড়েছে বলে ঘোষণা করা হয়। অতঃপর রাষ্ট্রীয় প্রবিধানকে পাশ কাটিয়ে সেনাপ্রধান ও রাষ্ট্রপতির দায়িত্বে থাকা অবস্থাতেই নিয়মবর্হিভূতভাবে গঠন করেন রাজনৈতিক দল ‘বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল (বিএনপি)’। সেই দলের হয়ে ১৯৭৮ সালের তথাকথিত রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে অংশ নেন এবং নিজেকে বিজয়ী ঘোষণা করেন। এই নির্বাচনে জিয়া কোনো কোনো এলাকায় ১২০ ভাগ ভোট পেয়েছেন বলেও বিভিন্ন বিদেশি গণমাধ্যম প্রতিবেদন প্রকাশ করে।

জেনারেল জিয়ার রাজনৈতিক দল গঠন সম্পর্কে পাকিস্তানের দি হেরাল্ড পত্রিকার প্রতিবেদনে বলা হয়, ‘বিএনপি জন্ম ছিল পাকিস্তানি গোয়েন্দা সংস্থার নীলনকশার ফলশ্রুতি।… এই দলের জন্য যে দর্শন নির্ধারণ করা হয় তা হলো: আওয়ামী লীগের দুর্বল স্থানে আঘাত করা এবং জনগণের মধ্যে ভারতবিরোধী মনোভাব জাগ্রত করা।… নিন্দিত আওয়ামী লীগার, চরম বামপন্থী ও মুসলিম লীগারদের নিয়ে দলের জনবল বাড়ানো হয়।’



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি