বৃহস্পতিবার ১৭ জুন ২০২১
  • প্রচ্ছদ » Lead 2 » বিএনপির সাংগঠনিক কার্যক্রম চালু কতদূর?



বিএনপির সাংগঠনিক কার্যক্রম চালু কতদূর?


বাংলা নিউজ ব্যাংক :
09.06.2021

‘ঈদের পরে আন্দোলন’ শব্দটাই যেন কাল হলো বিএনপির। ঈদের পর ঈদ পেরোলেও হয়নি আন্দোলন। হয়নি চালু সাংগঠনিক কার্যক্রমের চাকাও। অথচ বারবার মিডিয়ার সামনে দলটির পক্ষ থেকে বলা হয়েছে আন্দোলনের কথা। করা হয়েছে হম্বিতম্বি। সম্প্রতি আবারও তারা বলছে, স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতি মাসেই শুরু হবে সব দলীয় কার্যক্রম। প্রত্যুত্তরে রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের ভাষ্য, আদৌ কি ঘুরে দাঁড়াতে পারবে বিএনপি? তাদের কি সেই সক্ষমতা রয়েছে? নাকি ফাঁকা আওয়াজ দিয়ে আবারও তারা গা ঢাকা দেবে?

নির্ভরযোগ্য সূত্রের তথ্যমতে, করোনা পরিস্থিতির শুরু থেকেই জননিরাপত্তায় কাজ করে আসছে আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ। অথচ মানুষের পাশে থাকা তো দূরের কথা, বিএনপি উল্টো গুটিয়ে নিয়েছিলো সাংগঠনিক কার্যক্রম। গত ১ এপ্রিল অনির্দিষ্টকালের জন্য তারা এই স্থগিতাদেশ দেয়। এখন আবার স্বাস্থ্যবিধি মেনে পুনরায় সব কিছু শুরুর পরিকল্পনা করছে বিএনপি, এ মর্মে গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশিত হয়।

এর প্রেক্ষিতে বাংলা নিউজ ব্যাংকের পক্ষ থেকে যোগাযোগ করা হয় দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের সঙ্গে। তিনি এই প্রতিবেদককে বলেন, সাংগঠনিক কার্যক্রম চালুর ব্যাপারে এখনো কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি। তবে লকডাউন উঠলে আমরা সিদ্ধান্ত নেব।

একই কথা বললেন বিএনপির যুগ্ম-মহাসচিব খায়রুল কবির খোকনও। তিনি বলেন, সাংগঠনিক কার্যক্রম চালুর বিষয়ে চূড়ান্ত কোন সিদ্ধান্ত হয়নি। আমাদের নেতারা ভাবছেন।

তবে ভিন্ন কথা বললেন বিএনপির দফতরের দায়িত্বে থাকা সাংগঠনিক সম্পাদক সৈয়দ এমরান সালেহ প্রিন্স। তিনি বলেন, করোনা পরিস্থিতির ওপর নির্ভর করে আমাদের কার্যক্রম চলবে। দলের প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের ৪০তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়েছে। স্বাস্থ্যবিধি মেনে আমরা এসব কর্মসূচি পালন করবো।

বিএনপির আরেকটি অংশও একই সুরে বলছে, ইতোমধ্যে দলের প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে ১৫ দিনব্যাপী কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়েছে। স্বাস্থ্যবিধি মেনে এসব কর্মসূচি বাস্তবায়ন করা হবে। আর এর মাধ্যমে আবারও সাংগঠনিকভাবে তৎপর হবে বিএনপি। সবমিলিয়ে চলতি জুনের দ্বিতীয় বা তৃতীয় সপ্তাহ থেকে মাঠের কর্মসূচিতে নামার পরিকল্পনা রয়েছে, রয়েছে গোপন নির্দেশনাও।

দু’পক্ষের এমন বক্তব্যে বিএনপির অভ্যন্তরীণ সমন্বয়হীনতা ও অনৈক্যের বহিঃপ্রকাশ ঘটেছে উল্লেখ করে দেশের রাজনৈতিক বিজ্ঞজনরা বলছেন, সভা-সমাবেশে বিএনপি নেতারা কেবল ফাঁকা আওয়াজ ছোঁড়েন। বলেন এটা করবেন, সেটা করবেন। কিন্তু বাস্তবে তার সিঁকেভাগেরও প্রতিফলন ঘটেনা। দেশের মানুষ ইতোমধ্যে তার প্রমাণ পেয়েছেন। তারপরও তারা যাতে সাংগঠনিক কার্যক্রম শুরুর নামে দেশের অভ্যন্তরে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির পাঁয়তারা করতে না পারে, নিজের এজেন্ডা বাস্তবায়ন করতে না পারে, সে ব্যাপারে সরকারের পাশাপাশি আমাদের সবাইকে সদা সতর্ক থাকতে হবে।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি