বুধবার ২৮ জুলাই ২০২১



রিজার্ভ ব্যাংকে আটকে আছে খালেদা-তারেকের টাকা


বাংলা নিউজ ব্যাংক :
22.06.2021

নিউজ ডেস্ক : সিঙ্গাপুরের এক ব্যাংকে এক বাংলাদেশির ৮ হাজার কোটি টাকা রয়েছে বলে সিঙ্গাপুরের প্রধানমন্ত্রী প্রয়াত অ্যাটর্নি জেনারেলকে দীর্ঘ আলাপচারিতায় জানিয়েছিলেন। এক টকশোতে দুদকের বিজ্ঞ আইনজীবী খুরশিদ আলম খান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। নির্ভরযোগ্য মহলের খবর হলো- এ টাকার মালিক ছিল যুদ্ধাপরাধ মামলায় ফাঁসির দণ্ডে দণ্ডিত কুখ্যাত রাজাকার সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরী (সাকা), যে বহু দিন বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের মন্ত্রী ছিল।

অপরদিকে খালেদা জিয়ার পুত্র তারেক রহমান এবং তার বন্ধুর প্রচুর টাকা রয়েছে বিভিন্ন বিদেশি ব্যাংকে যা তোলা যাচ্ছে না। কারণ টাকাগুলো (বিদেশি মুদ্রায়) এমন ভল্টে রাখা হয়েছে যেখানে তারেক রহমান এবং গিয়াসউদ্দিন আল মামুনের চোখ না মিললে ভল্ট খুলবে না। গিয়াসউদ্দিন আল মামুন জেলে থাকার কারণে সে টাকা তারেক রহমানও তুলতে পারছে না। বিএনপি-জামায়াত সরকারের সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোর্শেদ খান এবং দ্বিতীয় পুত্র ফয়সাল মোর্শেদের হংকংয়ে প্রচুর টাকা এবং শেয়ার থাকার ব্যাপারেও দুদক কর্মপন্থা গ্রহণ করছে। এভাবে বিদেশে পাচার করা বহু টাকার ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ এবং দুদক মাঠে নেমেছে। কিন্তু প্রশ্ন হচ্ছে এ টাকাগুলো আনা যাবে কিনা এবং তা কবে নাগাদ হতে পারে।

বাংলাদেশ সারা বিশ্বে উন্নয়নের বিমূর্ত প্রতীক হিসেবে পরিচিতি পেয়েছে। আজ আমাদের বিদেশি মুদ্রার রিজার্ভ ৪৫ বিলিয়ন ডলারে পৌঁছেছে যা সবাইকে বিস্মিত করেছে। সম্প্রতি হল্যান্ডের রাজা-রানী বাংলাদেশের উন্নয়নে অভিভূত হয়ে তা দেখার জন্য আগ্রহ প্রকাশ করেছেন। পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশে তার হাইকমিশনারকে নির্দেশ দিয়েছেন বাংলাদেশ কীভাবে এত উন্নতি করল তা জানতে। এতে আমরা গর্বিত। কিন্তু যে অর্থ দেশ থেকে পাচার হয়ে গেছে এবং যাচ্ছে তা আমাদের বর্তমান অর্থনীতিকে অবশ্যই ক্ষতিগ্রস্ত করেছে। তারেক রহমান, গিয়াস উদ্দিন আল মামুন, সাকা চৌধুরী, পি কে হালদার, এমপি পাপুল, মোর্শেদ খান, মীর কাসেম আলীসহ আরও অনেকে যে পরিমাণ টাকা পাচার করেছে, তা বিশ্বাসের জগতকেও হার মানায়। এগুলো প্রমাণ করছে বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের আমলে কত ব্যাপক আকারে দুর্নীতি হয়েছে। তদুপরি সাকা চৌধুরী এবং মীর কাসেমের মতো রাজাকারদের সম্পদের পাহাড় গড়ার সুবিধা করে দিয়েছিল জিয়াউর রহমান।

পাচার করা আরও হাজার হাজার কোটি টাকা বিদেশে রয়েছে যেগুলো আনার প্রক্রিয়া চলছে, যার কথা এগমন্ট গ্রুপের শর্তের কারণে কর্তৃপক্ষ প্রকাশ করতে পারছেন না। তবে সব ঠিকমতো চললে এগুলো আনা যাবে বলে আশ্বস্ত হওয়া যায়, যদি কর্মকর্তারা বিশ্বস্ততার সঙ্গে তাদের ওপর বর্তিত দায়িত্ব পালন করেন। দেশপ্রেমকে ব্যক্তিস্বার্থের ঊর্ধ্বে রাখলেই পাচার করা টাকাগুলো ফিরিয়ে আনা বাঞ্ছনীয়।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি