বুধবার ২৮ জুলাই ২০২১
  • প্রচ্ছদ » Lead 3 » খালেদা জিয়ার অসুখ নিয়ে লুকোচুরি করছে বিএনপি!



খালেদা জিয়ার অসুখ নিয়ে লুকোচুরি করছে বিএনপি!


বাংলা নিউজ ব্যাংক :
08.06.2021

নিউজ ডেস্ক: বেগম জিয়ার অসুস্থতা নিয়ে এক ধরণের লুকোচুরি করছে বিএনপি। প্রথমে বলা হয়েছিল তিনি করোনার পরীক্ষা করেছেন, পরে বলা হয়েছে তিনি করোনা পরীক্ষা করেননি। এরপর যখন করোনা পরীক্ষার ফলাফল এলো তখন বলা হলো বেগম জিয়া করোনায় আক্রান্ত নন। পরে দেখা গেলো যে গত ১১ এপ্রিল তিনি করোনায় আক্রান্ত।

করোনায় আক্রান্ত হওয়ার পর বলা হলো তার অবস্থা স্থিতিশীল। কিন্তু এরপরই ১৪ এপ্রিল খালেদা জিয়ার সিটি স্ক্যান করার পর বলা হলো যে, ফুসফুসে সামান্য সংক্রমণ ধরা পড়েছে। পরবর্তীতে যখন ২৮ এপ্রিল হাসপাতালে দ্বিতীয়বার পরীক্ষা করা হলো তখন বলা হলো, ফুসফুস ভালো আছে। এরপর দেখা গেলো, বেগম জিয়াকে হাসপাতালে ভর্তি করা হলো। এরপর ৩ মে শ্বাসকষ্ট দেখা দিলে বেগম জিয়াকে সেখান থেকে সিসিইউতে (করোনারি কেয়ার ইউনিট) নেয়া হলো। এরপর সিসিইউ থেকে গত বৃহস্পতিবার (৩ জুন) তাকে কেবিনে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

বেগম জিয়ার প্রকৃত শারীরিক অবস্থা কি এই নিয়ে এখনো ধোঁয়াশা কাটেনি। তার অসুস্থতা নিয়ে এক ধরণের ধুম্রজাল আছে। কেউ সঠিকভাবে বলছে না যে বেগম জিয়ার শারীরিক অবস্থা কি। বিভিন্ন সূত্রগুলো বলছে যে, বেগম জিয়ার অন্তত দুইটি জটিল রোগের অনুমান করা হচ্ছে। তার কিডনির অবস্থা ভাল নয়। এছাড়াও তার আরেকটি দুরারোগ্য ব্যাধির আশংকা করছেন চিকিৎসকরা। কিন্তু তার এই অসুস্থতা নিয়ে কেউই মুখ খুলছেন না।

প্রথমত, তারা মনে করছেন যে, যদি তার বড় ধরণের অসুস্থতার কথা বলা হয় তাহলে নেতাকর্মীরা হতাশ হয়ে পড়বে। এটা তাদের জন্য একটি হতাশার কারণ হবে। দ্বিতীয়ত তারা মনে করছেন যে, যদি খালেদা জিয়া গুরুতর অসুস্থতার কথা প্রকাশ হয়ে যায় তাহলে তার বিদেশ যাত্রার বিষয়টিও সফল হবে না। কারণ, সেক্ষেত্রে সরকার হয়তো বলবে যে, গুরুতর অসুস্থ রোগীর চিকিৎসা এখানেই হোক, বিদেশে যাওয়ার দরকার নেই।

আমরা শুরু থেকেই দেখছি যে, বেগম জিয়ার চিকিৎসা নিয়ে এক ধরণের ধুম্রজাল, মিথ্যাচার এবং পরস্পর বিরোধী কথাবার্তা। খালেদা জিয়া বাংলাদেশের দুইবারের প্রধানমন্ত্রী ছিলেন এবং বিরোধী দলের নেত্রী ছিলেন দুইবার। কাজেই তার শারীরিক অবস্থার প্রকৃত তথ্য সকলেরই জানা উচিৎ।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি