মঙ্গলবার ২৭ জুলাই ২০২১
  • প্রচ্ছদ » Lead 2 » গুম নিয়ে মির্জা আব্বাসের কথায় হাস্যরসের সৃষ্টি!



গুম নিয়ে মির্জা আব্বাসের কথায় হাস্যরসের সৃষ্টি!


বাংলা নিউজ ব্যাংক :
15.06.2021

নিউজ ডেস্ক: গুম-খুনের জন্য সরকারকে দায়ী করে বক্তব্য দিয়ে রাজনৈতিক মহলে হাস্যরসের সৃষ্টি করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস। কিছুদিন আগেই বিএনপির নেতা ইলিয়াস আলীর গুমের জন্য দলের কিছু নেতাকে দায়ী করার পর আজ আবার সরকারকে দায়ী করায় মির্জা আব্বাসের সততা নিয়েও প্রশ্ন উঠেছে। বিএনপিরই অনেক নেতা মির্জা আব্বাসের দুমুখী আচরণের প্রতিবাদ জানিয়েছেন।

বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী পরিষদের সদস্য নিপুণ রায় চৌধুরীর মুক্তির দাবিতে মঙ্গলবার এক সমাবেশে মির্জা আব্বাস বলেন, ‘এমন কোনো সংস্থা নেই, এমন কোনো প্রতিষ্ঠান নেই, এমন কোনো ব্যক্তি নেই, যারা চুরি-ডাকাতি-লুট করেনি। এত খুন, এত লুট, এত গুমেরও বিচার হবে।’

নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের নিচতলায় বাংলাদেশ নারী ও শিশু অধিকার ফোরাম এ সমাবেশের আয়োজন করে।

জানা গেছে, বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ইলিয়াস আলীর গুম নিয়ে দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস গত ১৭ এপ্রিল বক্তব্য দেন। ওই সময় তিনি ইলিয়াস আলীর গুমের জন্য বিএনপির কিছু নেতাকে দায়ী করেছিলেন। দলের কোন্দলের কারণে ইলিয়াস আলীকে গুমের শিকার হতে হয়েছে বলেও তখন উল্লেখ করেছিলেন মির্জা আব্বাস। ওই বক্তব্যে ব্যাপক তোলপাড়ের সৃষ্টি হয়েছিল। বছরের পর বছর ধরে সরকারকে গুমের জন্য দায়ী করে আসা বিএনপি নেতারা রাজনৈতিক চাপের মুখে পড়েন। উঠে আসে নির্মম সত্য। নিজ দলের নেতাকে গুম করে সরকারকে বিপদে ফেলার চক্রান্ত এবং ষড়যন্ত্রের জন্য দেশ-বিদেশে বিএনপির সমালোচনায় মুখর হয়ে ওঠে সবাই।

সূত্র জানায়, বিবেকের তাড়নায় দীর্ঘ নয় বছর পর ইলিয়াস আলীর গুম নিয়ে সত্য তুলে ধরেছিলেন মির্জা আব্বাস। কিন্তু সেই সত্য তুলে ধরে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের তোপের মুখে পড়েন তিনি। এরপর কিছুদিন চুপচাপ থাকেন। মির্জা আব্বাসের আজকের বক্তব্যে প্রশ্ন উঠেছে বিএনপির ভেতর থেকেই।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেন, মির্জা আব্বাস দলের সর্বোচ্চ ফোরাম স্থায়ী কমিটির সদস্য। তিনি যদি একই বিষয়ে বিভিন্ন সময় ভিন্ন ভিন্ন বক্তব্য দেন তাহলে সেটা বিএনপির জন্য ভালো হয় না। দল সমালোচনার মুখে পড়ে। তার এই অসততার কারণে বিএনপির দুর্নাম বাড়বে। আরও সতর্ক হতে হবে মির্জা আব্বাসকে।

রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন, গুম নিয়ে মির্জা আব্বাসের দুই ধরনের কথায় বোঝা যায় বিএনপির চরিত্র। এই দলের কোন নেতাই নিজের মতামত প্রকাশ করতে পারেন না। ইলিয়াস আলীর গুম নিয়ে সত্য বলার পরে তারেক রহমানের ঝাড়ি খেয়েছেন মির্জা আব্বাস। এখন বাধ্য হয়ে তারেকের কথামত আবার সরকারকে দায়ী করে বক্তব্য দিচ্ছেন। কিন্তু এসব কর্মকাণ্ডের কারণে জনগণের কাছে হাসির খোরাক হচ্ছেন বিএনপির নেতারা। যত দিন যাচ্ছে উল্টা পাল্টা বক্তব্য দিয়ে জনগণের কাছে আরও নিন্দিত হয়ে উঠছেন বিএনপির নেতারা। বিএনপিতে তারেকের একক আধিপত্য না কমাতে পারলে, দলে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করতে না পারলে এরকম ঘটতেই থাকবে। ফলে জনসমর্থনের অভাবে আর কখনই ভোটে জিততে পারবে না বিএনপি।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি