বৃহস্পতিবার ১৭ জুন ২০২১



নিষ্ক্রিয় মির্জা আব্বাস, ছাড়তে পারেন রাজনীতি


বাংলা নিউজ ব্যাংক :
09.06.2021

নিউজ ডেস্ক : বিএনপি নেতা ইলিয়াস আলীর ‘গুমের’ পেছনে দলের ভেতরে থাকা কয়েকজন নেতাকে দুষেছিলেন বিএনপি স্থায়ী কমিটির অন্যতম সদস্য মির্জা আব্বাস। এতে বিএনপি হাইকমান্ড থেকে মির্জা আব্বাসকে কারণ দর্শানোর নোটিশ পাঠানো হয়। বর্তমানে সে ইস্যু পুরনো হলেও বর্তমান বিএনপিতে প্রভাব কমেছে আব্বাস পরিবারের। যদিও বিএনপির পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে, মির্জা আব্বাসের উক্ত কথা ভুলে গেছে হাইকমান্ড। তবে, কার্যক্রম দিচ্ছে ভিন্ন বার্তা। কোনো প্রকারের সভা সমাবেশে ডাকা হচ্ছে না আব্বাস পরিবারকে। এমতাবস্থায় দলে থাকা না থাকা প্রায় সমান হয়ে গেছে তাদের জন্য। আর এ কারণেই হয়তো দল ছাড়ার ইঙ্গিত দিয়েছে আব্বাস পরিবার। অপরদিকে বিএনপির হাইকমান্ডও আছে শক্ত অবস্থানে।

বিএনপির নীতি নির্ধারণী সূত্র জানায়, ইলিয়াস আলিকে নিয়ে মির্জা আব্বাসের করা বক্তব্য নিয়ে দলের পক্ষ থেকে তিনটি ড্রাফট দেয়া হয়। যা মির্জা আব্বাসের সংবাদ সম্মেলনে উপস্থাপন করার কথা ছিলো। সেখানে তাকে অনুতপ্ত হয়ে বক্তব্য দিতে বলা হয়েছিল। কিন্তু মির্জা আব্বাস সংবাদ সম্মেলনে সেই তিনটি ড্রাফটের কোনো বক্তব্য দেননি। এরপর দলের হাইকমান্ড তার সঙ্গে যোগাযোগ করে তার প্রতি ক্ষোভ প্রকাশ করলেও মির্জা আব্বাস কোনো প্রতিক্রিয়া দেখাননি। এখান থেকেই মির্জা আব্বাসের যাবতীয় সমস্যা শুরু।

বিএনপি মহাসচিব জানায়, দু মাস পেরিয়ে গেলেও মির্জা আব্বাস এখনো দুঃখপ্রকাশ করেনি। দুঃখপ্রকাশ করলে হাইকমান্ড হয়তো বিষয়টি বিবেচনা করতো। কিন্তু তিনি দুঃখপ্রকাশ করতে চাইছেন না। আর এ কারণে মির্জা আব্বাসের সঙ্গে হাইকমান্ডের সম্পর্কের অবনতি ঘটে।

তবে আব্বাস পরিবার বলছে ভিন্ন কথা। তারা জানায় ভিন্ন কোনো উদ্দেশ্যে নয়, স্বেচ্ছায় বিশ্রাম চাইছেন তারা। মূলত বিএনপিতে যারা ত্যাগী, দুঃসময়ের সঙ্গী ছিলো তারা অবমূল্যায়িত হচ্ছেন। এর ফলে মির্জা আব্বাস এবং তার স্ত্রী রাজনীতি করবেন কিনা তা খুব অল্প সময়ের মধ্যে স্পষ্ট করবেন বলেও জানিয়েছেন আব্বাস দম্পতি।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি